শিরোনাম
◈ সরকারের কাছে 'আট দফা দাবি' কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ◈ শুক্রবারের সহিংসতায় ঢাকায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩২ জনে ◈ এটা অবশ্যই কারফিউ, এটা নিয়ম অনুযায়ীই হবে এবং সেটা শুট অ্যাট সাইট হবে: ওবায়দুল কাদের ◈ কারফিউ’র পরিপত্র জারি ◈ কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণা কোটা আন্দোলনকারীদের ◈ ওবায়দুল কাদের কারফিউ জারি প্রসঙ্গে যা বললেন ◈ সারা দেশে কারফিউ জারি, সেনা মোতায়েনের সিদ্ধান্ত ◈ নরসিংদীর কারাগারে হামলার পর বের হয়ে গেছে কয়েকশ কয়েদি ◈ বাংলাদেশে সহিংসতা ও মৃত্যুর ঘটনায় জাতিসংঘের উদ্বেগ ◈ রাজধানীর উত্তরা, মোহাম্মদপুর, বাড্ডাসহ বিভিন্ন এলাকায় আন্দোলনকারীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষ

প্রকাশিত : ৩১ মার্চ, ২০২৩, ০৬:১৪ বিকাল
আপডেট : ৩১ মার্চ, ২০২৩, ০৬:১৪ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি হচ্ছে ভেজাল দুধের ছানা 

অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে তৈরি হচ্ছে নকল দুধের ছানা

ফিরোজ আহম্মেদ, ঝিনাইদহ: মিষ্টি তৈরির প্রধান উপকরণ দুধের ছানা। আর এই ছানা তৈরি হচ্ছে বিষাক্ত কেমিক্যাল এবং আসল দুধ পরিমানে কম দিয়ে ভেজাল দুধ দিয়ে। 

উপজেলার গাজীর বাজার সংলগ্ন শুধু রাকড়া গ্রামের অবৈধ ভাবে এবং অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে গড়ে উঠেছে ছানা তৈরির বেশ কয়েকটি কারখানা। গরুর গোয়ালে নোংরা পরিবেশে তৈরি করা এসব ছানা যাচ্ছে ঝিনাইদহ, কালীগঞ্জ, মাগুরা যশোরসহ আশপাশের এলাকার নামী দামী মিষ্টির হোটেলগুলোতে।

জানা যায়, গত কয়েক বছর ধরে হঠাৎ এ এলাকার ঘোষ সম্প্রদায়ে মানুষ ছানা তৈরির কারখানার দিকে বেশ আগ্রহী হয়ে উঠেছে। অনেকে পেশা পাল্টে ছানা তৈরির ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েছে। গ্রামটিতে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে প্রায় ৫/৬ টি ছানা তৈরির কারখানা গড়ে উঠেছে। 

গোবিন্দ ঘোষের কারখানায় দেখা যায়, তিনি তার বাড়ির গোয়াল ঘরের কারখানাটিতে আসল দুধের অস্তিত্ব খুবই কম থাকলেও গুড়ো দুধ দিয়ে চলছে ছানা তৈরীর কাজ। গোয়াল ঘরের চালে ঝুলছে অপরিষ্কার কাপড়ে মোড়ানে ছানা। পাশেই নর্দমায় যাচ্ছে সেই দূষিত পানি। দুর্গন্ধে সেখানে থাকা ছিল কষ্ঠকর। 

গাজীর বাজারে আরেকটি বড় কারখানার মালিক সত্যজিৎ ঘোষ, যে কারখানায় দীর্ঘদিন ধরে অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে, মশা, মাছির, গরুর মল, মূত্রের মধ্যে এবং নোংরা পানি দিয়েই ছানা তৈরী করে। 
তিনি বলেন, গুঁড়ো দুধ গুলো ক্ষতিকর। গুঁড়ো দুধ ব্যবহার করে ছানা তৈরি করে বিক্রি করা ঠিক না। আর আসল দুধ দিয়ে ছানা তৈরি করলে সেই হিসাবে দাম পাওয়া যায় না। তাই গুঁড়ো দুধ ব্যবহার করে ছানা তৈরি করতে হয়।

ক্ষতিকর কেমিক্যালের ব্যবহারের কথা জিজ্ঞাসা করলে কোন কথা না বলে মাথা নিচু করে থাকেন।
কোলাবাজারের মাইধরপুর রোড়ের পাশে বনের ভিতরে আরেকটি অবৈধ ছানা তৈরীর কারখানার সন্ধান মেলে। দেখা যায়, ছানা তৈরীর দুধের ভিতর মশা মাছিতে ভর্তি হয়ে গেছে।

ময়লা পানির ভিতর ছানা ভিজিয়ে রাখা হয়েছে। যে পানি দিয়ে অতিরিক্ত দূর্গন্ধ বের হচ্ছে। নোংরা পরিবেশে তৈরী করছেন ছানা, ঘি এবং এক প্রকার আঠা। যে আঠা তৈরির অনুমোদন নেই। এই আঠা ঢাকাসহ বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করে থাকেন। এসব কারখানার মালিকগণ বৈধ্য কোনো কাগজপত্র দেখাতে পারেনি। সম্পাদনা: ইস্রাফিল ফকির 

প্রতিনিধি/আইএফ/জেএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়