শিরোনাম
◈ ঘন কুয়াশায় দৌলতদিয়া-পাটুরিয়ায় ফেরি চলাচল বন্ধ ◈ নো ম্যানস ল্যান্ডে থাকা রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশ প্রবেশে নিবন্ধন প্রক্রিয়া শুরু ◈ পুলিশ কর্মকর্তার গুলিতে আহত উড়িষ্যার মন্ত্রীর মৃত্যু ◈ কারাগারে অসুস্থ রিজভীর শারীরিক অবস্থার অবনতি ◈ যুক্তরাষ্ট্র ও ইইউ’র উদ্দেশ্যে তুরস্কের পাল্টা ভ্রমণ সতর্কতা ◈ প্রমোদতরী গঙ্গা বিলাস কলকাতায়, মঙ্গলবার আসবে বাংলাদেশে ◈ ভোটের অধিকার ও গণতন্ত্র পনরুদ্ধারে আমরা একমত হয়েছি: মির্জা ফখরুল  ◈ মায়ের কাছেই থাকবে দুই জাপানি শিশু, মামলা খারিজ ◈ নেতানিয়াহুর বিরুদ্ধে জেরুজালেমে হাজার হাজার মানুষের বিক্ষোভ ◈ খোঁজ মিলছে না উকিল আবদুস সাত্তারের প্রতিদ্বন্দ্বী আসিফের

প্রকাশিত : ২৭ নভেম্বর, ২০২২, ০৭:৩৭ বিকাল
আপডেট : ২৭ নভেম্বর, ২০২২, ০৭:৩৭ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে আরপিওর অগ্রগতি জানতে চায় ইসি

ইসি ভবন

এম এম লিংকন: গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশের (আরপিও) বিধান সংশোধনের খসড়া প্রসঙ্গে আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগের (ইসি) কাছে ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে অগ্রগতি জানতে চেয়েছেন নির্বাচন কমিশন। দীর্ঘ তিনমাস ১৫ দিনের বেশি সময় অতিবাহিত হওয়ার পরও কোনো সাড়া না আসায় এই সময় বেধে দিয়েছে সাংবিধানিক এ প্রতিষ্ঠানটি। রোববার নির্বাচন কমিশনের (ইসি) উপ- সচিব আব্দুল হালিম স্বাক্ষরিত পাঠানো এক চিঠিতে এ তথ্য জানা যায়।

নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানান, ইলেক্ট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) ইভিএমে ভোটদানের ক্ষেত্রে আঙ্গুলের ছাপ না মেলায় প্রিজাইংডিং কর্মকর্তার আঙ্গুলের ছাপ ব্যবহার করে ব্যালট ইউনিট ওপেন করার ব্যবস্থাটি আরপিওতে অন্তুর্ভূক্ত করতে চাচ্ছে ইসি। পাশাপাশি বেশকিছু বিষয়ে আইনের সংস্কার চায় কাজী হাবিবুল আউয়াল কমিশন। এর আগে তিনবার পত্রযোগে অগ্রগততি জানতে চেয়েছিল সাংবিধানিক এ সংস্থা। কোনো জবাব না পেয়ে চতুর্থবারে অগ্রগতি জানাতে  সময় বেধে দিলেন কাজী হাবিবুল আউয়াল নেতৃত্বাধীন কমিশন

আব্দুল হালিম স্বাক্ষরিত চিঠিতে বলা হয়, গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ - ১৯৭২ এ কিছু সংশোধনের প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে আরপিও সংশোধন সংড়া বিল প্রস্তুত করে গত ০৮ আগস্ট তা লেজিসলেটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ, বিচার সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য পাঠানো হয়। কিন্তু দীর্ঘ সময়ে খসড়া বিলটি নিয়ে কোনো ব্যবস্থানা নেয়ায় অগ্রগতি সম্পর্কে জানতে গত ২৮ সেপ্টেম্বর জরুরি পত্র দ্বারা বিষয় নির্বাচন কমিশনকে অবগত করার জন্য অনুরোধ করা হয়। সে বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে অবহিত না করায় পরবর্তীতে ১০ অক্টোবর নির্বাচন কমিশনকে অবগত করার জন্য পুনরায় বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয় উক্ত বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে এখন পর্যন্ত অবহিত করা হয় নাই।

আরপিওর সংশোধন সংক্রান্ত খসড়া বিলের অগ্রগতির বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে আগামি ১৫ ডিসেম্বরের মধ্যে অবগত করার জন্য শেষবারের মত বিশেষভাবে সনির্বন্ধ অনুরোধ করেছে।

চিঠিতে আরো বলা হয়, বাংলাদেশের সংবিধানের ১২৬ অনুচ্ছেদের বিধান মতে দায়িত্ব পালনে নির্বাচন কমিশনকে সহায়করা সকল নির্বাহী কর্তৃপক্ষের কর্তব্য। আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় এবং উহার লেজেসটিভ ও সংসদ বিষয়ক বিভাগ রাষ্ট্র ও সরকারের নির্বাহী বিভাগের একাংশ। দায়িত্ব পালনে নির্বাচন কমিশনকে সহায়তা করা ইহার সাংবিধানিক সংবিধিবদ্ধ দায়িত্ব।

নির্বাচন কমিশন মনে করে,সংবিধান ও আইনের সুষ্পষ্ট বিধানের ব্যত্যয়ে  কমিশনের যাচিত অনুরোধ ও চাহিদা উপেক্ষিত হলে কমিশন স্বীয় দায়িত্ব পালনে আবশ্যক সক্ষমতা অর্জন করতে পারবে না। এতে নির্বাচন বিষয়ে কমিশনের সক্ষমতা, স্বাধীনতা এবং সরকারের সদিচ্ছা প্রশ্নে জনমনে অনাকাঙ্খিত সংশয়ের উদ্রেক হতে পারে।

এমএমএল/এনএইচ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়