শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৬ জানুয়ারী, ২০২৩, ০১:২৯ রাত
আপডেট : ২৬ জানুয়ারী, ২০২৩, ০১:২৯ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

হুমকির মুখে একুশে বইমেলা?

কুলদা রায়

কুলদা রায়: হুমকির মুখে একুশে বইমেলা। বইমেলাটি ছিনতাই করে নিতে চাইছে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়। বাংলা একাডেমি বিধিবদ্ধ একটি স্বায়ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠান। এখানে মন্ত্রণালয়ের কোনো খবরদারি বা হস্তক্ষেপ অতীতে হয়নি। এরশাদ সরকারও একাডেমির অভ্যন্তরীণ বিষয়ে কখনো হস্তক্ষেপ করেনি। কিন্তু এখন হচ্ছে। একুশে বইমেলা আয়েজন করে থাকে বাংলা একাডেমি। এটা বইমেলার ঐতিহ্য। কিন্তু এখন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় চাচ্ছে আয়োজক হতে। একাডেমির সমস্ত আমন্ত্রণপত্রে এবং ব্যানারে মন্ত্রণালয়ের নাম যেতে হবে, মেলা পরিদর্শনে এসে এমন নির্দেশ দিয়েছেন মন্ত্রণালয়ের সচিব মো. আবুল মনসুর। তিনি বাংলা একাডেমির উর্ধতন কর্মকর্তাদের বলেন, ‘কীসের স্বায়ত্বশাসন! আপনারা সবাই মন্ত্রণালয়ের অধীন। আপনারা যদি শের হন, মন্ত্রণালয় সোয়াশের’।

তার এই অসৌজন্যমূলক আচরণে স্তম্ভিত হয়ে পড়েন বাংলা একাডেমির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাগণ। একপর্যায়ে তিনি ভুল ইংরেজিতে একজন কর্মকর্তাকে গালাগালও করেন। তার এই অস্বাভাবিক আচরণে বাংলা একাডেমির কর্মকর্তাদের মধ্যে প্রচণ্ড হতাশা ও ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। অথচ তারা রাতদিন কাজ করে বইমেলার কাজকে গুছিয়ে এনেছেন। সচিব আরও বলেছেন, একুশে বইমেলার আয়োজক হিসেবে সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়কেও রাখতে হবে। সমস্ত কার্ড ও ব্যানারে মন্ত্রণালয়ের নাম যেতে হবে। ইতোধ্যে বাংলা একাডেমি সব আমন্ত্রণপত্র ও ব্যানার ছেপে ফেলেছে। কিন্তু সচিবের মৌখিক নির্দেশ, সমস্ত আমন্ত্রণপত্র ও ব্যানার বাতিল করতে হবে। 

কার্যত এই ধরনের হস্তক্ষেপ সচিব বা সংস্কৃতি মন্ত্রণালয় করতে পারে না বিধিমোতাবেক। শেখ হাসিনা সরকার ক্ষমতায় আসার পর বাংলা একাডেমি আইন পাস হয়। এই আইন অনুযায়ী এই ধরনের হস্তক্ষেপ সম্পূর্ণ অবৈধ। সচিবের এই হস্তক্ষেপের কারণে হুমকির মুখে পড়ে গেছে একুশে বইমেলা। 
সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের আমলা/সচিব বাংলা একাডেমির বইমেলাকে ছিনতাই করার মতো এতো দুঃসাহস কোথা থেকে পাচ্ছেন? একে অবিলম্বে রুখে দাঁড়ানো দরকার। ফেসবুক থেকে 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়