প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এ বি এম কামরুল হাসান : এবার তাহলে চিকিৎসার জন্য বিদেশ যাওয়া বন্ধ হবে!

আমার সহকর্মীরা নানান দেশের। কর্মস্থলে গেলেই বুঝতে পারি দেশের কোন খবরটি বিশ্ব মিডিয়াতে ফলাও করে প্রচার হচ্ছে। এই যেমন ধরুন, বাংলাদেশ ক্রিকেটে জিতেছে। দেখা হওয়া মাত্রই সহকর্মীরা বলে তোমরা লড়াই করে জিতেছো । অভিনন্দন। বুঝতে পারি, সবাই নিজ দেশের বা বিশ্ব মিডিয়া থেকে জেনেছে। আজ ক'দিন ধরে সবাই জানতে চায় সাহেদ-সাবরিনা-সাহাবুদ্দিন কিচ্ছা । কিংবা ইতালির কাহিনী । বুঝেছি, এগুলো এখন দুনিয়া মাতানো খবর। এসব নিয়ে সহকর্মীরা কিছু জিজ্ঞেস করলে খুব বিব্রত বোধ করি । ভেতরে ভেতরে হীনমন্যতায় ভুগি ।

টিভিতে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্যারের সাক্ষাৎকার শুনে আমার হীনমন্যতা কেটে গেছে । আনন্দে আত্মহারা হয়ে গেছি। কাল সকালে সবাইকে বলতে পারবো । জানো, ২০২০ সালে অনুষ্ঠিত কভিড-১৯ পরীক্ষায় আমরা পাশ করেছি । ভালো করেছি । অনেক ভালো। তোমাদের থেকেও ভালো। জিপিএ ৫ পেয়েছি । উন্নত বিশ্ব যেখানে হিমশিম খাচ্ছে সেখানে আমরা.....। সমগ্র বিশ্বে যেখানে মৃত্যুর হার শতকরা ছয় ভাগ, ইউরোপে দশ,আমেরিকায় ছয়, সেখানে আমাদের এ রোগে মৃত্যুর হার দেড় শতাংশ । কারণ হিসাবে তিনি বলেছেন, আমাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা উন্নত হয়েছে । হ্যা, ঠিকই তো। মৃত্যুর হার বিবেচনা করলে অনায়াসেই বলা যায় ইউরোপ, আমেরিকা থেকে আমাদের চিকিৎসা ব্যবস্থা অনেক গুন ভালো । কোথায় দশ, আর কোথায় দেড় ! ভাবতেই আনন্দে কেঁদেছি চারটি কারণে । প্রথমত, কাল থেকে সহকর্মীরা আমাদের সাথে ইজ্জত দিয়ে কথা বলবে । আর হীনমন্যতায় ভুগতে হবে না । কারণ, কোভিড চিকিৎসায় আমরাই সেরা । দ্বিতীয়ত, তাহলে এবার উন্নত চিকিৎসার্থে বিদেশ যাত্রা বন্ধ হয়ে যাবে। বৈদেশিক মুদ্রা বেঁচে যাবে। কেন বিদেশ যাবে ? বিদেশে মৃত্যুহার বেশি। আমাদের অনেক কম। স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্যার যা বলেন তা যদি বুঝে বলেন তাহলে তিনি অন্তত বিদেশে আর চিকিৎসা নিতে যাবেন না। তৃতীয়ত, ভিনদেশি সহকর্মীরা আমাদের দেশে চিকিৎসার জন্য যেতে চাইবে। এমনকি কোভিড চিকিৎসার জন্য। দেশ অনেক বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন করবে। দেশে মেডিকেল ট্যুরিজমের বাজার বসবে। চতুর্থত, টেলিমেডিসিন। উন্নত চিকিৎসা প্রাপ্তিতে তিনি এটাকে একটা কারণ বলেছেন। এখানেও আমরা অনেকদূর এগিয়েছি। মানুষ আর এখন হাসপাতালে যায় না। বাসায় বসে টেলিমেডিসিন সেবা নেয়। সেদিন আর বেশি দূরে নয়, যেদিন বিদেশিরাও আমাদের দেশ থেকে টেলিমেডিসিন সুবিধা নিবে। এতসব কিছুতে যে কি আনন্দ, তা প্রবাসীরা ছাড়া কেউ বুঝবে না। যেমনটি বুঝেছিলো ক্রাউন সিমেন্ট বিজ্ঞাপনের কুদ্দুছ, যখন সে বিদেশে কাজ করতে যেয়ে 'মেড ইন বাংলাদেশ' লেখা সিমেন্ট দেখেছিলো। লেখকঃ প্রবাসী চিকিৎসক, কলামিস্ট

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত