প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ভারতের সর্বোচ্চ ক্রীড়া সম্মাননা পুরস্কার জিতলেন ঠেলা গাড়ী চালকের মেয়ে

স্পোর্টস ডেস্ক : [২] শনিবার (২১ আগস্ট) ভারতের ক্রীড়া পুরস্কার প্রাপ্ত ক্রীড়াবিদদের নাম প্রকাশ করা হয়। যেখানে প্রথম নারী হকি খেলোয়াড় হিসেবে ভারতের সর্বোচ্চ ক্রীড়া সম্মাননা পুরস্কার পেয়েছেন ভারতের জাতীয় মহিলা হকি দলের অধিনায়ক রানি রামপাল।

[৩] এতো বড় অর্জন এই নারী ক্রীড়াবিদকে মোকাবিলা করতে হয়েছে অনেক বাঁধা। বাবার দারিদ্র্য, আর সমাজের দৃষ্টিভঙ্গি, সবকিছুকে পেরিয়ে তিনিই এখন ভারতের রত্ন। সম্প্রতি, ভারতীয় গণমাধ্যম দৈনিক আনন্দবাজারকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নিজের জীবনের লড়াই সংগ্রামের গল্প শুনিয়েছেন রানি রামপাল।

[৪] বাবা ছিলেন একজন ঠেলাগাড়ি চালক। আর পরিবারে ছিলেন তিন ভাই-বোন। তাই বেঁচে থাকাটা খুব একটা সহজ ছিল না।

[৫] এমন এক পরিবার থেকে উঠে এসে ভারতের মতো দেশের জাতীয় হকি দলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন রানি রামপাল। যার বেঁচে থাকাই ছিল দুরূহ, সেই রানি কি-না জিতলেন ভারতের সর্বোচ্চ ক্রীড়া সম্মাননা ‘রাজীব গান্ধী খেলরত্ন’ পুরস্কার।

[৬] লড়াই সংগ্রামের গল্প শুনিয়ে রানি রামপাল বলেন, দারিদ্র্যের বিরুদ্ধে প্রবল সংগ্রামের মাধ্যমে বেঁচে থাকার লড়াইয়ে হকিই হয়ে উঠেছিল অস্ত্র। এটা স্রেফ খেলা ছিল না, ছিল তার বাঁচার মাধ্যম। নিজের জীবনের গল্প জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘খুব কঠিন দিন গিয়েছে। আমি খুব গরিব ঘর থেকে উঠে এসেছি। বাবা ছিলেন ঠেলাগাড়ির চালক। বেঁচে থাকাটাই ছিল ভেরি ডিফিকাল্ট। তিন ভাই-বোনের সংসার ছিল। ভয়ানক সব দিন দেখেছি।’

[৭] তিনি আরও বলেন, ‘জীবন আমাকে একেবারেই সাজিয়ে দেয়নি কিছু। তবে এটাও ভাবি যে, আমি নিশ্চয়ই আশীর্বাদধন্যা। আমি ব্লেসড যে হকি খেলতে পারি।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত