শিরোনাম
◈ যাত্রবাড়ীর সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ একজনের মৃত্যু ◈ নির্ধারিত সময়ে হল ছাড়ায় শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ দিলেন ঢাবি ভিসি ◈ ঢাবি উপাচার্যের সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রীর বৈঠক; রাতে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষ ◈ যাত্রাবাড়িতে পুলিশের সঙ্গে দুর্বৃত্তদের সংঘর্ষ, টোল প্লাজায় আগুন ◈ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাতে আবার পুলিশ–শিক্ষার্থী সংঘর্ষ ◈ কোটা আন্দোলনকারীদের কমপ্লিট শাটডাউনে বিএনপির সমর্থন ◈ বিএনপি-জামাতের লাশের রাজনীতিতেই মানুষ নিহত হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ আগামীকাল সারাদেশে কোটা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ‘কমপ্লিট শাটডাউন' ◈ শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ ঘোষণা করলেন রাবি উপাচার্য ◈ সহিংসতার সঙ্গে কোটা আন্দোলনকারীদের সম্পর্ক নেই, সন্ত্রাসীরা সুযোগ নিয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত : ১৪ জুন, ২০২৪, ০৮:৫১ রাত
আপডেট : ১৫ জুন, ২০২৪, ০২:৫০ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

তিস্তা মহাপরিকল্পনায় চীনেরই ঋণ চায় বাংলাদেশ, ভারত কি অবস্থান বদলেছে?

ইকবাল খান: [২] চীনের ঋণ নিয়ে তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের উদ্দেশ্যে বিশদ সমীক্ষা করতে দেশটি যে পরামর্শ দিয়েছে তারই পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তী কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

[৩] বিবিসি জানায়, চীনের কাছ থেকে ঋণ পেতে বাংলাদেশের আগ্রহের কথা ইতোমধ্যেই জানিয়েছেন তিনি। বুধবার জাতীয় সংসদে এক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের স্বার্থে সহজ শর্তের ঋণ পেতে চীন সরকারকে অনুরোধ করার সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

[৪] উত্তরবঙ্গের তিস্তা নদী পাড়ের মানুষের দুঃখ লাঘবে এই মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি। এজন্য চীন সরকারের আর্থিক সহায়তায় সমীক্ষাও করা হয়েছে।

[৫] পর্যবেক্ষকদের অনেককেই ধারণা করেন, এতোদিন ভারতের আপত্তির কারণেই চীনের সাথে এ প্রকল্প নিয়ে এগুতে পারছিল না বাংলাদেশ।

[৬] শেখ হাসিনার সরকার টানা চতুর্থ মেয়াদে ক্ষমতায় আসার পর ঢাকায় নিযুক্ত চীনের রাষ্ট্রদূত প্রকল্পটির ব্যাপারে আবারো আগ্রহ প্রকাশ করেন।

[৭] তবে গত মাসে ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের ঢাকা সফরের সময় বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সাংবাদিকদের জানান, তিস্তা প্রকল্পে ভারত অর্থায়ন করতে চায়।

[৮] প্রধানমন্ত্রী সংসদে দেয়া বক্তব্যে চীনের অর্থায়নের কথা বললেও ভারতের বিষয়ে কিছু বলেননি।

[৯] প্রধানমন্ত্রী সংসদে জানিয়েছেন, ২০২০ সালের আগস্টে ৮ হাজার ২১০ কোটি টাকার পিডিপিপি (প্রিলিমিনারি ডেভেলপমেন্ট প্রোজেক্ট প্রোপোজাল) অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগে জমা দেয়া হয়েছিল। পিডিপিপি’র ব্যাপারে চীন সরকার গত বছরের পাঁচ মার্চ একটি মূল্যায়ন প্রতিবেদন পাঠায়।

[১০] প্রতিবেদনে ‘বড় আকারের ভূমি উন্নয়ন ও ব্যবহার এবং নৌ-চলাচল ব্যবস্থার উন্নয়নের বিষয়ে অধিকতর বিশ্লেষণ না থাকা এবং বড় আকারের বিনিয়োগ বিষয়গুলো উল্লেখ করা হয়েছে’ বলে সংসদকে জানান শেখ হাসিনা।

[১১] আরও বিশদ সমীক্ষার পরামর্শও দিয়েছে চীন। শেখ হাসিনা বলেন, ‘তারই পরিপ্রেক্ষিতে পরবর্তী কার্যক্রম বাস্তবায়ন করা হচ্ছে।’

[১২] মূলত তিনটি উদ্দেশ্যকে সামনে রেখে তিস্তা মহাপরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে জানালেন নদী গবেষণা ইনস্টিটিউটের সদস্য পানি সম্পদ প্রকৌশলী মালিক ফিদা আব্দুল্লাহ খান।

[১৩] উদ্দেশ্যগুলো হলো বন্যা পরিস্থিতি প্রশমন, ভাঙন হ্রাস এবং ভূমি উদ্ধার। পরিকল্পনার কেন্দ্রে রয়েছে বাংলাদেশ অংশের উজানে একটি বহুমুখী ব্যারেজ নির্মাণ।

[১৪] ফিদা আব্দুল্লাহ খান বিবিসি বাংলাকে বলেন, ‘তিস্তা বাংলাদেশ অংশে খরস্রোতা একটি নদী। ব্যারেজের ডাউনে রিভার ট্রেইন (নদী শাসন) করে একে একটি নির্দিষ্ট আকৃতিতে আনার চেষ্টা করা হবে। তিস্তার বিস্তৃতি কোথাও হয়তো পাঁচ কিলোমিটার আছে, সেটির প্রস্থ কমিয়ে আনা হবে। সেই সাথে ড্রেজিং করে নদীর গভীরতা বাড়ানো হবে। করা হবে রিভেটমেন্ট বা পাড় সংস্কার ও বাঁধানোর কাজ। এর ফলে তিস্তার পারে থাকা শত শত একর জমি বা ভূমি পুনরুদ্ধার হবে যা ভূমিহীন মানুষ, কৃষি কিংবা শিল্পায়নের কাজে লাগানো যাবে। অন্যদিকে, বন্যা ও ভাঙন কমানো গেলে অববাহিকার মানুষের দুর্ভোগ কমবে।

[১৫] তবে এখনো বিষয়টি রূপরেখা পর্যায়ে আছে, বলেন ফিদা আব্দুল্লাহ খান।

[১৬] এই নদী বিশেষজ্ঞ আরো বলেন, শুষ্ক মৌসুমের জন্যই পানিবন্টন চুক্তি হওয়া দরকার। ‘ভারতের সাথে চুক্তি না করলে, শুষ্ক মৌসুমে পানির যে প্রাপ্যতা সেটা নিশ্চিত হবে না। তাই মহাপরিকল্পনা পানি বন্টন চুক্তির বিকল্প হিসেবে কাজ করবে না। 

[১৭] ভারতের জিন্দাল ইউনিভার্সিটি অফ ইন্টারন্যাশনাল অ্যাফেয়ার্সের একজন অধ্যাপক এবং বাংলাদেশ বিশেষজ্ঞ ড. শ্রীরাধা দত্ত বলেন, যেহেতু শুষ্ক মৌসুমে কৃষির প্রয়োজনে তিস্তার পানি প্রয়োজন পড়ে, চুক্তি হওয়ার আগ পর্যন্ত ওই সময়টায় বাংলাদেশের সংশ্লিষ্ট কৃষিভিত্তিক অর্থনীতির সহায়তায় ভারতের বিকল্প কিছু ভাবা উচিত।

[১৮] জুলাই মাসের প্রথমার্ধে চীন সফর করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

[১৯] তার আগে, ২১ জুন দুই দিনের জন্য প্রধানমন্ত্রী ভারত সফরে যাবেন।

[২০] ড. শ্রীরাধা দত্ত বিবিসি বাংলাকে বলেন, দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক যতই ভালো হোক না কেন, যতদিন পর্যন্ত নদীর পানি বন্টন সমস্যার সমাধান না হয়, সেটা বাংলাদেশের কাছে একটা আঘাতের জায়গা হয়ে থাকবে।

[২১] অধ্যাপক দত্ত বলেন, ‘ইন্ডিয়া থেকে যদি রেসপন্স ভালো না পায়, তাহলে স্বাভাবিকভাবে ওরা চায়নার কাছে যাবে, এতে আশ্চর্য হওয়ার কিছু নেই।’ তবে, শেখ হাসিনা সরকার ভারতকে ‘চটিয়ে’ কিছু করবে না বলেই বিশ্বাস তার। বলেন, সে হিসেবে ভারতের ‘ইতিবাচক অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হয়েই’ বাংলাদেশের এগোনোর কথা। এমনকি তিনি মনে করেন, তিস্তা মহাপরিকল্পনায় ভারত-চীন একসাথে কাজ করতেও বাধা নেই।

[২২] তবে এ বিষয়ে বাংলাদেশের সাবেক পররাষ্ট্র সচিব তৌহিদ হোসেন বিবিসিকে বলেন, ‘চীন ভারত একদিকে এটা চিন্তা করা এখনো কষ্টকর। প্রধানমন্ত্রী চীন সফরের আগে তো আবার ভারত সফরে যাওয়ার কথা রয়েছে। ভারতও তো অর্থায়নের প্রস্তাব দিয়েছিল।

[২৩] তৌহিদ হোসেন বলেন, ‘এখন ভারত ‘অসন্তুষ্ট’ হয়, এমন কিছু বাংলাদেশ করবে বলে মনে হয় না’। তাই, কোনো চুক্তি হওয়ার আগে স্থির সিদ্ধান্তে পৌঁছানো ঠিক হবে না বলে মন্তব্য তার। সম্পাদনা: সালেহ্ বিপ্লব

এসবি২

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়