শিরোনাম

প্রকাশিত : ৩০ জুন, ২০২২, ০১:১৪ রাত
আপডেট : ৩০ জুন, ২০২২, ০১:১৪ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

শিক্ষকদের একাধিক সমিতি নীরব দর্শক হয়ে আছেন

মনজুরুল হক

মনজুরুল হক: [২] কলেজ শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসের ঘটনায় সরকারের ‘ভাবমূর্তি’ হয়তো ক্ষুণ্ন হয়নি। হলে এতোদিনে শিক্ষামন্ত্রীর উদ্যোগ দেখা যেতো। নিদেনপক্ষে তিনি ‘লজ্জিত’ এমনও শোনা যায়নি। সারা দেশে লাখ লাখ শিক্ষক। তাদের অনেকেই এমপিওভুক্তি, বেতন-ভাতা, পেনসনের দাবীতে অনশন করেছেন। সাধারণ মানুষ স্বতঃস্ফূর্তভাবে তাদের সমর্থন করেছে। আজকে স্বপন কুমার বিশ্বাসের চরম অবমাননাকর ঘটনার পর তারা চুপ! দলদাস হলেই কি অন্যায়ের প্রতিবাদ করা বারণ? এই যে শিক্ষকদের একাধিক সমিতি নীরব দর্শক হয়ে আছেন, তাতে শিক্ষার্থীদের কাছে কী বার্তা যাচ্ছে? ‘আপনারা মেরুদণ্ডহীন, তাই আপনাদের শিক্ষাদানের অধিকার নেই’।

[৩] শিক্ষক হেনস্তার ৯ দিন পর পুলিশ বাদী হয়ে যে মামলা করেছে সবই লোক দেখানো, কারণ এখানে পুলিশের ভূমিকা প্রশ্নবিদ্ধ। এই জঘন্য অপমানজনক ঘটনাটি সংশ্লিষ্ট জেলা প্রসাশক, পুলিশ সুপার ও সংশ্লিষ্ট থানার ওসির জ্ঞাতসারেই ঘটেছে। যদিও পুলিশ সুপার প্রবীর কুমার রায়ের ভাষ্যটি কৌশলী। তিনি বলেনÑ‘অধ্যক্ষকে যখন কলেজের কক্ষ থেকে বের করে আনা হয়, তখন সেখানে আমি নিজে উপস্থিত ছিলাম। এ ছাড়া নড়াইল জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হাবিবুর রহমানও উপস্থিত ছিলেন। তখন কেউ তাকে জুতার মালা দিয়েছে কি না, আমরা দেখতে পারি নাই। এটা আমার জানাও নেই।’

[৪] ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়া ভিডিওর বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে পুলিশ সুপার বলেন, ‘আমি এখনও কোনো ভিডিও দেখি নাই। জুতার মালার ব্যাপারটাও জানি না। এ ঘটনায় আমি একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে দিয়েছি। তারা প্রতিবেদন দিলে যে বা যারা দোষী হবেন, তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। ঘটনার দিন তিনি বেশ খানিকটা দূরে অবস্থান করছিলেন। এ কারণে স্বপন কুমারকে জুতার মালা পরিয়ে দেয়ার ঘটনা তার চোখে পড়েনি (নিউজবাংলা, ২৮ জুন, ২০২২)’

[৫] এই যে ‘তিনি বেশ খানিকটা দূরে অবস্থান করছিলেন’ বলে দিলেন, এখন যদি তাকে প্রশ্ন করা হয়—‘কয়েক ঘন্টা ধরে ঘটনা ঘটল, আপনি দূরে থাকলেন কেন? আপনাকে তো ভারপ্রাপ্ত অধক্ষ্য ডেকেছিলেন ঘটনা সামাল দেয়ার জন্য’ কী জবাব দেবেন? আমাদের অভিজ্ঞতা বলে পুলিশের অবহেলার ঘটনা পুলিশ তদন্ত করলে ফলাফল পুলিশের পক্ষেই যাবে। 

[৬] ওই কলেজেরই আর এক শিক্ষক স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা টিভি চ্যানেলে 'শিবের গীত' গাইলেন গতকাল। তিনি গোটা সময় সেখানে থেকেও জুতার মালা পরানোর সময় দেখেননি! ইনিয়ে-বিনিয়ে সাফাই দিয়ে গেলেন।

[৭] আশার কথা এতটুকু—‘ধর্ম অবমাননার অভিযোগ তুলে নড়াইলের কলেজ শিক্ষক স্বপন কুমার বিশ্বাসের গলায় জুতার মালা পরিয়ে লাঞ্ছনার ঘটনায় রিট আবেদন দায়ের করার পরামর্শ দিয়েছেন হাইকোর্ট। বিচারপতি মো. মজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি খিজির হায়াত হাইকোর্ট বেঞ্চ মঙ্গলবার শিক্ষককে লাঞ্ছনার বিষয়ে গণমাধ্যমে প্রকাশিত প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে এই পরামর্শ দেন (প্রাগুক্ত)'। 

[৮] গত ২১ জুন এক রিপোর্টে জানা যায় ফরিদপুরের বোয়ালমারী উপজেলার উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. রেজাউল করিমকে "আপনার আচরণ রাষ্ট্রের জন্য কলঙ্ক" বলে কঠোরভাবে ভর্ৎসনা করেছিলেন হাইকোর্ট। হাইকোর্ট আরও বলেছিলেন—"আপনি একটি পক্ষ নিয়ে যে আচরণ করেছেন তা সভ্য রাষ্ট্রের জন্য একটি কলঙ্কজনক অধ্যায় হয়ে থাকবে (নিউজবাংলা ২৪ ডট কম)।"

[৯] আমরা আশা করব হাইকোর্টে রিট আবেদনের পরে হাইকোর্ট সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অবহেলা, পক্ষপাতিত্ব এবং দায়িত্বহীনতার বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থা নেবেন।  হোমড়া-চোমড়াদের জড়িত থাকার কারণে এবং ভিকটিম সংখ্যালঘু হওয়ার কারণে নড়াইলের স্বপনকুমার বিশ্বাস জুতার মালা পরেও বেঁচে আছেন, আর সাভারে জনসমক্ষে হত্যা করা হলোে কলেজ শিক্ষক উৎপল কুমার সরকারকে। যে হত্যা করলো পুলিশ তাকে আটক করেও ছেড়ে দিয়েছে। এই যদি হয় আইনের শাসন তাহলে সামনে কী অপেক্ষা করছে এ জাতির জন্য ভাবতেও আতঙ্ক হয়। লেখক ও ফ্রিল্যান্স জার্নালিস্ট

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়