শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৭ আগস্ট, ২০২২, ০২:০৫ রাত
আপডেট : ০৭ আগস্ট, ২০২২, ০২:০৫ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

দেশের অবস্থা কতোটা খারাপ হলে জ্বালানির দাম একলাফে এতোটা বাড়ায়!

অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন

অধ্যাপক ড. কামরুল হাসান মামুন: হঠাৎ প্রতিটি জ্বালানি তেলের দাম লিটারে ৩০ থেকে ৩৫/৪০ টাকা বাড়ানো হলো। এর ফলাফল কি সরকার বুঝে না? বুঝে শুনেই করেছে। নিশ্চয়ই অর্থিনীতির অবস্থা এতটাই খারাপ এখন দিকবিদিক জ্ঞানশূন্য হয়ে গেছে। তবুও এমপি, মন্ত্রী, আমলাদের প্রাডো, landcruiser, পাজেরোসহ ২০০০ সিসির উপরে যত সরকারি গাড়ি, প্রজেক্টের গাড়ি বা ব্যক্তিগত গাড়ি সেগুলো রাস্তায় চলাচল বন্ধ ঘোষণা করে না। এইদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাড়ি কেনা কমানোর নির্দেশনা দেয়। বিশ্ববিদ্যালয় বছরে কয়টা গাড়ি কিনে? যেগুলো কিনে সেগুলোতো প্রাদো, landcruiser, পাজেরো না। বিশ্ববিদ্যালয় যদি ২/৩ বছরে কিছু গাড়ি কিনেও সেগুলো হলো ছাত্রদের জন্য বাস এবং শিক্ষকদের জন্য মিনিবাস বা মাইক্রোবাস। কৃচ্ছতার নামে সরকার এতকিছু করে পেট্টোল রাক্ষস সরকারি গাড়ি বন্ধের কোন নির্দেশনা দেয় না। এমন কোন পদক্ষেপ নেয় না যার জন্য তাদের কোন অসুবিধা হবে। তাদের সুখ শান্তি ঠিক রেখে এদের সকল সিদ্ধান্ত। কতটা স্বার্থপর হলে এমন হওয়া সম্ভব?

এই বিপদে সরকার কি তার অন্য অপসনগুলো ব্যবহার করেছে? যেমন প্রাইভেট বিদ্যুৎ কোম্পানিগুলোকে বলা যে এখন থেকে সরকার আর তোমাদের বসিয়ে রাখা বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোকে বিশাল অংকের ভাড়া দেওয়া যাবে না। অনেক নিয়েছে। নিয়ে নিয়ে দেশের ডলার সিঙ্গাপুরে নিয়ে গিয়ে সিঙ্গাপুরের মত দেশের বড় ব্যবসায়ী হয়ে গেছে। সরকার কি তার দলের নেতাকর্মীদের বলেছে যে ‘তোমরা যেই টাকা বিদেশে নিয়ে গিয়েছ এইবার সেই টাকা ফিরিয়ে আন।’ হয়তো ফিরিয়ে আনবে না। নেত্রীর প্রতি কতটা ভালোবাসা সেটাতো বোঝা যাবে। দলের এক সাধারণ সাংবাদিক নেতা সেও শুনি আমেরিকায় চলে গেছে। সেখানে ক্যাশ ডলার দিয়ে নিউইয়র্কে বাড়ি কিনেছে। অনেক বর্তমান এবং সাবেক এমপি, মন্ত্রী, তাদের সন্তান, আমলা আমেরিকা কানাডায় বাড়ি কিনেছে। এরাইতো দেশটাকে ডুবাইল। গরিব মানুষেরা বিদেশে কামলা খেটে আমাদের রেমিটেন্স বাড়ায় আর এরা আমাদের রেমিট্যান্স কমায়। এই যে জ্বালানি তেলের দাম বাড়লো এতে এদের উপরে কোন ইমপাক্ট পড়বে না। যখন বুঝবে পড়বে তখন এরা দেশ ছেড়ে পালাবে। দেশের গরিব মানুষদের উপরে পড়বে। 
দেশের অবস্থা কতটা খারাপ হলে জ¦ালানির দাম এক লাফে এতোটা বাড়ায়? দেশের অবস্থা কতটা খারাপ হলে একাধিক আন্তর্জাতিক ব্যাংক বা ঋণ সংস্থার কাছ থেকে কঠিন শর্তে ঋণ নেওয়ার জন্য ধর্ণা দেয় তা জনগণের পরিষ্কার ভাবে জানার অধিকার আছে। আমাদের টাকাগুলো এইভাবে কাগজে পরিণত হতে যেতে দিতে পারিনা। এই বৃদ্ধির ফলে আরেকদফা বড় অংকের ইনফ্লেশন হবে। সেই ধাক্কা কি আমাদের সাধারণ মানুষ সামলাতে পারবে? তারা কি বাঁচবে? দিন মজুর, গার্মেন্টস কর্মী তাদের বেতনতো বাড়ছে না। তাহলে তারা এই উচ্চমূল্যের বাজার থেকে খাবার কিনে সন্তানদের পাতে খাবার দিতে পারবে? লেখক: শিক্ষক, পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়