শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৬ আগস্ট, ২০২২, ০১:৪৩ দুপুর
আপডেট : ০৬ আগস্ট, ২০২২, ০৩:৫০ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ

জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি ‘মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা’

জ্বালানি তেল

মাজহারুল ইসলাম: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ বলেছেন, বর্তমানে নিত্যপ্রয়োজনীয় সব ধরনের জিনিস পথের দাম বৃদ্ধি। এরমধ্যে এখন জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধির হচ্ছে ‘মড়ার ওপর খাঁড়ার ঘা’। এর ফলে আরো এক দফায় সব ধরনের জিনিস পত্রের দাম বৃদ্ধি পাবে। ঢাকা পোস্ট

বিএনপির এই নেতা বলেন, আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের সরকার নয়। এ কারণে জনগণের প্রতি তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই। তাই জনগণের কথা চিন্তা না করে জ্বালানি তেলের দাম একলাফে ৫০ শতাংশের বেশি মূল্যবৃদ্ধি করেছে তারা।

খন্দকার মোশাররফ আরো বলেন, আসলে জ্বালানি তেলের ওপর সরকার সে লসের কথা বলছে, সেটা একটা মিথ্যা তথ্য। মূলত সরকার রির্জাভের অভাবে আমদানি করতে পারছে না। যার ফলে জ্বালানি নির্ভর বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো বন্ধ করে দিতে হয়েছে। এখন একই কারণে জ্বালানি তেলের দাম বাড়িয়ে দিয়েছে। যাতে মানুষ কষ্ট করে হলেও যেন কম জ্বলানি ব্যবহার করে।  

আওয়ামী লীগ সরকার জনগণের ভোটে নির্বাচিত নয় বলে উল্লেখ করে মোশাররফ বলেন, এই কারণে জনগণের প্রতি তাদের কোনো দায়বদ্ধতা নেই। যখন যা খুশি তাই করছে। এতোদিন যে দেশে আওয়ামী স্টাইলে অর্থনীতি চালিয়ে গেছে, তার ফল পাচ্ছে দেশের জনগণ।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহজাহান বলেন, এক লাফে এতো টাকা দাম বৃদ্ধিতে প্রমাণ হয় দেশের অর্থনীতি এবং সরকারের কোষাগারের অবস্থা খুবই খারাপ। কারণ আমরা দেখেছি ২-৪ টাকা বা ৫-১০ টাকা বৃদ্ধি পেতে। কিন্তু একবারে ৪৬ টাকা বৃদ্ধি পাওয়ার ইতিহাস নেই। পৃথিবীর ইতিহাসে কোন দেশে কখনও জ্বালানি তেলের দাম এতো বৃদ্ধি পায়নি। বাংলাদেশ এখানে বিরল। আসলে জনগণের প্রতি এ সরকারের যে দায়বদ্ধতা নেই, তারা যে জনগণের মতামতকে গুরত্ব দেয় না এটাই তার প্রমাণ। এ সরকার মনে করে, তারা যা খুশি করতে পারে, যত খুশি তত দাম বাড়াতে পারে, জনগণ তাদের কিছুই করতে পারবে না। তারা প্রশাসন দিয়ে সব কিছু দমন করে রেখেছে। জনবিচ্ছিন্ন সরকারই একমাত্র এ ধরনের সিদ্ধান্ত নিতে পারে।

জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানোর ফলে মানুষের জীবন-যাত্রার ব্যয় আরও বৃদ্ধি পাবে উল্লেখ বিএনপির এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, এতে করে দেশে দারিদ্য মানুষের হার বাড়বে। 

বিএনপির স্থায়ী কমিটির একটি সূত্র জানান, জ্বলানি ও বিদ্যুৎ খাতের অব্যবস্থাপনার প্রতিবাদে সারাদেশে বিএনপির কর্মসূচি পালন করেছে কয়েকদিন আগে। আর এ কর্মসূচি পালন করতে গিয়ে ভোলায় গুলিবিদ্ধ হয়ে বিএনপির দুই নেতার মৃত্যু হয়েছে। সেই হত্যার প্রতিবাদে ৮ আগস্ট পর্যন্ত বিএনপির কর্মসূচি চলবে। এরপরই আবার জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে। তার আগে সংবাদ সম্মেলনে করে এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক প্রতিক্রিয়া দিতে পারে বিএনপি।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়