শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৩ জুন, ২০২২, ০১:১১ রাত
আপডেট : ২৩ জুন, ২০২২, ০১:১১ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

গতানুগতিক প্রেস ব্রিফিং এবং রাজনীতির নামে মিথ্যাচার

মোহাম্মদ এ আরাফাত

মোহাম্মদ এ আরাফাত: স্মরণকালের ভয়াবহ বন্যায় ভাসছে সিলেট, সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনা। লাগাতার অতিবৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে তলিয়ে গেছে জেলাগুলোর বেশিরভাগ এলাকা। আকস্মিক বন্যায় চরম দুর্ভোগে পড়েছে সাধারণ মানুষ। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশে ইতিমধ্যে ত্রাণ বিতরণ ও উদ্ধার তৎপরতা পরিচালনা করছে সেনাবাহিনী, নৌবাহিনী, পুলিশ, বিজিবিসহ বিভিন্ন সংস্থা। সরকারি কোষাগার থেকে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে পর্যাপ্ত পরিমাণ ত্রাণ সামগ্রী ও অর্থ সহায়তা, যা ধাপে ধাপে বাড়ানো হবে। 

বন্যার্তদের অবস্থা স্বচক্ষে দেখতে ইতোমধ্যেই দুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। দিয়েছেন প্রয়োজনীয় দিকনির্দেশনা। বন্যা দুর্গতদের যাতে ত্রাণ ও প্রয়োজনীয় সামগ্রীর ঘাটতি না হয়, সেজন্য স্থানীয় প্রশাসনের তদারকি বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন। সরকারের সংস্থাগুলো ছাড়াও আওয়ামী লীগের সকল অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠন, বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থা, এনজিও, ব্যক্তিগত উদ্যোগে যে যার মতো বানভাসি মানুষের পাশে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দাঁড়িয়েছেন। এমন মানবিক সংকটে মানবতার ডাকে সাড়া দিয়েছেন সকল বিবেকবান মানুষ। 

কিন্তু একটি বিশেষ মহল আছে গতানুগতিক প্রেস ব্রিফিং এবং রাজনীতির নামে মিথ্যাচার ও নোংরামি নিয়ে। তাদের অন্ধ-সমর্থকেরা তাদের সাথে সুর মিলিয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে একের পর এক গুজব ও মিথ্যা তথ্য ছড়িয়ে মানুষকে করছে বিভ্রান্ত। এদের মানসিকতা এতটাই নিম্নমানের যে তারা সবকিছু নিয়েই বিষাক্ত মন্তব্য করে! জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী উদযাপন এবং পদ্মা সেতুর উদ্বোধন নিয়ে তাদের মনের ভিতরের বিষ উগলে দিচ্ছে। সিলেটের বন্যা নিয়ে সরকারের সমালোচনার সাথে সাথে আশ্চর্যের বিষয় সবকিছুর পরে মনে হচ্ছে -পদ্মা সেতুর উপর ভীষণ ক্রোধ প্রকাশটা উপচে পড়ছে।

বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কুযুক্তির মাধ্যমে বিশেষ করে সোশ্যাল মিডিয়াতে তারা বিভিন্ন বিকৃত তুলনা হাজির করছে এবং বিষাক্ত অপপ্রচার করছে। অথচ, রাষ্ট্রীয় কোন অনুষ্ঠানের জন্য কি দুর্যোগের সময় কোনো কিছু থেমে থাকে বা ঘাটতি হয়? হয় না। এরা যদি কোনো সৎ উদ্দেশ্য নিয়ে এসব প্রশ্ন তুলতো তাহলে অন্য কথা ছিলো। কিন্তু এরা যেসব তুলনা দেয় তাতে এদের উদ্দেশ্য পরিষ্কার বোঝা যায়। এদের উদ্দেশ্যই হলো মিথ্যাচার ও নোংরামি।  

এসব নোংরা মানসিকতার নেতা ও কর্মী-সমর্থকদের বিভিন্ন নিউজ পোর্টালের নিচে কমেন্টস দেখলেই বুঝা যায় এরা কারা? কী এদের উদ্দেশ্য? যাদের নেত্রীর যথেষ্ট পড়াশোনা নেই (ক্লাস এইট পাস), যাদের নেতা মিস্টার ১০ পার্সেন্ট নামে পরিচিত, যারা নিজামী-সাঈদীর মতো রাজাকারের অনুসারী তাদের কাছ থেকে আসলে ভাল কিছু আশা করা যায় না। এদের যে নিম্নমান তারা সেই মানেরই কমেন্ট করে। লেখক: চেয়ারম্যান, সুচিন্তা ফাউন্ডেশন

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়