প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রিকশার বিকল্প আগে দেখান তারপর না হয় রিকশাকে হাওয়ায় ভাসিয়ে দিন

সাইফুদ্দিন আহমেদ নান্নু : একশ বাচ্চার জন্য একশ প্রাইভেটকার, পাঁচশ বাচ্চার জন্য পাঁচশ, এক হাজারের জন্য এক হাজার, পাঁচ হাজার বাচ্চার জন্য পাঁচ হাজার প্রাইভেটকার প্রতিদিন রাস্তায় নামে আরও অনেক বেশি নামে। পারলে বন্ধ করুন স্কুলে বাচ্চা আনা-নেয়া করা প্রাইভেটকারগুলো। স্কুলবাস বাধ্যতামূলক করুন, কি পারবেন, সাহস আছে? নগর তো শুধু এলিটদের নয়, গাড়িওয়ালাদের নয়, রিকশায় চড়া মানুষদেরও তাদের কথা ভাববেন না! যানজট সৃষ্টির কারণ বলে অনেকগুলো সড়ক থেকে রিকশা তুলে দিলেন। রিকশাচালকদের গ্রামে গিয়ে ধান কাটার পরামর্শও দিলেন। রিকশা বন্ধ, ভালো সিদ্ধান্ত। কিন্তু এটি বিকৃত, বিকলাঙ্গ একপেশে সুবিধাবাদী সিদ্ধান্ত। কেবল রিকশাই জট বাধায় না, প্রাইভেটকারও যানজটের অন্যতম কারণ।

রিকশার সঙ্গে সেসব প্রাইভেটকারও নিষিদ্ধ করুন যেসব প্রাইভেটকার বাচ্চাদের নিয়ে স্কুলে আসে। একশ বাচ্চার জন্য একশ প্রাইভেটকার, পাঁচশ বাচ্চার জন্য পাঁচশ। এক হাজারের জন্য এক হাজার গাড়ি। ভাবুন একবার সেসব স্কুলগুলোর সামনের রাস্তাগুলোর কথা। এখানে জট বাধায় কারা, রিকশা না প্রাইভেটকারের বহর। স্কুলবাস বাধ্যতামূলক করুন। গানম্যানসহ স্কুলবাসগুলো চলুক। আমি চ্যালেঞ্জ দিয়ে বলছি ঢাকা শহরে স্কুল শুরু আর ছুটিকাল থেকে শুরু করে সারা দিনের ২৫ শতাংশ যানজট কমবে। রিকশাহীন রাস্তায় মহানন্দে আপনারা গাড়িওয়ালারা বউ-বাচ্চা নিয়ে বেড়াবেন, বাচ্চাকে স্কুলের গেটে নামিয়ে দিয়ে আসবেন আর যাদের গাড়ি নেই তারা তাদের বাচ্চাদের রিকশাহীন রাস্তায় হেঁটে হেঁটে গরমে ঘেমে, বৃষ্টিতে ভিজে স্কুলে যাবে। ভুলে যান কেন প্রতিদিন সিএনজিতে করে বাচ্চাদের স্কুলে দেবার সাধ্য রিকশায় চড়া বাবা-মাদের নেই।

বলবেন বাসে চড়েন। বড়রা না হয় চড়লো, ছোট বাচ্চারা তারা স্কুল ব্যাগ কাঁধে নিয়ে বাসে ঝুলবে! আর সাইড রোডে কি বাস চলে? সব স্কুল কি বড় রাস্তার পাশে? আপনার গাড়ি আছে, বাজারটা গাড়িতে তুলে নাচতে নাচতে বাড়ি এসে হর্ন বাজালেন। কিন্তু যার গাড়ি নেই, সে কি করবে? বাজারের ভারি ব্যাগ,আধামণ চাল, ডাল, সিএসজিতে তুলে বাসায় ফিরবে? বুড়ো বাব-মাকে ডাক্তার দেখাতে যেতে হবে ২ কিলো দূরে, হেঁটে যাবেন তারা? নাকি পালকিতে! সিএনজি। হিসাবটা কষেন মাসে কতো টাকা সিনজিতে যাবে। হাঁটবেন ভালো, স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। কতোদিন হাঁটবেন, কয় বেলা? কোথা দিয়ে হাঁটবেন? ফুটপাথ ফ্রি আছে? সারাদিন অফিস করে হেঁটে বাড়ি ফিরবেন? পারলে ভালো ফিরুন। ভাবুন একবার যাদের গাড়ি নেই, প্রতিদিন সিএনজিতে চড়ার পয়সা নেই, তাদের বাড়ির শিশু, বৃদ্ধ, প্রবীণ, শারীরিক প্রতিবন্ধী, অসুস্থ মানুষ কিংবা গর্ভবতী মায়ের কথা। নগর তো শুধু এলিটদের নয়, গাড়িওয়ালাদের নয়, রিকশায় চড়া মানুষদেরও। রিকশার বিকল্প আগে দেখান তারপর না হয় রিকশাকে হাওয়ায় ভাসিয়ে দিন। রিকশারা হাওয়ায় ভেসে ভেসে গ্রামে চলে যাক। ফেসবুক থেকে

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত