প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সংক্রমণের সংখ্যায় ইতালিকে ছাড়াল ভারত

ডেস্ক রিপোর্ট : [২] ভারতে করোনাভাইরাস সংক্রমণে আক্রান্তের উর্ধ্বমুখী হার দেখা যাচ্ছে। দেশটিতে গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১০ হাজার ছাড়িয়েছে। এর ফলে দেশটিতে এ ভাইরাসে সংক্রমণের সংখ্যা এখন ইতালিকে ছাড়িয়ে গেছে।

[৩] ভারতীয় সংবাদমাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়ার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বে আক্রান্তের হারের হিসাবে ভারত এখন ষষ্ঠ স্থানে। ভারতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৩৬ হাজার ৬৫৭ জন। আর মারা গেছেন ৬ হাজার ৬৪২ জন। তবে সংখ্যার বিচারে ভারত যদিও বিশ্বে আক্রান্তের তালিকায় ছয় নম্বরে আছে। কিন্তু মৃত্যুর হিসাবে ভারতের স্থান বিশ্বে ১২ নম্বরে। আর ইতালিতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছেন ২ লাখ ৩৪ হাজার ৮০১ জন। মারা গেছেন ৩৩ হাজার ৮ ৪৬ জন।

[৪] ভারতে গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই প্রতিদিন সংক্রমণের সংখ্যা বাড়ছে। গত মার্চের শেষে ভারতে যে কঠোর লকডাউন জারি করা হয়েছিল, এখন তা ধীরে ধীরে শিথিল করা হচ্ছে। মুম্বাইয়ে স্বাস্থ্য ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার মুখে। আর রাজধানী দিল্লিতে হাসপাতালগুলো রোগীদের জায়গা দিতে হিমশিম খাচ্ছে বলে জানা যাচ্ছে। ইতিমধ্যে শপিং মল, উপাসনাস্থল, রেস্তোরাঁ এবং অফিসগুলো সোমবার থেকে আবার খুলে দেওয়া হচ্ছে।

[৫] বিপুল জনসংখ্যা, রোগের বিস্তার এবং সরকারি হাসপাতালগুলোতে বিনিয়োগের অভাবের কারণে সংক্রমণ মোকাবিলার বিষয়টি দেশটির জন্য একটা বড় চ্যালেঞ্জ তৈরি করেছে।

[৬] বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন ভারতে যেভাবে শনাক্তের হার বাড়ছে, তাতে মনে হচ্ছে দেশটিতে সংক্রমণ গ্রাফের চূড়ায় পৌঁছচ্ছে দেরি করে।

[৭] সোশাল মিডিয়াতে বহু ভারতীয় চিকিৎসা সেবা পাবার ক্ষেত্রে তাদের ভোগান্তির কথা বলছে। কোনো কোনো হাসপাতাল রোগীদের বলেছে তাদের কাছে যথেষ্ট পরীক্ষা সরঞ্জাম আর নেই।

[৮] সমালোচকরা বলছেন ভারতে সংক্রমণ এখন যে চূড়ায় পৌঁছাচ্ছে, তা থেকে মনে হচ্ছে লকডাউন দেশটিতে কাজ করেনি। এই লকডাউনের জন্য দেশকে বিশাল অর্থনৈতিক মূল্য দিতে হয়েছে। কিন্তু এই লকডাউনের সময়ে সরকারের চিকিৎসা সেবা ব্যবস্থাসহ অন্যান্য যেসব প্রস্তুতি নিয়ে রাখা উচিত ছিল, সমালোচকরা বলছেন সরকার সেটাও করেনি।

[৯] সংক্রামক ব্যাধি বিষয়ক একজন গবেষক ও অধ্যাপক গৌতম মেনন বিবিসি বাংলাকে বলেন, ‘ভারতের সামনে আর কোনো বিকল্প ছিল না। এই লকডাউন এত দীর্ঘদিন চালু রাখা একটা সময়ের পর অসম্ভব হয়ে দাঁড়িয়েছিল-অর্থনৈতিক, সামাজিক, মনস্তাত্ত্বিক সব দিক বিবেচনা করলে আর কোনো বিকল্প ছিল না।’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত