প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাল্য বিয়ে রোধ করা এখন আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ, বললেন প্রতিমন্ত্রী

তাপসী রাবেয়া: রাজশাহী বিভাগে নির্বাচিত হলেন পাঁচ শ্রেষ্ঠ জয়িতা। মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসা ইন্দিরা এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে রোববার ( ৯ ফেব্রুয়ারি) রাজশাহীর শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর ও বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়, রাজশাহী আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে রাজশাহী বিভাগের নির্বাচিত জয়িতা ও পাচ শ্রেষ্ঠ জয়িতাদের ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট, নগদ দশ হাজার টাকা ও উত্তরীয় পরিয়ে সংবর্ধিত করেন। রাজশাহী বিভাগের আট জেলার পাচ ক্যাটাগরিতে ৪০ সংগ্রামী নারীর মধ্য থেকে পাঁচজন শ্রেষ্ঠ জয়িতা নির্বাচিত করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী ফজিলাতুন নেসাইন্দিরা বলেন, নারী উন্নয়ন, ক্ষমতায়ন ও সমতা অর্জনে বাংলাদেশ অনেক উন্নত দেশকে ছাড়িয়ে গেলেও বাল্য বিয়ে রোধ করা এখন আমাদের সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ।

প্রশাসন, পুলিশ, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও স্থানীয় জনগণের সহায়তায় জাতির পিতার জন্মশতবর্ষে এই চ্যালেঞ্জ অর্জন করে বাংলাদেশকে পুরোপুরি বাল্য বিয়ে মুক্ত করতে হবে।
রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার মো. হুমায়ুন কবির খোন্দকার এর সভাপতিত্বে জয়িতা সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য আদিবা আনজুম মিতা, মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব কাজী রওশন আক্তার ও মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তরের মহাপরিচালক পারভীন আকতার, রাজশাহী রেঞ্জের ডিআইজি একেএম হাফিজ আক্তার, রাজশাহী মেট্রোপলিটন পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার সুজায়েত ইসলাম, জেলা প্রশাসক মো. হামিদুল হক ও নারী নেত্রী শাহিন আকতার রেনী।

রাজশাহী বিভাগের নির্বাচিত পাঁচ শ্রেষ্ঠ জয়িতা, অর্থনৈতিকভাবে সাফল্য অর্জনকারী জয়িতা তানিয়া আজাদ, শিক্ষা ও চাকুরীর ক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠ জয়িতা রাশেদা খালেক, সফল জননী ক্যাটাগরিতে শ্রেষ্ঠ জয়িতা হয়েছেন মোসা. হাসনে বানু, নির্যাতনের বিভীষিকা মুছে ফেলে নতুন উদ্যমে জীবন শুরু করে জয়িতা হয়েছেন মোছা. আদুরী বানু ও সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রাখায় রাজশাহীর এবারের জয়িতা হয়েছেন মোসা. পারভীন আকতার। সম্পাদনা: তিমির চক্রবর্ত্তী

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত