প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

adv 468x65

এফআর টাওয়ারের অবৈধ নির্মাণে জড়িত ছিলেন যেসব কর্মকর্তা!

আসাদুজ্জামান সম্রাট : বনানীর এফআর টাওয়ার নির্মাণে অনিয়ম ও দুর্নীতির সাথে জড়িত ৪১ কর্মকর্তাকে চিহ্নিত করা হয়েছে। গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিবের নেতৃত্বে গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট বুধবার প্রকাশ করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির রিপোর্টে এফ আর টাওয়ারের ১৮তলা বিশিষ্ট আবাসিক কাম বাণিজ্যিক ভবনের নকশা অনুমোদন বিধি লঙ্ঘন করে করা হয়েছে।

এ অনুমোদনের সাথে জড়িত কর্মকর্তা-কর্মচারিরা হলেন, রাজউকের সাবেক চেয়ারম্যান মো. হুমায়ুন খাদেম, সাবেক সদস্য ডিএম ব্যাপারী, সাবেক নগর পরিকল্পনাবিদ জাকির হোসেন, সাবেক প্রধান প্রকৌশলী মো. সাইদুর রহমান, সাবেক অথরাইডজ অফিসার-২ সৈয়দ মকবুল আহমেদ, সাবেক সহকারী পরিচালক মোহাম্মদ উল্লাহ ও লীজ গ্রহীতা সৈয়দ মো. হোসাইন ইমাম ফারুক।

কথিত ২৩তলা বিশিষ্ট নকশাটি বৈধতা দেয়ার জন্য বিভিন্ন রেজিস্টারে অবৈধ এন্ট্রি ও ইস্যু দেখিয়ে এবং ওই নকশার সাহায্যে বিভিন্ন ফ্লোর হস্তান্তরকরণ, বন্ধক অনুমতি প্রদান এবং ঋণগ্রহণের অনুমতি প্রদান ইত্যাদির সাথে জড়িত কর্মকর্তা/কর্মচারিরা হলেন সাবেক অথরাইজড অফিসার-২ সৈয়দ মকবুল আহমেদ, সাবেক অথরাইজড অফিসার-২ এটিএম কামরুজ্জামান খান, সাবেক অথরাইজড অফিসার-২ সৈয়দ নাজমুল হুদা, সাবেক সহকারী অথরাইজড অফিসার-২ মো. বদরুজ্জামান মিয়া, সাবেক সহকারী অথরাইজড অফিসার-২ বশির উদ্দিন খান, ইমারত পরিদর্শক ইমরুল কবির, ইমারত পরিদর্শক মো. শওকত আলী, উচ্চমান সহকারী মুহাম্মদ আব্দুর রহমান, সাময়িক বরখাস্ত উচ্চমান সহকারী মো. সফিউল্লাহ, তৎকালীন সময়ের অথরাইজড অফিসার-২ এর ইস্যু কাজের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মচারি, নিম্নমান সহকারী কাম মুদ্রাক্ষরিক মো. মজিবর রহমান মোল্ল্যা, তত্ত¡াবধায়ক জাহানারা বেগম, বিষয়ক পরিদর্শক মো. মেহেদুজ্জামান, সহকারী পরিচালক শাহ মো. সদরুল আলম, উপ-পরিচালক মো. সামশুল আলম, সদস্য (এস্টেট) মো.রাজউল করিম তরফদার, তত্ত্বাবধায়ক মোফাজ্জল হোসেন, সহকারী পরিচালক মো. এমদাদ আলী বিশ্বাস, উপ-পরিচালক মুহাম্মদ শওকত আলী, পরিচালক আব্দুল্লাহ আল বাকী, সদস্য আইম গোলাম কিবরিয়া, অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার মুদ্রাক্ষরিক মো. এনামুল হক, তৎকালীন ইমারত পরিদর্শক মো. নজরুল ইসলাম।

এফআর টাওয়ার ভবন নির্মাণে ত্রুটি ও ব্যত্যয় রয়েছে। যেসকল কর্মকর্তা/কর্মচারিদের মনিটরিংয়ের অভাব ও অবহেলার কারণে এই ত্রুটি ও ব্যত্যয় হয়েছে তারা হলেন, তৎকালীন গণপূর্ত অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রেষণে রাজউকের সাবেক অথরাইজড অফিসার-২ দেওয়ান মো. ইয়ামিন, সাবেক অথরাইজড অফিসার-২ সৈয়দ নাজমুল হুদা, সাবেক অথরাইজড অফিসার মো. শামসুর রহমান, সাবেক সহকারী অথরাইজড অফিসার-২ বশির উদ্দিন খান, অথরাইজড অফিসার মো. মাহাবুবুর রহমান সরকার, তৎকালীন ইমারত পরিদর্শক মো. আওরঙ্গজেব সিদ্দিকী ও মো. নজরুল ইসলাম।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত