শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৫ জানুয়ারী, ২০২৩, ০১:৪৯ দুপুর
আপডেট : ২৬ জানুয়ারী, ২০২৩, ০৩:৪৪ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলওয়াল, প্রধান বিচারপতিকে আমন্ত্রণ ভারতের

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলওয়াল

ইমরুল শাহেদ: পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলওয়াল ভূট্টো ও প্রধান বিচারপতি উমর আট্টা বান্দিয়ালকে গোয়ায় মে বা জুন মাসের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত আট জাতির সাংহাই কো-অপারেশন অর্গেনাইজেশনের (এসসিও) পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের বৈঠকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। ইসলামাবাদে ভারতীয় হাই কমিশন আমন্ত্রণপত্র তাদের হাতে পৌঁছে দিয়েছেন। ভারত চলতি বছর এসসিও গোষ্ঠীর সভাপতিত্ব করছে। হিন্দুস্তান টাইমস

কূটনৈতিক সূত্রে জানা গিয়েছে, এসসিও গোষ্ঠীভুক্ত দেশগুলোর বিভিন্ন পর্যায়ের বৈঠক উপলক্ষে এই আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। একইভাবে রাশিয়া, চীন, ইরান, ভারত, পাকিস্তান এবং মধ্য এশিয়ার দেশগুলোকে নিয়ে তৈরি এই গোষ্ঠীর প্রধান বিচারপতি পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে মার্চ মাসে। ভারত আয়োজিত এসসিওভুক্ত দেশগুলোর প্রধান বিচারপতিদের বৈঠকে পাকিস্তানের প্রধান বিচারপতিকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। কিন্তু ইসলামাবাদের সূত্রগুলো বিলওয়াল ভূট্টো ও বান্দিয়াল বৈঠকে যাবেন কিনা তা নিশ্চিত করতে পারেনি। 

এর মাত্র কয়েকদিন আগে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী শেহবাজ শরীফ এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে বলেছেন, ভারতের সঙ্গে মৌলিক সমস্যাগুলো আলোচনার মাধ্যমে সমাধান করা যেতে পারে। তার কয়েকদিন পর পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ভারতের আমন্ত্রণ রাজনৈতিকভাবে তাৎপর্যবহ। এছাড়া শেহবাজ শরীফ দুই দেশকে আলোচনার টেবিলে নিয়ে আসার জন্য সংযুক্ত আরব আমিরাতকেও অনুরোধ করেছেন। তবে তিনি শর্ত জুড়ে দিয়েছেন যে, আলোচনার আগে জম্মু-কাশ্মীরের বিশেষ মর্যাদা ফিরিয়ে দিতে হবে। 

এর জবাবে ভারত বলেছে, পরিস্থিতি সন্ত্রাস ও সহিংসতা মুক্ত না হওয়া পর্যন্ত আলোচনার কথা আসে না। কিন্তু গত ডিসেম্বর মাসে নিউইয়র্কে জাতিসংঘের বৈঠকে সন্ত্রাস ইস্যুতে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকর ও বিলাওয়ালের মধ্যে উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় হয়েছে।  

যদি আমন্ত্রিত দু’জনই বৈঠকে উপস্থিত হন তাহলে তা দক্ষিণ এশিয়ার রণনীতিতে একটি মাইলফলক হয়ে উঠবে বলে মনে করছে কূটনৈতিক মহল। বহু বছর পাকিস্তানের শীর্ষ পর্যায়ের কোনও নেতাকে আসতে দেখা যায়নি ভারতে। তবে এঁদের না পাঠিয়ে হয়তো অপেক্ষাকৃত নিম্ন পর্যায়ের প্রতিনিধি পাঠাতে পারে পাকিস্তান সরকার। সম্প্রতি জাতিসংঘে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে নিহত আল কায়দা নেতা ওসামা বিন লাদেনের তুলনা টেনে কূটনৈতিক সংঘাতকে আরও বাড়িয়ে দিয়েছিলেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী।

কূটনৈতিক সূত্রের বক্তব্য, বিলাবল ভুট্টো এলে তা দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কে বড় কোনও পরিবর্তন আনবে, বিষয়টি এমন নয়। কিন্তু নিঃসন্দেহে তা বরফ গলানোর প্রাথমিক কাজটা করবে। তার পরেই অক্টোবর ও নভেম্বরে ভারতে রয়েছে এক দিনের ক্রিকেট বিশ্বকাপ। এসসিও-র বৈঠক সফল হলে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের ভারত সফরের সম্ভাবনা উজ্জ্বল হবে।

আইএস/এসএ 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়