শিরোনাম
◈ প্রাইভেটকারের ওপর গার্ডার: ক্রেনের চালক ও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে মামলা ◈ গার্ডার চাপায় নিহতদের ময়নাতদন্ত হবে সোহরাওয়ার্দীর মর্গে ◈ উত্তরায় দুর্ঘটনা: শিশু জাকারিয়া জীবিত ছিল আধাঘণ্টা ◈ পুলিশের উদ্দেশ্যই ছিল ছাত্রলীগের ছেলেদের মারবে: এমপি শম্ভু ◈ রাজধানীতে ক্রেন থেকে রড পড়ে ৫ পথচারী আহত ◈ চকবাজার ও উত্তরার ঘটনায় শোক জানিয়ে তদন্তের দাবি ফখরুলের ◈ মানবাধিকারকর্মীদের কথা শুনলেন জাতিসংঘের মিশেল ব্যাচেলেট ◈ উত্তরায় ক্রেন দুর্ঘটনা: বেঁচে রইলেন শুধু নবদম্পতি ◈ খায়রুনকে লাথি মেরে সেই রাতে বাইরে যান স্বামী ◈ উত্তরায় প্রাইভেট কারের উপর ফ্লাইওভারের গার্ডার, নিহত ৫ (ভিডিও)

প্রকাশিত : ০৫ আগস্ট, ২০২২, ০২:১৭ রাত
আপডেট : ০৫ আগস্ট, ২০২২, ০২:১৭ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

প্রেমের টানে বাংলাদেশে!

প্রভাষ আমিন

প্রভাষ আমিন: বাংলাদেশে সেবা সম্পর্কে কোনো ধারণা নেই বললেই চলে। পাসপোর্ট অফিসে যান, এনআইডি কার্ড অফিসে যান, জরিপ অফিসে যান, বিআরটিএতে যান, ব্যাংকে যান, ওয়াসায় যান, তিতাসে যান, হাসপাতালে যানÑপ্রাপ্য সেবা পাবেন না। পদে পদে ভোগান্তি, দুয়ারে দুয়ারে অনিয়ম। টাকা দিয়ে আপনি যে সেবা কিনবেন, সেটা পেতেও আপনাকে উপরি দিতে হবে। পাশের টেবিলের যে সহকর্মী, আপনি অবসরে গেলে সেও সুযোগ পেলে আপনার পেনশনের ফাইল আটকে রাখবে। ঘুষ ছাড়া এখানে ফাইল নড়ে না, বদলি হয় না, পোস্টিং হয় না। যে শিক্ষক শিক্ষার্থীদের নৈতিকতা শেখাবেন, তিনি ঢাকায় শিক্ষা অধিদপ্তরের এসে হাতে-কলমে শিখে যান, নৈতিকতা কত প্রকার ও কী কী।

সাধারণ মানুষ ব্যাংকে গেলে ঋণ পায় না। পেলেও অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়। সাধারণ মানুষের লাখ টাকার ঋণের কিস্তি আদায়ে ব্যাংকের যত আগ্রহ, শিল্পপতিদের কোটি টাকার ঋণ নিয়ে ততটাই অনাগ্রহ। খেলাপি ঋণের পরিমাণ বছরে বছরে বাড়ে। সুযোগ পেলেই আমরা ব্যাংক লোপাট করে দেই। মুখে মুখে দেশকে ভালোবাসার কথা বললেও সুযোগ পেলেই টাকা পাচার করে দেই বিদেশে। টাকা দিয়ে আপনি যে সেবা কিনবেন, সেটা পেতেও আপনাকে উপরি দিতে হবে। ঘুষ ছাড়া এখানে ফাইল নড়ে না, বদলি হয় না, পোস্টিং হয় না। দুর্নীতি ছড়িয়ে গেছে আমাদের রন্ধ্রে রন্ধ্রে। রডের বদলে বাঁশ, সিমেন্টের বদলে বালি দেওয়ার ঘটনা ঘটে অহরহ। আশপাশে কোনো রাস্তা নেই, জনবসতি নেই; মাঠের মাঝখানে একটা সেতুÑএমন ছবি কেবল বাংলাদেশেই সম্ভব। বোঝাই যায় ইঞ্জিনিয়ার আর ঠিকাদারের টাকার চাহিদা মেটাতেই সেতু বানানো হয়েছে, মানুষের পারাপারের জন্য নয়।

এত যে সারল্য, এত যে প্রেম, এত যে সুফি-বাউলের হৃদয়; সাম্প্রদায়িকতার বিষ কিন্তু ছড়িয়ে গেছে অনেক গভীরে। কথায় কথায় আমাদের অনুভূতিতে আঘাত লাগে। বিনা দোষে বা একজনের দোষে আরেকজনের ঘরে আগুন দিতে আমাদের একটুও বাধে না। আমরা মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখি না। ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ, গোত্র, জাতি আমাদের মাপকাঠি হয়ে যায়। ফেসবুকে আমরা একেকজন বিশাল বিপ্লবী। কিন্তু বাস্তবে কোনো অন্যায়েরই প্রতিবাদ করি না। মুখ বুজে সয়ে যাই। কয়েকদিন আগে এক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রী এক ছিনতাইকারীকে আটক করে। তা নিয়ে বিশাল আলোচনা। অথচ এমনটাই হওয়ার কথা। আমরা সবাই যদি অন্যায়ের প্রতিবাদ করতাম, তাহলে প্রিয় দেশটা এমন মলিন হতো না। নিজের গায়ে না আসা পর্যন্ত আমরা মুখ বুজে থাকি। এই যে আমাদের প্রেমের এত টান, সেই প্রেমের কিছুটা যদি দেশের জন্য রাখি, তাহলেই বদলে যেতে পারে বাংলাদেশ।

আপনি হয়তো ভাবছেন, আমার ছেলেমেয়ে তো কানাডা চলে যাবে, দেশ তবে গোল্লায় যাক। কিন্তু একবার ভাবুন, ১৬ কোটি ৫১ লাখ ৫৮ হাজার মানুষের সবাই তো বিদেশে চলে যেতে পারবে না। আপনার ছেলেমেয়ে চলে গেলেও আপনার ভাইয়ের ছেলেমেয়ে দেশেই থাকবে, ভাই থাকবে, মামা-চাচা-খালা-খালু থাকবে, আপনার বন্ধু থাকবে। তাই দেশটাকে বাসযোগ্য রাখা আমাদের সবার দায়িত্ব। ‘আমার সোনার বাংলা’ গেয়ে চোখের জলে বুক ভাসানো দেশপ্রেম নয়। দেশপ্রেম হলো নিজ নিজ জায়গা থেকে দেশের জন্য কাজ করা, অন্যায়ের প্রতিবাদ করা, দুর্নীতি বন্ধ করা, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা, ন্যায্যতা নিশ্চিত করা, গণতন্ত্র কার্যকর করা, সাম্প্রদায়িকতা রুখে দেওয়া। লেখক: হেড অব নিউজ, এটিএন নিউজ

 

  • সর্বশেষ