শিরোনাম

প্রকাশিত : ০৪ ডিসেম্বর, ২০২২, ১২:৩৭ রাত
আপডেট : ০৪ ডিসেম্বর, ২০২২, ০১:৩১ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

৪ ডিসেম্বর আজ, ফুলবাড়ী ও দেবিদ্বার মুক্ত দিবস

সালেহ্ বিপ্লব: আজ ৪ ডিসেম্বর। ১৯৭১ সালের এই দিনে বিভিন্ন এলাকা থেকে পাক হানাদারদের বিতাড়িত করেন মুক্তিযোদ্ধারা। আজকের দিনে হানাদারমুক্ত হয় দিনাজপুরের ফুলবাড়ী ও কুমিল্লার দেবিদ্বার। 

১৯৭১ সালের এই দিনে মুক্তি বাহিনী ও মিত্রবাহিনী যৌথভাবে দখলদার পাকিস্তানি বাহিনী উপর চতুর্মুখী আক্রমণ চালায়। হানাদার পাকিস্তানী বাহিনীকে ফুলবাড়ী থেকে বিতাড়িত করে স্বাধীন বাংলাদেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন বীর মুক্তি বাহিনী। 

উপজেলার বীর মুক্তিযোদ্ধারা জানান, ৪ ডিসেম্বর বিকালে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী ও তাদের দোসররা ফুলবাড়ী ছেড়ে পালিয়ে যায়। অবশ্য তাদের কিছু মাইন পুতে রাখা ছিল। সেই মাইনে বিস্ফোরিত হয়ে ৩ জন ভারতীয় মিত্র বাহিনীর সদস্য শহীদ হন। ভাতীয় মিত্রবাহিনীর ওই শহীদ তিনজনকে শেষকৃত্য সম্পন্নের পর ফুলবাড়ী সরকারি কলেজের পূর্বপ্রান্তে ছোট যমুনা নদীর পশ্চিম তীরে তাদের সম্মানার্থে একটি স্মৃতিস্তম্ভ নির্মাণ করা হয়েছে।

দেবিদ্বার থেকে শাহিদুল ইসলাম জানান, ১৯৭১ সালের এদিনে মুক্তিবাহিনী ও মিত্র বাহিনীর যৌথ আক্রমনে দেবিদ্বার হানাদারমুক্ত হয়েছিল। 

মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনীর যৌথ অভিযানে ৩ ডিসেম্বর বিকেল থেকেই হানাদারদের বিরুদ্ধে তীব্র আক্রমন পরিচালনা করা হয়েছিল। মিত্রবাহিনীর ২৩ মাউন্টেন ডিভিশনের জেনারেল আর. ডি হিরার নেতৃত্বে বৃহত্তর কুমিল্লায় এই অভিযান পরিচালিত হয়। ওই দিন রাতে মুক্তিবাহিনী কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়কের কোম্পানীগঞ্জ সেতুটি মাইন বিষ্ফোরণে উড়িয়ে দেয়। মিত্রবাহিনীর একটি ট্যাংক বহর বুড়িচং–ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলা হয়ে দেবিদ্বারে আসে। হানাদাররা ওই রাতেই দেবিদ্বার ছেড়ে কুমিল্লা সেনানিবাসে পালিয়ে যায়। ধীরে ধীরে মুক্তিবাহিনীর বিভিন্ন গ্রুপ দেবিদ্বার সদরের দিকে অগ্রসর হতে থাকে। পাক সেনারা ওই রাতেই পালিয়ে ময়নামতি ক্যান্টনম্যান্টে চলে যাওয়ার সংবাদে ৪ ডিসেম্বর ভোর থেকেই বিভিন্ন অঞ্চল থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের বিভিন্ন গ্রুপগুলো এবং হাজার হাজার জনতা স্বাধীন বাংলার পতাকা নিয়ে উপজেলা সদর অভিমূখে আসতে থাকে। জয়বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু শ্লোগানে বিজয়ের উল্লাসে উপজেলা সদর প্রকম্পিত করে তোলে। সম্পাদনা: খালিদ আহমেদ

এসবি/এমএইচ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়