প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রোহিঙ্গা শিবিরে কাটাতারের বেড়া নির্মাণে দাতাদের আপত্তি রয়েছে, বলেন সরকারি কর্মকর্তা

মোহাম্মদ মাসুদ : বাংলাদেশের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, কক্সবাজারে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের কেন্দ্র করে নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগের মুখে তাদের শিবিরগুলোকে ঘিরে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোসহ নজরদারি বড়ানোর পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে। বিবিসি বাংলা

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সচিব মোঃ শাহ কামাল বলেন, শিবিরগুলোতে রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন গ্রুপের কোন্দল নিরসনে তাদের সচেতন করার জন্য শিবিরগুলোতে স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে আমরা যে কাজটি করেছি, তাদের ক্যাম্পে তাদের মধ্যে অনেক অন্তদ্বন্দ আছে। সচেতনতামূলক কার্যক্রম নিয়ে তাদের মধ্যে যাতে এটা নিরসন করা যায়, সেই উদ্যোগ আমরা নিয়েছি। প্রতিটি ক্যাম্পে আমরা ১০০ করে স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করেছি। তারা শিবিরগুলোর রোহিঙ্গা নেতাদের নিয়ে বসে কোন্দল নিরসনে চেষ্টা চালাচ্ছে।

সরকারি কর্মকর্তারা আরও বলেছেন, ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা শরণার্থীর কারণে বাংলাদেশের নিরাপত্তা প্রশ্নে সজাগ থাকার বিষয় রয়েছে। একইসাথে রোহিঙ্গাদের সুরক্ষার বিষয় আছে, এই দু’টি বিষয় বিবেচনায় নিয়ে পরিস্থিতি সামাল দিতে হচ্ছে।

কর্মকর্তারা উল্লেখ করেছেন, রোহিঙ্গা শিবিরগুলোর চারদিকে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণ করার একটি প্রস্তাব নিয়েও আলোচনা রয়েছে। তবে এই প্রস্তাবে দাতাদের আপত্তি রয়েছে।শিবিরগুলোতে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নানান অপরাধে জড়িয়ে পড়া, মানব পাচারের চেষ্টা এবং শিবির থেকে পালিয়ে বাংলাদেশের অন্য এলাকায় ছড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টার বিষয়গুলো উদ্বেগজনক হারে বেড়েছে বলে কর্মকর্তারা উল্লেখ করেছেন।

কক্সবাজারের আন্তর্জাতিক সংস্থার একজন কর্মকর্তা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন, শিবিরগুলোতে অবৈধ অস্ত্রধারী এবং উগ্র কিছু সংগঠন তৎপরতা চালানোর চেষ্টা করে, এমন অভিযোগ তারা বিভিন্ন সময় পেয়ে থাকেন। এসব অভিযোগের প্রেক্ষাপটে শিবিরগুলোতে নজরদারি বাড়ানোর কথা বলছে স্থানীয় প্রশাসন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ