প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এখনই সাধারণের হাতে যাচ্ছে না ই-পাসপোর্ট

লাইজুল ইসলাম : বাংলাদেশ ই-পাসপোর্ট যুগে ১১৯তম দেশ। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত ২২ জানুয়ারি এই কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন। ই-পাসপোর্ট প্রোটকল অনুযায়ী দেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী পেয়েছেন কিন্তু সবার কাছে সাধারণের হাতে কবে পৌঁছবে ই-পাসপোর্ট?

বিভিন্ন সূত্রে জানাগেছে, সাধারণ মানুষের হাতে ই-পাসপোর্ট পৌঁছতে অন্তত ৩ মাস সময় লাগবে। এর যৌক্তিক কারণও ব্যাখ্যা দিয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক কর্মকর্তা বলেন, এখনো পাসপোর্ট অধিদপ্তরের কর্মকর্তারাই কোনো সঠিক নির্দেশনা পায়নি। কিভাবে? কবে থেকে? ই-পাসপোর্ট কার্যক্রম শুরু হবে।

এই কর্মকর্তা আরো জানান, চাইলেই ই-পাসপোর্ট করা যাবে না। এই পক্রিয়াটি এখনো সম্পূর্ণ শেষ করতে পারেনি অধিদপ্তর কিন্তু উদ্বোধন করা হয়েছে। সাধারণ মানুষ তো দূরের কথা সরকারের উর্দ্ধতন কর্মকর্তা-ব্যক্তি-কূটনিতিক তারাই কবে পাবেন সেই বিষয়ে নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না। তবে খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে এটি কার্যকর করার চেষ্টা চলছে বলেও জানান তিনি।

প্রটোকল অনুযায়ী রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী পর সরকারের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তা ও কূটনিতিকরা ই-পাসপোর্ট পাবেন। তাদের পর সাধারণের জন্য শুরু হবে ই-পাসপোর্ট পক্রিয়া।

পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ বলেন, সব কিছুই সময় মতো হবে। কিছুটা সমস্যা প্রথম দিকে হবে। তবে ধীরে ধীরে এই সমস্যার সমাধানও চলে আসবে। ই-পাসপোর্ট প্রথম দিকে হয় তো পেতে সমস্যা হবে কিন্তু কিছুদিন যাদের হাতে পাসপোর্ট নেই বা যাদের পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ তারাই এর জন্য আবেদন করতে পারবে। তবে যাদের এমআরপি পাসপোর্টের মেয়াদ শেষ হয়নি তারা কিন্তু কোনোভাবেই পাসপোর্টের জন্য আবেদন করতে পারবেন না।

শাকিল আহমেদ বলেন, এতো ঝামেলার মধ্য দিয়ে আমরা অন্তত ই-পাসপোর্ট শুরু করতে পেরেছি। এখন সাধারণের হাতেও পৌঁছানো যাবে। আপাতত ২৫’শ পাসপোর্ট দিনে দেয়ার সক্ষমতা অর্জন করতে পারবে অধিদপ্তর। তবে, সেটা প্রথম থেকেই নয়। তাই এক সঙ্গে সবাই আবেদন না করে ধীরে ধীরে আবেদন করার কথাই অনেকটা বলতে চেয়েছেন পাসপোর্ট অধিদপ্তরের মাহপরিচালক।

৫ ও ১০ বছর মেয়াদি এবং ৪৮ ও ৬৪ পাতার ই-পাসপোর্ট ১৫ শতাংশ ভ্যাটসহ ভিন্ন ভিন্ন ফি দিয়ে পাওয়া যাবে। নতুন পাসপোর্টের ক্ষেত্রে অতি জরুরি ৩ দিনে, জরুরি ৭ দিনে ও সাধারণ পাসপোর্ট আবেদনের ক্ষেত্রে ২১ দিনের পাসপোর্ট পাওয়া যাবে। তবে পুরনো অথবা মেয়াদোত্তীর্ণ পাসপোর্ট রি-ইস্যু করার ক্ষেত্রে অতি জরুরি পাসপোর্ট ২ দিনে, জরুরি পাসপোর্ট ৩ দিনে ও সাধারণ পাসপোর্ট ৭ দিনের মধ্যে পাওয়া যাবে।

বাংলাদেশে আবেদনকারীদের জন্য ৪৮ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি ই-পাসপোর্টের জন্য সাধারণ ফি সাড়ে ৩ হাজার টাকা, জরুরি ফি সাড়ে ৫ হাজার টাকা ও অতি জরুরি ফি সাড়ে ৭ হাজার টাকা। ১০ বছর মেয়াদি ৪৮ পৃষ্ঠার পাসপোর্টের জন্য সাধারণ ফি ৫ হাজার টাকা, জরুরি ফি ৭ হাজার টাকা ও অতি জরুরি ফি ৯ হাজার টাকা।

এছাড়া, ৬৪ পৃষ্ঠার ৫ বছর মেয়াদি ই-পাসপোর্টের জন্য সাধারণ ফি সাড়ে ৫ হাজার টাকা, জরুরি ফি সাড়ে ৭ হাজার টাকা ও অতি জরুরি ফি সাড়ে ১০ হাজার টাকা। আর ১০ বছর মেয়াদি ৬৪ পৃষ্ঠার ই-পাসপোর্টের জন্য সাধারণ ফি ৭ হাজার টাকা, জরুরি ফি ৯ হাজার টাকা ও অতি জরুরি ফি ১২ হাজার টাকা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত