প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাদিয়া নাসরিন: ধর্ষণ বুঝতে হলে আমাদের সবার আগে ‘রাষ্ট্রচিন্তা’ বুঝতে হবে

সাদিয়া নাসরিন: খাগড়াছড়ি এবং সিলেটের ধর্ষণ নিয়ে তুমুল শোরগোলে আমরা নজর দেওয়ার সময় পাইনি আরো ছয়দিন আগে থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী, যিনি কিনা ‘ছাত্র অধিকার পরিষদ’ নামের একটি সংগঠনের কর্মী, তাঁরই সংগঠনের একজনের বিরূদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ নিয়ে মোটামুটি একাই লড়াই করে যাচ্ছেন। তাকে সংঘবদ্ধভাবে হয়রানি করা হচ্ছে, সাইবার এ্যাটাক করা হচ্ছে, শেইমিং করা হচ্ছে। কিন্তু মেয়েটি লড়ে যাচ্ছেন।

সেই ধর্ষণের সহযোগীতা এবং সাইবার হয়রানির হুমকি দাতা এবং সামাজিকভাবে হয়রানির অভিযোগে অভিযুক্ত এই সংগঠনের নেতা নুরু (ওরফে নুরা)। সে আবার ধর্ষণের অভিযুক্ত মামুনকে সংগঠন থেকে বহিষ্কারও করেছে। মানে ঘটনা এডমিট করেছে।
কিন্তু, যেহেতু এই ধর্ষণের অভিযোগের সাথে কোন না কোনভাবে নুরা সম্পৃক্ত, আমরা অবশ্যই এই অভিযোগ এডমিট করবোনা। এ নিয়ে বেশি কথা বলবোনা। এবং এর পেছনে আমরা ‘রাজনৈতিক উদ্দেশ্য’, ‘সরকারের চক্রান্ত’ এসব কারণকে স্টাবলিশ করবো। এবং ফোকাসটা ধর্ষণ থেকে সরিয়ে রাজনৈতিক দিকে নিয়ে যাবো।
এবং অবশ্যই আমাদের গণমাধ্যম অভিযোগকারী নারীর অভিযোগ তদন্তের চাইতে বেশি গুরুত্ব দেবে নুরার সাফাই বক্তব্যকে, নুরার পক্ষের বিক্ষোভ আন্দোলন সংগ্রামকে, নুরার বউ এর “আমার স্বামী এমন কাজ করতেই পারেনা” স্টেটমেন্টকে। এসব ডামাডোলে ওই অভিযোগকারী মেয়েটি নুরা গ্যাং এর সংঘবদ্ধ আগ্রাসনের মুখে কোনঠাসা হতে হতে এক সময় মিলিয়ে যাবে। যেমন সব মেয়েই যায়।
এবং আমরা দুনিয়ার তাবৎ ধর্ষণের বিচার চাইবো। কিন্তু এখানে চুপ করে থাকবো। কারণ নুরা ‘ছাত্রলীগ’ নয়, ‘যুবলীগ’ নয়, ‘আওয়ামীলীগ’ নয়। এখানে ‘প্রতিবাদ’ করলে ঠিক জমেনা আর কি! কারণ, ধর্ষণ কেবল ছাত্রলীগই করতে পারে, কিন্তু নুরার ছাত্র অধিকার পরিষদ কোনভাবেই ধর্ষণ করতে পারেনা।
কারণ, নুরা হলো আমাদের ‘বিশেষ’ গোষ্ঠির বিশেষ পরিকল্পনার অংশ, যার পেছনে বিশাল বিশাল সুশীল চেতনাবাজের বিশাল বিশাল বিপ্লবী এজেন্ডা আছে, যেখানে বাম-ডান-জামাত-হেফাজত এক হয়ে মিলে মিশে এক ‘রাষ্ট্রচিন্তা’কে ত্বরান্বিত করে।
সুতরাং ধর্ষণ বুঝতে হলে আমাদের সবার আগে ‘রাষ্ট্রচিন্তা’ বুঝতে হবে। ধর্ষণের প্রতিবাদ করতে হলে আমাদের খুব ‘সিলেক্টিভ’ হতে হবে। ধর্ষণের বিচার চাইতে হলে আমাদের যার যার এজেন্ডা আগে পরিষ্কার করে নিতে হবে। এরপর সব ঠিক থাকলে আমরা শ্লোগান তুলবো, “ধর্ষকের কোন দল নেই”। ঠিক আছে না ? ফেসবুক থেকে

সর্বাধিক পঠিত