শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৭ মে, ২০২২, ০২:১২ রাত
আপডেট : ২৭ মে, ২০২২, ০২:১২ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে আপনি কোথাও নিরাপদ নন!

রাতিন রহমান

রাতিন রহমান: যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাস অঙ্গরাজ্যের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বন্দুকধারীর গুলিতে ১৯ শিক্ষার্থীসহ ২১ জন নিহত হয়েছে। মৃতের সংখ্যা এখনো বাড়তে পারে। সিএনএনের খবরে বলা হয়েছে, অঙ্গরাজ্যের ডিপার্টমেন্ট ফর পাবলিক সেফটি এ তথ্য জানিয়েছে, গত মঙ্গলবার আনুমানিক ১৮ বছর বয়সী তরুণ সালভাদর রামোস স্কুলে ঢুকে নির্বিচারে গুলি চালায়, পরবর্তী সময়ে পুলিশের গুলিতে সে নিহত হয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে। সাউথ টেক্সাসের উভালদে শহরের যে স্কুলে হামলা চালানো হয়েছে, সেটির নাম রব এলিমেন্টারি স্কুল। এর আগে অঙ্গরাজ্যের গভর্নর গ্রেগ অ্যাবোট জানিয়েছিলেন, গুলিতে ১ শিক্ষক ও ১৪ শিক্ষার্থী নিহত হয়েছে। খোঁজ নিয়ে যতোটুকু জানলাম, ছেলেটা ওই স্কুলের পুরোনো ছাত্র। কী কারণ সেটা এখনো নিশ্চিতভাবে জানা না গেলেও মেন্টাল হেলথ রিলেটেড কোনো ইস্যু থাকার সম্ভবনা আছে।

২০২২ সালের এখন পর্যন্ত ৫ মাসে কমপক্ষে ২০০+ ম্যাস শ্যুটিংয়ের ঘটনা ঘটেছে, যাতে মারা গেছে অগণিত নিরীহ মানুষ। ১০ দিন আগে যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের বাফেলোর একটি সুপারমার্কেটে গুলি চালানো হয়। এতে ১০ জন নিহত হয়। ওই সময় যিনি গুলি চালিয়েছিলেন, তাঁর বয়সও ছিল ১৮ বছর। পুলিশ ধারণা করছে, সেটি ছিল বিদ্বেষপ্রসূত অপরাধ।
ধারণা করা হয় যুক্তরাষ্ট্রের ৩২০ মিলিয়ন মানুষের জন্য এভেইলেবল অস্ত্রের সংখ্যা কমপক্ষে ৩৫০ মিলিয়নেরও বেশি। যেখানে সেখানে যে কেউ চাইলে অস্ত্র কিনতে পারে, কোনো বাধানিষেধ নাই, মেন্টাল বা ক্রিমিনাল রেকর্ড আছে কিনা আগের সেটা চেক করার বিন্দুমাত্র বালাই নাই। আপনি আক্রান্ত হতে পারেন, আপনার নিজেকে রক্ষার অধিকার আছে, সুতরাং আপনি অত্যাধুনিক অস্ত্র যেকোনো জায়গা থেকে খুবই কম দামে অবলীলায় কিনতে পারবেন, প্রকাশ্যে বহন করতে পারবেন, যখন তখন যে কারোর উপর ব্যবহার করতে পারবেন।  অর্থাৎ, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পৃথিবীর সবচেয়ে ডেকোরেটেড সভ্য সুশৃঙ্খল নিরাপদ হিসেবে দাবি করা দেশের যেকোনো স্থানে আপনি যেকোনো মুহূর্তে যেকোনো অস্ত্রধারীর গুলিতে নিহত হতে পারেন, সেটা মানসিক সমস্যায় আক্রান্ত একজন বন্দুকধারীর হাতে শপিংমলে হতে পারে, সুপারমার্কেটে হতে পারে, দুই পক্ষের গোলাগুলিতে প্রকাশ্যে রাজপথে হতে পারে, এমনকি নিজের বাড়িতে হঠাৎ মেজাজ হারানো বা কোনো কারণে মেন্টালি আনস্টেবল আপনার পরিবারের আপনজনের হাতেও হতে পারে। অর্থাৎ, আপনি যুক্তরাষ্ট্রের মাটিতে কোথাও নিরাপদ না, আপনার আপনজন কোথাও নিরাপদ না, এমনকি আপনার প্রাণপ্রিয় সন্তান যাকে স্কুলে নামিয়ে দিয়ে আসলেন, সে স্কুলের মতো জায়গাতেও নিরাপদ না। কিছুক্ষণ পরেই হয়তো খবর পেলেন তাকে নির্মমভাবে গুলি করে মেরেছে কেউ, আপনার রেখে আসা তরতাজা সন্তানের লাশ আনতে যেতে হবে আপনাকে!

একটা রাষ্ট্র যে তার নাগরিকদের জীবনের ন্যূনতম নিরাপত্তা দিতে পারে না দেশের এক ইঞ্চি মাটিতেও, সেই রাষ্ট্র সারা দুনিয়া জুড়ে সভ্যতা-সুশাসন আর গণতন্ত্রের সবক দিয়ে বেড়ায়, নোংরা নাক গলিয়ে মোড়লগিরি করে বেড়ায় নিরাপত্তা ইস্যুতে, সেই রাষ্ট্রের বেঁধে দেয়া নিয়ম অনুযায়ী না চললে দুনিয়ার অন্য সব রাষ্ট্রকে অনিরাপদ ঘোষণা করে অবরোধ-স্যাংশন দিয়ে বেড়ায়। ষাঁড়ের শিটহোলে পরিণত হওয়া সার্কাস ক্লাউন রাষ্ট্রটার নাম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, আমাদের আধুনিক সভ্যতার সকল ন্যায়-নীতির ধারকবাহক ঈশ^র। ইউনাইটেড স্টেটস অফ আমেরিকা একটা অসভ্য দেশ। সভ্য দেশে বছরে নয় হাজার মানুষ/স্কুলের বাচ্চা গান ভায়োলেন্সে মারা যায়না, যাওয়ার কথা না।  একটা বাচ্চাকে স্কুলে নামায় দিয়ে আসলা, সে আর ফিরলো না। বাপ-মাকে গিয়ে সন্তানের ঠান্ডা লাশটা বুঝে নিয়ে আসতে হইল, ফালায়ে আসতে হইল কবরে। কারন তাদের বন্দুকের হবি আছে, নিজেকে নিরাপদ রাখার হাস্যকর অজুহাতে যখন তখন যার তার অত্যাধুনিক যে কোন অস্ত্র ব্যবহারের অবাধ স্বাধীনতা আছে।

সুতরাং, তারা যাকে তাকে মারতে পারে, কেউ কিচ্ছু বলবে না, সেলফ ডিফেন্সের বা মানসিক অসুস্থতার যুক্তি দেখায়ে খুনী বেঁচে যেতে পারবে অবলীলায়। মাঝখান দিয়ে বাচ্চারা খুন হয়, ৬-৯ বছর বয়সী ১৯টা বাচ্চা, তাদের পরিবার। ১৯টা পরিবার খুন হয়েছে কাল...। বাংলাদেশের উচিত আমেরিকার রাষ্ট্রদূতকে ডেকে আমেরিকার আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে কড়া ভাষায় বাংলাদেশের উদ্বেগ প্রকাশ করা। কারণ আমেরিকায় প্রচুর বাংলাদেশী বাস করেন। তাদের শিশু বাচ্চারা স্কুলে পড়ে, যাদের জীবনের নিরাপত্তা দিতে আমেরিকা ব্যর্থ হয়েছে। তারা আজকে স্কুল যাচ্ছে, কিন্তু জীবিত ফিরবে না তাদের লাশ ফিরবে কেউ জানে না। আর টকশো-পত্রিকার কলাম আর ৫ জনের বিশাল সমাবেশে সারাক্ষণ আমেরিকাসহ অবাধ অস্ত্রের ব্যবহার থাকা উন্নত দেশগুলোর সাথে বাংলাদেশের তুলনা দিয়ে বাংলাদেশের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি দিন দিন অবনতি হচ্ছে, এই মৃত্যু উপত্যাকা আমার দেশ না টাইপের তীব্র বিপ্লবী বয়ান দিয়ে বেড়ানো সভ্য সুশীল শান্তিবাদী দালালগুলোর উচিত প্রতিদিন সকালবেলা ঘুম থেকে উঠে খালি পেটে তরকারীর চামচের এক চামচ কাঁচা গু খাওয়া। আশা করি এতে আমেরিকার মত চরম অনিরাপদ অসভ্য নিরিহ দুর্ভাগাদের বধ্যভূমির সাথে বাংলাদেশের তুলনা দেবার ফাজলামী করার আগে তারা দুবার ভাববে। ফেসবুক থেকে 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়