শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৬ মে, ২০২২, ১১:৩২ রাত
আপডেট : ২৭ মে, ২০২২, ০৩:৩০ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

গোসলের ভিডিও দেখিয়ে ধর্ষণ, ছাত্রলীগ নেতা গ্রেপ্তার

মাজেদুল ইসলাম বসুনিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: রংপুরের কাউনিয়া উপজেলায় গোপনে গৃহবধূর গোসলের ভিডিও ধারণ করেন ছাত্রলীগের এক সাবেক নেতা। সেই ভিডিওর ভয় দেখিয়ে এক গৃহবধূকে (৩৬) একাধিকবার ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে সাবেক এই নেতার বিরুদ্ধে। আজ বৃহস্পতিবার অভিযুক্ত নেতাকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। 

এর আগে গতকাল বুধবার রাতে রংপুর নগরীর কেরানিপাড়া এলাকা থেকে তাঁকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গত ১১ এপ্রিল কাউনিয়া থানায় ভুক্তভোগী ওই গৃহবধূ মামলা দায়ের করেন। 

অভিযুক্ত মাজেদুল ইসলাম বসুনিয়া (২৮) কাউনিয়া উপজেলার হারাগাছ ইউনিয়নের মৃত. মহির উদ্দিন বসুনিয়ার ছেলে। তিনি হারাগাছ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক।

কাউনিয়া থানা-পুলিশ ও মামলা সূত্রে জানা যায়, উপজেলার একটি এলাকায় এক গৃহবধূর দুই সন্তানকে ৩ / ৪ বছর আগে প্রাইভেট পড়াতেন একই এলাকার মাজেদুল ইসলাম বসুনিয়া। গৃহশিক্ষক হিসেবে বাড়িতে গিয়ে প্রাইভেট পড়ানোর সুযোগে একদিন টিনের বেড়া দেওয়া গোসল খানায় কৌশলে ওই গৃহবধূর গোসলের ভিডিও ও ছবি গোপনে ধারণ করেন মাজেদুল। পরে সেই ছবি ও ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ ছড়ানোর ভয়ভীতিসহ গৃহবধূর ছেলেদের ক্ষতি করার হুমকি দিয়ে ধর্ষণ করেন মাজেদুল। 

সর্বশেষ গত বছরের ২৯ অক্টোবর বেলা সাড়ে ১১টার দিকে বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে মাজেদুল আবারও বাড়িতে গৃহবধূর বাড়িতে যান। সেখানে গিয়ে আবারও একই ভয় দেখিয়ে ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেন মাজেদুল।

একপর্যায়ে ওই গৃহবধূ নিরুপায় হয়ে ছেলেদের নিয়ে ঢাকায় চলে যান। কিন্তু সেখানে গিয়েও রেহাই মেলেনি তাঁর। ঢাকায় থাকা অবস্থায় ওই গৃহবধূকে আবারও কুপ্রস্তাব দেন তিনি। এতে রাজি না হওয়ায় অন্য নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে গত ১২ মার্চ সকাল ১০টার দিকে গৃহবধূর ছোট ছেলের (১৭) মেসেঞ্জারে আপত্তিকর ছবি পাঠান মাজেদুল। এ ছাড়াও ওই দিন বেলা ৩টার দিকে বড় ছেলের (১৮) এক বন্ধুর মেসেঞ্জারেও পাঠিয়ে দেন সেই ছবি। 

অবশেষে নিরুপায় হয়ে ওই গৃহবধূ ঢাকা থেকে গ্রামের বাড়িতে এসে গত ১১ এপ্রিল মাজেদুলকে অভিযুক্ত করে কাউনিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেন। 

এ বিষয়ে হারাগাছ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মিঠু বলেন, গত বছরের অক্টোবরে হারাগাছ ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করে কেন্দ্রীয় কমিটি। মাজেদুল ইউনিয়ন ছাত্রলীগের কমিটিতে শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। তাঁর বিরুদ্ধে যে অভিযোগ উঠেছে সেটা মাজেদুলের ব্যক্তিগত চরিত্রের বিষয়। এর দায় ছাত্রলীগ নেবে না। 

মামলার তদন্তকারী অফিসার কাউনিয়া থানার উপপরিদর্শক এসআই সামিউল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর পরেই অভিযুক্ত মাজেদুল গা ঢাকা দেন। গতকাল বুধবার রাতে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ, থানা-পুলিশ এবং রংপুর র‍্যাব-১৩ এর যৌথ অভিযান চালিয়ে রংপুর মহানগরীর কেরানিপাড়া এলাকা থেকে অভিযুক্ত মাজেদুল ইসলাম বসুনিয়াকে গ্রেপ্তার করা হয়।

কাউনিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাসুমুর রহমান জানান, ওই নারী গত ১১ এপ্রিল থানায় এসে মাজেদুলের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ করেন। ওই দিনই অভিযোগটি নারী শিশু নির্যাতন দমন আইন ও পর্নোগ্রাফি আইনে মামলা ভুক্ত করা হয়। 

রংপুর জেলা পুলিশের সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল-সি) আশরাফুল আলম পলাশ বলেন, এ ঘটনায় মামলা দায়েরের পর অভিযুক্ত মাজেদুল গা ঢাকা দেন। অবশেষে তাঁকে গ্রেপ্তার করা হয়। আজ বৃহস্পতিবার তাঁকে মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে রংপুর আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। 

  • সর্বশেষ