শিরোনাম
◈ আমি আওয়ামী লীগে ছিলাম, আছি ও থাকব: সোহেল তাজ ◈ রুশ তেল পরিশোধনের পর যুক্তরাষ্ট্রে রফতানি করছে ভারত, ক্ষুব্ধ যুক্তরাষ্ট্র ◈ মুক্তিযুদ্ধের পরাজিত অপশক্তির ষড়যন্ত্র থেমে থাকেনি: জয় ◈ চকবাজারে পলিথিন কারখানায় আগুন নিয়ন্ত্রণে ◈ টুঙ্গিপাড়ায় বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা ◈ মডার্না-অ্যাস্ট্রাজেনেকা গ্রহীতারা দ্বিতীয় ডোজে পাবেন ফাইজার ◈ শ্বাসরোধ করেই সেই শিক্ষিকার মৃত্যু ◈ বাংলাদেশকে নিয়ে দেশে-বিদেশে ষড়যন্ত্র চলছে : পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রধান সুবিধাভোগী জিয়া: তথ্যমন্ত্রী ◈ জাতির পিতার স্বপ্ন পূরণ করছেন শেখ হাসিনা: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত : ২৬ জুন, ২০২২, ০৯:৪৫ সকাল
আপডেট : ২৬ জুন, ২০২২, ১২:১৬ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

সৌদিতে বিষাক্ত গ্যাসে দুই বাংলাদেশির মৃত্যু

জাকির হোসেন ও আবু বকর

আব্দুল্লাহ আল মামুন, সৌদি আরব: সৌদিতে প্লাম্বারের কাজ করতে গিয়ে দুই বাংলাদেশি রেমিটেন্স যোদ্ধার মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। নিহতদের নাম জাকির হোসেন ও আবু বকর।

নিহত দুই বাংলদেশি দীর্ঘদিন সৌদি আরবে প্লাম্বারের কাজ করতেন। গত ২৩ জুন দুপুর ৩টার দিকে কর্মস্থলে দু’জন কয়েক সেকেণ্ডের ব্যবধানে একই স্থানে কাজ করা অবস্থায় মারা যান।

সূত্র হতে জানা যায়, একজন সৌদির একটি ভবনের ভূগর্ভস্থ একটি কূপের মত ছোট্ট একটি রুম পরিস্কারের কাজ নেন কন্ট্রাক্ট নেন তারা। সৌদি আরবের ভাষাতে উক্ত কাজটিকে বলা হয় গোরফা তাফতিশ। ৩জন মিলে উক্ত কাজে যোগদান করেন তারা। এসিড ঢেলে পরিস্কার করার সময়, প্রথমে এক গ্যালন এসিড ঢালেন আবদুল কাদের নামের তৃতীয়জন ব্যক্তি। এসিড ঢালার পর তার দম বন্ধ হয়ে আসতে শুরু করলে তিনি দ্রুত বেরিয়ে আসেন ওই রুম থেকে। এরপর বাকিদেরও বের হয়ে যেতে বলেন। তারপর আবদুল কাদের বলেন আপাতত আমরা কাজ বন্ধ রাখি, যেহেতু সমস্যা হচ্ছে। পরে এসে কাজটা সম্পন্ন করব। কিন্তু জাকির হোসেন জানায়, এটা বড় সমস্যা নয়। যেহেতু কাজ করতেই হবে কাজটা দ্রুত সম্পন্ন করেই চলে যাববো।

পরবর্তীতে এর কিছুক্ষণ পর জাকির হোসেন অবশিষ্ট গ্যালনে এসিড ঢালতে সেখানে যায়। কিন্তু এসিড ঢালতে নামার সাথে সাথে শ্বাসরোধ হয়ে মাটিতে ঢলে পড়েন। এসময় জাকিরকে বাঁচাতে গিয়ে আবু বকর নামের অপর বাংলাদেশি  মৃত্যুমুখে পতিত হয়। এভাবেই মাত্র কয়েক সেকেন্ডের ব্যবধানে দুই বাংলাদেশি রেমিটেন্স যোদ্ধার মর্মান্তিক মৃত্যু হয়।

কাজ করার সময় তারা কোন ধরণের নিরাপত্তা ব্যবস্থা  মুখে কাপড় কিংবা মাস্কও ব্যবহার করেনি। এমনকি শুরুতে সমস্যা দেখলেও তবুও পুনরায় আবার কক্ষে প্রবেশ করে।  যার ফলে এমন দুর্ঘটনা হয়েছে বলে জানান বিশেষজ্ঞরা।

এসব ভূগর্ভস্থ ছোট কক্ষে অনেক সময় দীর্ঘদিনের বিভিন্ন গ্যাস জমা থাকে। যা মানবদেহে প্রবেশ করলে মৃত্যু হতে পারে। তাই এসব কাজ করার আগে প্রবাসী কর্মীদের আরো সতর্কতা অবলম্বনের জন্য আহ্বান জানিয়েছেন অভিজ্ঞরা। 

নিহত জাকির হোসেন দীর্ঘ ১৫ বছর যাবৎ সৌদি আরবে রয়েছেন। তার বাড়ি কুমিল্লা জেলার বড়ুয়া উপজেলায়। ডাকঘর ডিমডুল এবং গ্রামের নাম আড়ই। তার পিতার নাম মোহাম্মদ আলী। ৩৭ বছর বয়েসি জাকির হোসেন ব্যক্তিজীবনে ৯ বছরের এক কন্যা সন্তানের জনক। অপর নিহত প্রবাসী আবু বকরের বিস্তারিত তথ্য এখনোও জানা যায়নি। সম্পাদনা: হ্যাপি

  • সর্বশেষ