শিরোনাম

প্রকাশিত : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০১:২৯ দুপুর
আপডেট : ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২২, ০৭:১০ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ইভিএম কিনতে ৮৭১১ কোটি টাকার ব্যয়বহুল প্রকল্প চূড়ান্ত করেছে ইসি

ইভিএম যন্ত্র

মহসীন কবির, এম এম লিংকন: দেশের অর্থনৈতিক সংকটকালে আরও ২ লাখ ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিন (ইভিএম) কিনতে ৮ হাজার ৭১১ কোটি টাকার প্রচুর ব্যয়বহুল একটি প্রকল্প প্রস্তাব চূড়ান্ত করেছে নির্বাচন কমিশন। সোমবার কমিশনের বৈঠক শেষে নির্বাচন কমিশনার মো.আলমগীর বিষয়টি নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের জানান, সরকারের অনুমোদনের জন্য এ প্রকল্প এখন পরিকল্পনা কমিশনে পাঠানো হবে।

কমিশনের বৈঠক শেষে নির্বাচন কমিশনের অতিরিক্ত সচিব অশোক কুমার দেবনাথ জানান, ইভিএম কেনতে ৮ হাজার ৭১১ কোটি টাকার প্রকল্প প্রস্তাব অনুমোদন করেছে কমিশন। এই প্রকল্পের আওতায় নতুন দুই লাখ ইভিএম কেনা হবে। এ ছাড়া ইভিএম সংরক্ষণে জনবল তৈরি ও প্রশিক্ষণের জন্য এখানে ব্যয় রাখা হয়েছে।

রাজনৈতিক বিতর্ক এবং বিশিষ্ট্য নাগরিকদের পরামর্শ উপেক্ষা করে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সর্বোচ্চ ১৫০ আসনে ইভিএম ব্যবহার করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইসি। বর্তমানে তাদের হাতে যে পরিমান ইভিএম আছেতা দিয়ে প্রায় ৭০ - ৭৫ আসনে ভোট গ্রহণ করা যাবে। বাকী ৭৫-৮০ আসনে ভোট গ্রহণে ইসির আরও প্রায় ২ লাখ ইভিএম প্রয়োজন হবে।

বর্তমানে সংকটকালে দেশ যেখানে এডিবি এবং বিশ্ব ব্যাংকের কাছে বিভিন্ন ঋণ গ্রহণ করছে সেখানে ইসির এমন ব্যয়বহুল প্রকল্প হাতে নেয়া ঠিক হবে না বলে মতামত বা পরামর্শ দিয়েছিলেন বিভিন্ন নির্বাচন নিয়ে কাজ করা বিশিষ্ট্য নাগরিকরা। তারপরেও সব কিছুকে উপেক্ষা করে এই ব্যয়বহুল প্রকল্প চূড়ান্ত করেছে ইসি।  

ইসি সূত্রে জানা যায়, এই প্রকল্পে মোটাদাগে তিনটি খাতে ব্যয় ধরা হয়েছে। এর মধ্যে আছে প্রায় দুই লাখ ইভিএম কেনা, ইভিএম সংরক্ষণের ব্যবস্থা এবং ইভিএম সংক্রান্ত জনবল তৈরি। 

চলতি বছরের আগস্টে ইসির ধারাবাহিক সংলাপে ২২টি রাজনৈতিক দল ইভিএম নিয়ে মতামত দিয়েছিল। এর মধ্যে ৯টি দল সরাসরি ইভিএমের বিপক্ষে মত দিয়েছে। আরও পাঁচটি দল ইভিএম নিয়ে সংশয় ও সন্দেহের কথা বলেছে। কেবল আওয়ামী লীগসহ চারটি দল ইভিএমে ভোট চেয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়