শিরোনাম

প্রকাশিত : ২১ মে, ২০২২, ০৬:২৫ সকাল
আপডেট : ২১ মে, ২০২২, ১০:৩৬ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বাংলাদেশের মানুষজন কবেইবা কোন  বিষয়টাকে পজিটিভলি দেখেছে?

জহিরুল আলম সিদ্দিক

জহিরুল আলম সিদ্দিক: বাংলাদেশের মানুষজন কবেইবা কোন বিষয়টাকে পজিটিভলি দেখেছে? সাবমেরিন কিনলে তাদের সমস্যা, গরীব দেশে সাবমেরিন দিয়ে কি করবে? স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করলেও সমস্যা, খাইতে পারেনা আবার স্যাটেলাইট? মেট্রোরেল করলেও সমস্যা, রিক্সার শহরে আবার মেট্রোরেল? ঐতিহ্য ধ্বংস হয়ে যাবে, ঢাবির ভাষ্কর্যের চেতনা নাশ হয়ে যাবে।

পদ্মা সেতুর শুরু থেকে আজ-অব্দি কেবল একটা পক্ষেরই সমস্যা, এত টাকা দিয়ে সেতু বানিয়ে কি লাভ? তেল দিয়ে মাছ ভেজে খাওয়া যায় না আবার এত টাকার সেতু? কবে কখন কোন বিষয়ে দেশের মানুষ ধর্মবর্ণ, জাতী, দলমত নির্বিশেষে এক হয়েছে বলেন তো? কয়লা বিদ্যুৎকেন্দ্র বানাতে গেলেও সমস্যা, পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র বানাতে গেলে সমস্যা, নতুন বিমানবন্দর বানাতে গেলে সমস্যা। এমনকি বাংলাদেশ তৈরির সময়েও বিরোধিতা ছিল, সমস্যা ছিল, এখনও পর্যন্ত আছে। তারা বলে- পাকিস্তান থেকে ভাগ হয়ে কী লাভ হয়েছে?

আজ বিশ্বের ১৪০ দেশের (Concern Countries of One Belt One Road) গবেষক, প্রফেসর, পরামর্শ, বিশেষজ্ঞ, বিনিয়োগকারী, কোম্পানির সিইওদের নিয়ে পাঁচ ঘন্টার একটা সেমিনার দেখলাম। যেকজন ব্যক্তি বাংলাদেশকে নিয়ে কথা বলেছেন, তাঁদের কেউই বাংলাদেশকে নিয়ে নেগেটিভ কিছু বলেননি। অথচ তারা ভিনদেশী মানুষ। তারা বাংলাদেশি লোক হলে কেউ না কেউ নির্গাত বলে বসতো যে, তারা ঘুষ খেয়ে হয়তো সরকারকে তেল দিচ্ছে।

পদ্মাসেতুর পরামর্শক দলের এক গবেষক বললেন- সেতুটি আরও আট দশটা সেতুর মতো ছিলো না, কারণ এই নদী সম্পর্কে তাদের পূর্বে কোনো ধারণাই ছিলো না। আর আমাদের কতিপয় ফেইসবুক বুদ্ধিজীবীরা এই সেতুর সঙ্গে অমুক তমুক সেতুকে মিলিয়ে পারলে কালকেই কাজ বন্ধ করে দেয়। পদ্মাসেতু নিয়ে ভাগাভাগি হওয়া দেশের মানুষের চিন্তা অনেকটা এমন যেনো এই সেতু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কিংবা তাঁর পরিবারের জন্যে বানানো হয়েছে। আবার কেউ তো বলছে এই সেতু এত টাকায় হলো কেনো?

ত্যানা পেছানোর জন্য তারা বিশ্বের নানান দেশের সেতুর সঙ্গে তুলনা করছে। আচ্ছা ভাই, ভারত যবেই পেঁয়াজ দিবেনা বলে ঘোষণা দেয়, পরদিনই সেখানে বাঙালি মুমিনরা পেঁয়াজের দাম ডাবল করে দেয়, সেদেশে আপনি কীভাবে কমদামে সবকিছু পেতে চান বলেন তো? বর্তমান সরকারের সকল নীতি যে আদর্শিক ও সঠিক তা তো নয়, কিন্তু বর্তমান সরকারের অর্জন যে কম তাও তো নয়। যুক্তিগতভাবে সমালোচনা করতে না পারলে চুপ থাকেন আল্লাহ ওয়াস্তে। কিংবা প্রশংসা করতে না পারলেও চুপ থাকেন। সোশ্যাল মিডিয়াটাকে আবর্জনা বানানোর কি দরকার? লজিক ছাড়া কথাবার্তা আবর্জনার মতো লাগে! ফেসবুক থেকে

  • সর্বশেষ