শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৯ জুন, ২০২২, ০৮:৪১ সকাল
আপডেট : ১৯ জুন, ২০২২, ০৬:১৬ বিকাল

প্রতিবেদক : আমাদের সময়.কম ডেস্ক

স্বপ্নের পদ্মাসেতু: পদ্মার বুকে তৃতীয়, দেশের দীর্ঘতম

স্বপ্নের পদ্মাসেতু

সালেহ্ বিপ্লব: প্রমত্তা পদ্মার বুকে প্রথম সেতু হার্ডিঞ্জ ব্রিজ, যেটি ব্রিটিশ আমলে স্থাপিত। দ্বিতীয় সেতু লালন শাহ, যেটি হার্ডিঞ্জ ব্রিজের পাশেই। 

হার্ডিঞ্জ ব্রিজ পদ্মার বুকে প্রথম সেতু হলেও সেটি শুধুমাত্র রেলসেতু। দেশের দীর্ঘতম রেলসেতু। এই সেতুটি পাবনা জেলার ঈশ্বরদী উপজেলার পাকশি এবং কুষ্টিয়া জেলার ভেড়ামারা উপজেলাকে যুক্ত করেছে। 

এই সেতুর নির্মাণকাল ১৯০৯-১৯১৫। তৎকালীন ভাইসরয় লর্ড হার্ডিঞ্জের নাম অনুসারে এই সেতুর নামকরণ করা হয়। ব্রিজের দৈর্ঘ্য ১,৭৯৮.৩২ মিটার বা ৫৮৯৪ফুট। এর উপর দুটি ব্রডগেজ রেললাইন রয়েছে।

১৮৮৯ সালে তৎকালীন অবিভক্ত ভারত সরকার আসাম, ত্রিপুরা, নাগাল্যান্ড ও উত্তরবঙ্গের সঙ্গে কলকাতার যোগাযোগ সহজতর করার লক্ষ্যে পদ্মা নদীর উপর ব্রিজ নির্মাণের প্রস্তাব করে। ১৯০৮ সালে সেতু নির্মাণের মঞ্জুরী লাভের পর ব্রিটিশ প্রকৌশলী স্যার রবার্ট গেইলস সেতুটি নির্মাণের দায়িত্ব পান। 

১৯০৯ সালে সেতু নির্মাণের সমীক্ষা শুরু হয়। ১৯১০-১১ সালে পদ্মার দুই তীরে সেতু রক্ষার বাঁধ নির্মাণ হয়। ১৯১২ সালে সেতুটির গাইড ব্যাংক নির্মাণের কাজ শুরু হয়। পাশাপাশি সেতুর গার্ডার নির্মাণের কাজ শুরু হয়। গার্ডার নির্মাণের জন্য কূপ খনন করা হয়। ২৪ হাজার শ্রমিক দীর্ঘ ৫ বছর অক্লান্ত পরিশ্রম করে ১৯১৫ খ্রিষ্টাব্দে সেতুটির নির্মাণ কাজ শেষ করেন। সেতুটির নির্মাণে ব্যয় হয়েছিল ৩ কোটি ৫১ লক্ষ ৩২ হাজার ১ শত ৬৪ টাকা। ব্রিজটিতে ১৫টি স্প্যান আছে। 

১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় সেতুটিতে বোমা ফেলা হলে ১২ নম্বর স্প্যানটি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। যেগুলো পরে মেরামত করা হয়েছে। ২০১৫ সালে হার্ডিঞ্জ ব্রিজ নির্মাণের শতবর্ষ পূর্ণ হয়।

লালন শাহ সেতু
লালন শাহ সেতু ভেড়ামারা হার্ডিঞ্জ ব্রীজের অদূরেই নির্মিত, বলা চলে রেলওয়ে ব্রিজটির সমান্তরালে এই সড়ক সেতু। ২০০১ সালের ১৩ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এর ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন করেন।
সেতুটি নির্মাণ শুরু হয় ২০০৩ সালে। সেতুটির দৈর্ঘ্য ১.৮ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ১৮.১০ মিটার। নির্মাণ করেছে চীনের প্রতিষ্ঠান মেজর ব্রীজ ইঞ্জিনিয়ারিং ব্যুরো। মোট স্প্যানের সংখ্যা ১৭টি। ২০০৪ সালের ১৮ মে সেতুটি উদ্বোধন করেন তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া।  সেতুটি দুই লেন বিশিষ্ট। পূর্ব পাশে পাবনার পাকশী, পশ্চিম পাশে কুষ্টিয়ার ভেড়ামারা। 

এতোদিন লালন শাহ সেতু ছিলো দেশের দ্বিতীয় দীর্ঘতম সড়ক সেতু, প্রথমটি বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ  পদ্মা বহুমুখী সেতু নির্মাণের পর বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু দ্বিতীয় দীর্ঘতম এবং তৃতীয় লালন শাহ। 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়