প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জোর করে নির্বাচনী প্রচারণায় নিচ্ছে ছাত্রলীগ

ডেস্ক রিপোর্ট  :  ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচনী প্রচারণায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের ছাত্রলীগ জোর করে নিয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বিভিন্ন হলের ভুক্তভোগী শিক্ষার্থীরা। তবে অভিযোগ অস্বীকার করেছে ছাত্রলীগ।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হল, সলিমুল্লাহ মুসলিম হল, মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউর রহমান হল, জগন্নাথ হল সহ বেশ কয়েকটি হলের শিক্ষার্থীদের জোর করে সিটি নির্বাচনের প্রচারণায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। তাদের হাতে লিফলেট দিয়ে তা এলাকা ভাগ করে বাসায় বাসায় গিয়ে দিতে বলা হচ্ছে। প্রচারণায় না যেতে চাইলে হল থেকে বের করে দেওয়ার হুমকি দেয়া হচ্ছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হলের এক শিক্ষার্থী কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন , আমরা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আমাদের বাবা-মা কষ্ট করে লেখাপড়া করার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ে পাঠিয়েছে। আমরা নিয়মিত ছাত্রলীগের পলিটিকাল প্রোগ্রাম গুলো করি। কিন্তু এ বিষয়ে কোন অভিযোগ আমরা সাংবাদিকদের করিনি। কিন্তু আজ জানাতে বাধ্য হচ্ছি। ঢাকার প্রত্যন্ত অঞ্চলে নির্বাচনী প্রচারণার জন্য আমাদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী হিসেবে আমি লজ্জিত জানিয়ে ওই শিক্ষার্থী আরও বলেন, আমরা যখন নির্বাচনী প্রচারণায় মানুষের দ্বারে দ্বারে যাই, তখন মানুষ আমাদের সম্পর্কে বাজে মন্তব্য করে। যা শোনার জন্য আমরা মোটেও প্রস্তুত না। কারণ আমরা মেয়ে আমাদের একটা ভবিষ্যৎ আছে।

এ বিষয়ে আরো একাধিক শিক্ষার্থী জানান, আমরা প্রচারণায় না গেলে আমাদের হল থেকে বের করে দেয়ার হুমকি দেয়া হয়। তাই আমরা অনেক সময় ক্লাস মিস করে নির্বাচনী প্রচারণায় যেতে বাধ্য হচ্ছি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আরেক শিক্ষার্থী জানান, আমি সহ আমার আরো বেশ কয়েকজন বন্ধুকে প্রথমে টাকা দেয়ার প্রলোভন দেখানো হয়।তারপরেও আমরা না যেতে চাইলে আমাদেরকে যেতে বাধ্য করা হয় এবং নামসর্বস্ব কিছু নাস্তা করিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা আমাদের সাহায্যে প্রচারণা চালানো হয় যা একধরনের অমানবিক কাজ।

পড়াশোনার পাশাপাশি আমরা ছাত্রলীগের নিয়মিত প্রোগ্রামে আমাদের খাটানো হয় শুধু সিটের প্রলোভন দেখিয়ে। আমার বাহিরে থাকার সামর্থ্য নেই বলে হলে থাকি। তাই বলে কি আমরা ছাত্রলীগের দাস হয়ে যাব? ক্লাস থাকলেও আমাদের যেতে বাধ্য করা হয় এবং কোন ছুটি দেওয়া হয় না। যার ফলে আমাদের অনেক গুরুত্বপূর্ণ ক্লাস মিস যায়।

শিক্ষার্থীদের জোর করে প্রচারণায় নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হলের বিলুপ্ত কমিটির সভাপতি ও ডাকসু সদস্য ফরিদা পারভীন জানান,আমরা যারা ছাত্রলীগ করি তারা নির্বাচনী প্রচারণায় যেতেই পারি। কাউকে আমরা জোর করে নিচ্ছি না তারা নিজ নিজ উদ্যোগে যাচ্ছে। এ অভিযোগ ভিত্তিহীন ও মিথ্যা। আমরা কাউকে জোর করে নিয়ে যাচ্ছি না।

এ বিষয়ে জানতে চাওয়া হলে ছাত্রলীগ সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় জানান, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জোর করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে এ কথা ভুল। তাদের প্রত্যেকের ব্যক্তি স্বাধীনতা আছে। আমরা কারো ব্যক্তি স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ করি না। কাউকে ক্লাস মিস দিয়ে জোর করে নির্বাচনী প্রচারণায় নিয়ে যাওয়া হচ্ছে না। যারা যাচ্ছে তারা নিজ নিজ উদ্যোগে যাচ্ছে।

শিক্ষার্থীরা অভিযোগ করছে যে, জোর করে তাদের নিয়ে যাওয়া হচ্ছে এ বিষয়ে আপনি কি বলেন? এ প্রশ্নের উত্তরে জয় বলেন, আমার কাছে এ ব্যাপারে কোন অভিযোগ আসেনি। আপনার কাছ থেকে প্রথম শুনলাম। তবে জোর করে নিয়ে যাওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেলে আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

উৎসঃ দ্যা ডেইলি ক্যাম্পাস

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত