প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জিনগত গবেষণার জন্য রসায়নে নোবেল পেয়েছেন দুই নারী বিজ্ঞানী

লিহান লিমা: [২] জিনোম সম্পাদনার পদ্ধতির বিকাশের জন্য যৌথভাবে ২০২০ সালে রসায়নে নোবেল পেয়েছেন ফরাসি নাগরিক এমানুয়েল মেরি চার্পেন্টিয়ার ও জেনিফার এ ডোডনা। বুধবার দ্য রয়্যাল সুইডিশ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেস বিজয়ীদের নাম ঘোষণা করে। নোবেল.ওআরজি।

[৩] নোবেল কমিটি তাদের বিবৃতিতে বলেছে, ইমানুয়েল এবং জেনিফার জিন প্রযুক্তির অন্যতম সেরা প্রযুক্তি ‘সিআরআরএসপিআর/ক্যাস৯ জেনেজিক সিসর’ আবিষ্কার করেছেন। সিএনএন।

[৪] ইমানুয়েল ফরাসি অধ্যাপক এবং মাইক্রোবায়েলজি, জেনেটিক্স ও বায়োকেমেস্ট্রি বিষয়ের গবেষক। জেনিফার ডোডনা মার্কিন প্রাণ রসায়নবিদ এবং বার্কলি ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের আণবিক জীববিজ্ঞান, কোষ জীববিজ্ঞান ও রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক।

[৫] নোবেল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, আণবিক জীববিজ্ঞানে বিপ্লব নিয়ে এসেছে ‘সিআরআরএসপিআর/ক্যাস৯ জেনেজিক সিসর’। এটি ব্যবহার করে গবেষকরা নির্ভুলভাবে প্রাণি, উদ্ভিদ ও অণুজীবের ডিএনএ পরিবর্তন করতে সক্ষম। একইসঙ্গে তা ক্যান্সার চিকিৎসায় নতুন দিগন্ত উন্মেচন করবে। জিনগত রোগ নিরাময়ের স্বপ্ন সত্যি করতে পারে এই আবিষ্কার।

[৬] ১৯১১ থেকে ২০০৯ সাল পর্যন্ত রসায়নে মাত্র চার জন নারী নোবেল জিতেছিলেন। সর্বশেষ ২০০৯ সালে ইসরায়েলের এডা ই ওনাথকে জীব কোষে অবস্থিত রাইবোজোমের গঠন ও ক্রিয়া নিয়ে কাজ করার জন্য নোবেল পুরষ্কারে ভূষিত হন। সম্পাদনা: ইকবাল খান

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত