প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

‘আমাদের শিক্ষাব্যবস্থা আজ আর আলোকিত, চিন্তাশীল, উদার এবং দার্শনিক দৃষ্টিসম্পন্ন মানুষদের জন্ম দিচ্ছে না : রাজীব সরকার

নাঈমা জাবীন : প্রাবন্ধিক ও গবেষক, বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের কলেজ কর্মসূচির প্রাক্তন সদস্য ও পাঠচক্র সমন্বয়কারী রাজীব সরকার বলেছেন, ‘বিচিত্র প্রবন্ধ’ বইয়ের অন্তর্ভুক্ত ‘লাইব্রেরি’ প্রবন্ধে রবীন্দ্রনাথ লিখেছেন- ‘মহাসমুদ্রের শত বছরের কল্লোল কেহ যদি এমন করিয়া বাঁধিয়া রাখিতে পারিত যে, সে ঘুমাইয়া পড়া শিশুটির মতো চুপ করিয়া থাকিত, তবে সেই নীরব মহাশব্দের সহিত এই লাইব্রেরির তুলনা হইত। এখানে ভাষা চুপ করিয়া আছে, প্রবাহ স্থির হইয়া আছে, মানবাত্মার অমর আলোক কালো অক্ষরের শৃঙ্খলে কাগজের কারাগারে বাঁধা পড়িয়া আছে। ইহারা সহসা যদি বিদ্রোহী হইয়া উঠে, নিস্তব্ধতা ভাঙিয়া ফেলে, অক্ষরের বেড়া দগ্ধ করিয়া একেবারে বাহির হইয়া আসে! হিমালয়ের মাথার ওপরে কঠিন বরফের মধ্যে যেমন কতো বন্যা বাঁধা আছে, তেমনি এই লাইব্রেরির মধ্যে মানব হৃদয়ের বন্যাকে বাঁধিয়া রাখিয়াছে!’ সূত্র: সমকাল
লাইব্রেরি তথা বই সম্পর্কে এমন তাৎপর্যপূর্ণ কথা বাংলা ভাষায় কী আর আছে? বই পাঠের মধ্য দিয়ে আলোকিত মানুষ গড়ার প্রত্যয় নিয়ে ৪০ বছর আগে যাত্রা শুরু করেছিলো বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র। ‘আলোকিত মানুষ’ কোনো বিমূর্ত ধারণা নয়। বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র প্রকাশিত প্রথম পরিচিতি পত্রিকায় আলোকিত মানুষের বৈশিষ্ট্য সম্পর্কে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে… ‘যারা সংস্কৃতিবান, রুচিশীল, সত্যান্বেষী, যারা জ্ঞানার্থী, সক্রিয়, সৃজনশীল, বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র তাদের পদপাতে, মানস বাণিজ্যে, বক্তৃতায়, বন্ধুতায়, উষ্ণতায় সচকিত একটি অঙ্গন।’ বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র গড়ে তোলার প্রয়োজন কেন হলো? স্বপ্নদ্রষ্টা প্রতিষ্ঠাতা অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ তার ‘বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র ও আমি’ বইয়ে হতাশা ব্যক্ত করে বলেছেন- ‘আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা আজ আর আলোকিত, চিন্তাশীল, উদার এবং দার্শনিক দৃষ্টিসম্পন্ন মানুষদের জন্ম দিচ্ছে না। আমাদের অধিকাংশ অভিভাবকই ছেলেমেয়েদের বাইরের বই পড়তে দিতে নারাজ। তাদের ধারণা, এতে তাদের পড়াশোনার ক্ষতি হয়। সন্তানদের উজ্জ্বল পেশাগত ভবিষ্যতের যে ছবি তারা চোখের সামনে দাঁড় করিয়ে রেখেছেন, এসব অপাঠ্য বইপত্র পড়াশোনার ফলে সেই ভবিষ্যৎ ধ্বংসের আশঙ্কায় তারা ছেলেমেয়েদের তার ধারেপাশে ভিড়তে দিতে নারাজ।’
এই বেদনাদায়ক চিত্র বর্তমান সময়ে অধিকতর প্রাসঙ্গিক। বৈষয়িক সিদ্ধি অর্জনই এখন লেখাপড়ার একমাত্র লক্ষ্য হয়ে দাঁড়িয়েছে। শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবক পাগলের মতো ধাবমান জিপিএ-৫ নামক সোনার হরিণের পেছনে। তাদের মধ্যে কেউ কেউ নৈতিকতাবর্জিত পদক্ষেপ নিতেও দ্বিধা করছেন না। যে কোনো প্রকারে পরীক্ষায় শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণের এই স্থূল প্রতিযোগিতার জাঁতাকলে পিষ্ট হয়ে ঝরে যাচ্ছে অগণিত শিক্ষার্থীর স্বপ্ন। সম্প্রতি রাজধানীর একটি স্বনামধন্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রী অরিত্রির আত্মহত্যা বিবেকবান মানুষকে ভীষণ নাড়া দিয়েছে। ঘরে-বাইরে এমন অরিত্রির সংখ্যা নগণ্য নয়। তাদের সবার খবর আমাদের দৃষ্টিগোচর হয় না। ভোগবাদী বিশ্বায়নের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়ায় শিক্ষা ব্যবস্থা আজ বাণিজ্যিকীকরণের শিকার।
নৈতিকতা, মূল্যবোধকে উপেক্ষা করে বৈষয়িক বুদ্ধিকেন্দ্রিক স্বার্থপর প্রজন্ম গড়ে তুলতেই অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান তৎপর। পরিণতিতে যন্ত্রের মতো বড় হচ্ছে শিক্ষার্থীরা। অভিভাবকদের গগনচুম্বী প্রত্যাশার চাপ, শিক্ষকদের যতেœর অভাব শিক্ষার্থীদের ভেতরে যথার্থ মনুষ্যত্বের বিকাশ ঘটতে দিচ্ছে না। এই গড্ডলিকা প্রবাহের বিপরীতে সংশপ্তক ব্রত পালন করে যাচ্ছে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র। দেশের বিভিন্ন অঙ্গনে উচ্চায়ত মূল্যবোধসম্পন্ন, আলোকিত, উদার ও শক্তিমান মানুষের নেতৃত্ব জাতিকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। এ ধরনের নেতৃত্ব তৈরিতে কার্যকর ভূমিকা রাখছে এ প্রতিষ্ঠানটি। বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠালগ্নে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের বাংলা ও বিশ্বসাহিত্যের শ্রেষ্ঠ বইগুলো পড়ানোর কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়। সেইসঙ্গে যুক্ত হয় সাংস্কৃতিক কর্মসূচি।
এভাবে বই পড়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের বুদ্ধিবৃত্তিক বিকাশ ও সাংস্কৃতিক কর্মযজ্ঞের মধ্য দিয়ে হৃদয়বৃত্তির বিকাশ ঘটেছে। জেলা ছাড়িয়ে পাঠাভ্যাস উন্নয়ন কার্যক্রম ছড়িয়ে পড়েছে দেশের ২৫০টি উপজেলায়। প্রতি বছর এ কার্যক্রমের সদস্য সংখ্যা ২২ লাখ। প্রতি বছর বর্ণিল ও উৎসবমুখর পরিবেশে লাখ লাখ শিক্ষার্থী মূল্যবান বই পুরস্কার হিসেবে গ্রহণ করে। এটি এক অপূর্ব দৃশ্য। বই পড়ার সুবিধাকে সারাদেশে সহজলভ্য করার লক্ষ্যে প্রতিটি জেলায় ভ্রাম্যমাণ লাইব্রেরি চালুর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ উদ্যোগ সম্পূর্ণভাবে বাস্তবায়িত হলে দেশের সব জেলা-উপজেলা, ইউনিয়ন ও বর্ধিষ্ণু গ্রামগুলোতে বই পড়ার সুবিধা পৌঁছে যাবে। শুধু ধ্রুপদী বই নয়, বিশ্বের শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র ও সঙ্গীতের রস আস্বাদনের জন্য অত্যন্ত সমৃদ্ধ সংগ্রহশালা তৈরি হয়েছে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত