শিরোনাম

প্রকাশিত : ২১ মে, ২০২২, ০৫:৩১ বিকাল
আপডেট : ২১ মে, ২০২২, ০৭:১০ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

সিএনজি মালিক-চালকদের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি

মনজুর-এ আজিজ: [২] সরকার নির্ধারিত জমার চেয়ে মালিকপক্ষ অধিক জমা আদায় করায় মিটারে সিএনজি অটোরিকশা চালানো সম্ভব হচ্ছে না। পাশাপাশি যাত্রীদের কাছ থেকেও অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করতে হয় বলে দাবি করেছেন সিএনজি চালিত অটোরিকশার চালকেরা। অন্যদিকে মালিকেরা বলছেন, বর্তমান বাজারে সিএনজি অটোরিকশার যন্ত্রাংশসহ সরকারি ভ্যাট-ট্যাক্স বেড়ে যাওয়ায় সরকার নির্ধারিত ৯০০ টাকা জমা রাখা সম্ভব নয়। শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের ভেতরে ও বাইরে মালিক-চালকদের পাল্টাপাল্টি কর্মসূচিতে তারা এসব কথা বলেন।

[৩] প্রেসক্লাবের সামনের কর্মসূচি থেকে ঢাকা জেলা সিএনজি অটোরিকশা, মিশুক চালক ও শ্রমিক ইউনিয়নের নেতা সাখাওয়াত হোসেন বলেন, সিএনজি চালক নয়, বরং মালিকদের কাছে ঢাকার ১ কোটি যাত্রী জিম্মি। বিআরটিএ কর্তৃপক্ষের একতরফা নির্দেশ অনুযায়ী এ ক্ষুদ্র যানটির দৈনিক জমা ৯০০ টাকা করা হয়েছে। মালিকেরা এর চেয়েও অধিক হারে জমা নিয়ে থাকেন। অনেক ক্ষেত্রে গাড়ির গ্যারেজ ভাড়াও দিতে হয় চালককে।

[৪] অপরদিকে প্রেসক্লাবের ভেতরে জমা বৃদ্ধির দাবিতে সংবাদ সম্মেলন করে ঢাকা মহানগর সিএনজি অটোরিকশা মালিক সমিতি ঐক্য পরিষদ। সরকার নির্ধারিত সিএনজি জমার অতিরিক্ত আদায়ের বিষয়ে সমিতির সভাপতি মো. বরকত উল্লাহ বুলু বলেন, সরকার সিএনজির জমা নির্ধারণ করেছিল ২০১৫ সালে। এর মাঝে কয়েক দফা সিএনজি ও যন্ত্রাংশের দাম বৃদ্ধিসহ সরকারি ভ্যাট ট্যাক্স বৃদ্ধি পেয়েছে। এই অবস্থায় আমাদের পক্ষে দৈনিক জমা ৯০০ টাকা নেওয়া সম্ভব হচ্ছে না। 

[৫] তিনি বলেন, ২০১৮ সালে জমা বৃদ্ধির জন্য আমরা মন্ত্রণালয় ও বিআরটিএর কাছে চিঠি পাঠিয়েছে সিএনজি জমা সমন্বয় করার জন্য। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখের বিষয়, এখন পর্যন্ত তারা এ বিষয়ে কোনো প্রকার পদক্ষেপ নেননি। তাই তিনি দৈনিক জমা ও চালকের মিটারের ভাড়া বৃদ্ধি করার দাবি জানান।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়