প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] রোনালদোর জুভেন্টাস না খেলেই জয় পাচ্ছে!

স্পোর্টস ডেস্ক: [২] কপাল পুড়ছে ইতালিয়ান ক্লাব নেপোলির। সিরি’আর হাই ভোল্টেজ ম্যাচে রবিবার (৪ অক্টোবর) জুভেন্টাসের বিপক্ষে মাঠে নামার কথা ছিল দলটির। কিন্তু দলটিতে করোনা আঘাত হানায় এ ম্যাচ নিয়ে জেগেছে শঙ্কা। অন্যদিকে নেপোলি মাঠে না গেলে এ ম্যাচ থেকে পূর্ণ তিন পয়েন্ট পেয়ে যেতে পারে জুভেন্টাস।

[৩] গত সপ্তাহে নাপোলির মাঠে খেলতে আসে আরেক ক্লাব জেনোয়া। করোনা-বিড়ম্বনায় নির্ধারিত সময়ের তিন ঘণ্টা পরে শুরু হয় ম্যাচটি। কারণ, ম্যাচের দিন সকালে জানা যায়, জেনোয়ার মূল গোলরক্ষক মাত্তিয়া পেরিন করোনা পজিটিভ। আর তাতেই বিপাকে পড়ে জেনোয়া। ফলে বেশ কয়েক ঘণ্টা দেরিতে নেপোলির মাঠে পৌঁছায় দলটি। পরে ম্যাচে নাপোলি ৬-০ গোলের বড় জয় পায়।

[৪] কিন্তু এরপরই বড়সড় দুঃসংবাদ পায় জেনোয়া। ক্লাবটির ২২ জন সদস্য করোনায় আক্রান্ত হন, যাদের বেশির ভাগই খেলোয়াড়। আনুষ্ঠানিক এক বিবৃতিতে ক্লাব কর্তৃপক্ষ জানায়, ডিফেন্ডার দাভিদে জাপাকস্তা ও লুকা পেলেগ্রিনি, মার্কো পিয়াৎসা, মিডফিল্ডার লাসে শোয়েন, ইভান রাদোভানোভিচ, ভালোন বেহরামি ও লুকাস লেরাগের, গোলরক্ষক ফেদেরিকো মারচেত্তি সবাই আক্রান্ত হয়েছেন ভাইরাসে। তবে তাদের কারও মধ্যেই করোনার উপসর্গ ছিল না।

[৫] জেনোয়ার সঙ্গে ম্যাচ খেলা নাপোলিও পার পায়নি। দলটির পোলিশ তারকা মিডফিল্ডার পিওতর জিয়েলিনস্কি করোনায় আক্রান্ত হন। জিয়েলিনস্কির পথ ধরে মেসিডোনিয়ার মিডফিল্ডার এলিফ এলমাস আক্রান্ত হয়েছেন। দলের দুজন খেলোয়াড় ইতোমধ্যে আক্রান্ত হয়েই গেছেন, ফলে আরও খেলোয়াড় আক্রান্ত হতেও পারেন, এ আশঙ্কায় স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ নাপোলি স্কোয়াডকে যাত্রা না করার পরামর্শ দেয়। আরও একবার যাতে পরীক্ষা করা হয়, সে ব্যাপারে বলা হয় নাপোলি তারকাদের। যে কারণে গত রাতের নির্ধারিত ফ্লাইটে নেপোলির কেউই তুরিন আসতে পারেননি।

[৬] ফেডারেশনের নিয়ম অনুযায়ী যে কোনো দলের ১৩ জন খেলোয়াড়ও যদি সুস্থ থাকেন তাহলে তারা মাঠে নামতে বাধ্য। না নামলে প্রতিপক্ষকে ৩-০ গোলের ব্যবধানে বিজয়ী ঘোষণা করা হবে। অবস্থা বুঝে গতকাল শনিবার রাতে জুভেন্টাসও ঘোষণা দেয়, তারা যথারীতি ম্যাচ খেলার জন্য মাঠে নামবে। অর্থাৎ নাপোলি যদি না-ও আসে, রোনালদোরা না খেলেই তিন পয়েন্ট পেয়ে যাবেন।

[৭] এদিকে ইতালিয়ান নিউজ এজেন্সি ‘এএনএসএ’ জানিয়েছে, নাপোলির খেলোয়াড়দের তুরিনে আসার জন্য কোনো বাধা দেওয়া হয়নি, যেমনটা আগে বলা হচ্ছিল। অর্থাৎ চাইলেই নাপোলি তারকারা জুভেন্টাসে আসতে পারতেন, তারাই আসেননি। এজেন্সির খবর যদি সত্যি হয়, তাহলে নাপোলি যদি শেষমেশ খেলতে না যায়, তবে মাঠে না নেমেই জুভেন্টাসের তিন পয়েন্ট পাওয়ার পথ সুগম হয়ে যাবে। ‘এএনএসএ’ জানিয়েছে, স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্তৃপক্ষ গোটা স্কোয়াডকে যেতে মানা করেনি, শুধু যাদের সমস্যা, তাদের কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলেছে। এদের মধ্যে রয়েছেন নাপোলি কোচ জেনারো গাত্তুসোসহ বেশ কয়েকজন খেলোয়াড়। নাপোলি এখনো এ ব্যাপারে আনুষ্ঠানিক কোনো বিবৃতি দেয়নি। – ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস/ নিউজ এজেন্সি ‘এএনএসএ’

সর্বাধিক পঠিত