প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

টাকা থাকলেই সব হয় না, টের পাচ্ছেন ‘টাইটানিক’ হিরো

মুসফিরাহ হাবীব: টাকা-পয়সা থাকলে গোটা দুনিয়াটাকেই হাতের মুঠোয় নেওয়া যায়- এমনই ধারণা ধনীদের। তাই তাদের থাকে অদ্ভুত বিলাসবহুল কিছু পছন্দ যা তারা প্রচুর খরচ করে হলেও হাসিল করতে চায়। সাধারণ মানুষেরা যেটা কখনো পাওয়ার কল্পনাই করতে পারবে না।

এরকমই এক অদ্ভুত পছন্দের জিনিস কিনতে গিয়েই এবার `পয়সা থাকলেই যে সব পাওয়া যায় না’- তা হাড়ে হাড়ে টের পাচ্ছেন বিখ্যাত ‘টাইটানিক’ ছবির জনপ্রিয় নায়ক লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও।

ভারতীয় একটি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডাইনোসরের ফসিল কিনতে চেয়ে রীতিমত ঝামেলায় পড়েছেন এ কোটিপতি হলিউড তারকা। তার ওপর ক্ষুব্ধ হয়েছেন বিজ্ঞানীরা।

সম্প্রতি ডিক্যাপ্রিও ১৫ কোটি বছরের পুরনো অ্যালোসরাস কঙ্কাল কিনতে চেয়েছিলেন। একসঙ্গে ডাইনোসার মা ও শিশুর কঙ্কাল এটি। প্রত্নতাত্ত্বিক ও বৈজ্ঞানিক দিকে যা খুবই গুরুত্ববাহী। আর সেদিকটি মাথায় রেখেই বিজ্ঞানীরা প্রশ্ন তুলেছেন, শুধুমাত্র পয়সা থাকলেই কি ডাইনোসরের কঙ্কাল কেনা যায়?

হলিউড তারকাদের পয়সার অভাব নেই বলে ডাইনোসরের ফসিলের মতো দুষ্প্রাপ্য আর বৈজ্ঞানিক প্রয়োজনে সংরক্ষণযোগ্য জিনিসকে ব্যক্তিগত সংগ্রহে রাখা কতটা নৈতিক? সে প্রশ্নই তুলছেন বিজ্ঞানীরা।

ডাইনোসরের কঙ্কালের প্রতি বিশেষ টান রয়েছে লিওনার্দোর। ২০০৭ সালে তিনি এক নিলাম থেকে ৬ কোটি বছরের পুরনো টিরানোসরাসের খুলির ফসিল কিনেছিলেন। পরে জানা যায়, এই খুলিটি ছিল চোরাই।

ডিক্যাপ্রিও’র মতো এমন ধনী মানুষদের কারণে বিশ্বজুড়ে ফসিলের চোরাই ব্যবসা বাড়ছে বলে দাবি অনেকেরই।

ডিক্যাপ্রিও যা করেছেন, তাতে ফসিল সংরক্ষণের কাজে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে প্রতিবাদ জানিয়ে বলা হয়েছে, “ডাইনোসর বা প্রাগৈতিহাসিক প্রাণীর ফসিল কারো ব্যক্তিগত সম্পত্তি হতে পারে না। ফসিল উদ্ধার করতে বিপুল শ্রম লাগে। সে কারণে এর মূল্য নিলামে নির্ধারিত হতে পারে না।”

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত