শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৯ জুন, ২০২২, ০২:১৩ রাত
আপডেট : ২৯ জুন, ২০২২, ০২:১৩ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ভালোবাসার সহজ দর্শন

মঈন চৌধুরী

মঈন চৌধুরী: ইদানিং ফেসবুকে আমার অনেক বন্ধু ভালবাসা নিয়ে লিখেন। বোঝা যায় ভালবাসায় ভুলবোঝাবুঝি, ভাঙন, কষ্ট ইত্যাদি তাদের বিচলিত করছে।  তারা তাদের কবিতায় আর কথায় বলতে চান—‘সখি, ভালবাসা কারে কয়, সে কী কেবলই যাতনাময়?’ আমি তাদের জন্যই আজ ভালবাসার সহজ দর্শন লিখছি।

ভালবাসা কী, এ প্রশ্নের উত্তর নিয়ে আমরা প্রায়ই বিভ্রান্তিতে ভুগি। ভালবাসা স্বর্গীয়, ভালবাসা ঐশ্বরিক, এমন ধাঁচের কোন একটা উত্তরহীন উত্তর দিয়ে আমরা প্রশ্নের সম্মুখেই দাড়িয়ে থাকি। আসলে ভালবাসা হল ঊৎড়ং, চযরষড়ং আর অমধঢ়ব-এর সম্মিলিত রূপ। নারী আর পুরুষের ভালবাসায় মুখ্য হয়ে অবস্থান করে জৈবিক ও মনস্তাত্ত্বিক Eros বা কাম। তবে নারী-পুরুষের ভালবাসায় কামের সাথে কামহীন প্ল্যাটনিক ভালবাসাও অবস্থান করে। মা, বাবা, ভাই, বোন, আত্মীয়স্বজন, শিক্ষক-শিক্ষিকা আর বন্ধুবান্ধবদের ভালবাসায় থাকে চযরষড়ং, আর দেশপ্রেম, বইপ্রেম, শিল্পপ্রেম ইত্যাদিকে বলে অমধঢ়ব। নারী ও পুরুষের ভালবাসায় জৈবিক কাম আর মনস্তাত্ত্বিক টান বা আকর্ষণই হয়ে যায় মুখ্য আর এমন ভালবাসায় পরস্পরের প্রতি নির্ভরতাও গড়ে ওঠে। অনুকুল পরিবেশে নিজেদের মধ্যে ভাল বোঝাপড়া থাকলে এমন ভালবাসায় ভাঙন ধরে না, বরং এমন প্রেম অনেকসময়ই সময়হীন শেষহীন সত্তায় জীবনকে জড়িয়ে রাখে।

এখন একটা প্রয়োজনীয় কথা বলি। নারী-পুরুষের হৃদয়ছোঁয়া স্বর্গীয় ভালবাসাকে সবসময় তাজা রাখার জন্য প্রয়োজন হয় রোমান্টিসিজমের। গৎবাঁধা গানিতিক জীবন যাপন করলে ভালবাসার টান বা আকর্ষণ না কমলেও, ভালবাসার উজ্জ্বলতা কমে যায়, জীবন হয়ে পড়ে একঘেয়ে। ভালবাসাকে চকচকে নতুন রাখার জন্য রোম্যান্টিক হতে হয়, যা খুব একটা কঠিন কাজ না। একজন নারী বা পুরুষকে রোমান্টিক হতে হলে তাকে নিত্যনতুন ভালবাসার সময় তৈরি করতে হবে। রোমান্টিক সময় তৈরি করার জন্য প্রয়োজন শুধু কিছু সময় নিয়ে টুকটাক গল্প-করা,  কবিতার দুএকটা লাইন বলা, কোন একটা গান শোনা, ফুলদানীতে একগোছা সুগন্ধি ফুল রাখা, মাঝে মধ্যে কিছুটা হাসিঠাট্টা বা হিউমার  করা, দুজন বাগানে বসে চা  খাওয়া, ছাদে বা বাইরে গিয়ে চাঁদ দেখা, একসাথে দুচারদিনের জন্য বাইরে বেড়াতে যাওয়া, ঘরে বসে একসাথে ছবি দেখা, জীবনসাথির পছন্দের পারফিউম ও কাপড় ব্যবহার করা এবং এমন ছোটখাট অন্য কিছুর আয়োজন করা। একজন নারী বা পুরুষ কিভাবে নিত্যনতুন সময় তৈরি করবে, তা নির্ভর করবে তার মনের উপর, তার অজানাকে জানার আর জানানোর ইচ্ছের উপর। এখানে বলা আবশ্যক যে একজন তরুণ বা তরুণী যে ভাবে তার নতুন সময় তৈরি করবে, একজন বয়স্ক পুরুষ বা নারী তা পারবে না, তাদের কার্যক্রম হবে ভিন্ন।

আমাদের দেশে অনেক নারী ও পুরুষ রোমান্টিক নতুন সময় তৈরি করতে পারেনা, যার ফলে ভালবাসা থাকলেও তার উজ্জ্বলতা কমে যায়, মাঝেমধ্যে একঘেয়ে জীবন ভালবাসায় ভুলবোঝাবুঝি নিয়ে আসে। তোতা পাখির মতো মুখে ‘ভালবাসি, ভালবাসি, লাভ ইউ, লাভ ইউ’ বললে কোন কাজ হয় না। ভালবাসাকে তাজা আর প্রাণবন্ত রাখতে প্রয়োজন রোমান্টিসিজম। ফেসবুক থেকে 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়