শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৫ নভেম্বর, ২০২২, ০৩:৪৬ দুপুর
আপডেট : ২৫ নভেম্বর, ২০২২, ০৩:৪৬ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বিএনপির গণসমাবেশ 

৩ দিন আগেই গণসমাবেশস্থলে রাজমিস্ত্রী লোকমান

রাজমিস্ত্রী লোকমান

শাহাজাদা এমরান, কুমিল্লা : লোকমান হোসেন। পেশায় রাজমিস্ত্রী। করেন না কোন রাজনীতি।তিন মেয়ে ও এক ছেলের পিতা হলেও নিজে কাজ না করলে ভাত জুটে না তার।  দিন মজুরের হেলপারের কাজ করে সংসার চলে বুড়া বুড়ির । একদিন কাজ না করলে চুলায় আগুন ধরে না। কিন্তু কুমিল্লা থেকে ১৫০ কিলোমিটার দূরের পথ পাড়ি দিয়ে পরিবহন ধর্মঘটের আতঙ্কে গণসমাবেশের তিন দিন আগেই কুমিল্লা টাউন হল মাঠে হাজির হয়েছেন তিনি। বয়স তার প্রায় ৬৫ বছর হবে ।

কেউ তাকে কুমিল্লার গণসমাবেশে আসতে উৎসাহও দেননি। তবু শুধু মাত্র দ্রব্যমূল্যের উর্ধ্বগতির কারণে সরকারের প্রতি ক্ষোভ জানাতেই কুমিল্লায় এসেছেন তিনি। জানিয়েছেন এ প্রতিবেদককে শুক্রবার দুপুরে কুমিল্লা টাউনহল মাঠে। 

চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলার পূর্ব গোপ্তী ইউনিয়নের মানবী গ্রামে তার জন্ম। লোকমান হাকিমের গ্রামের বাড়ি থেকে কুমিল্লা নগরীর টাউন হল মাঠের দুরুত্ব প্রায় ১৫০ কিলোমিটার হবে। পরিবহন ধর্মঘট হতে পারে এই আতঙ্কে তার এলাকার দুই হাজারের উপর বিএনপির নেতাকর্মী বুধবার রাতেই কুমিল্লা শহরে এসে পৌঁছেছেন। বৃহস্পতিবার থেকে গাড়ি চলবে না এই ভয়েই তারা আগে চলে এসেছেন। স্থানীয় যুবদল নেতা ও প্রতিবেশী হাবিবুর রহমান মোল্লাকে বলেছেন, আমি কুমিল্লা গণসমাবেশে যাইতে চাই বাজান। হাবিব মোল্লা প্রথমে রাজি না হলেও পরে লোকমান মিয়ার পিড়াপিড়িতে তাকে নিয়ে আসেন। 

শুক্রবার(২৫ নভেম্বর)  দুপুর সাড়ে ১২টায় কুমিল্লা টাউন হলের পশ্চিম প্রান্তে টাউন হল সুপার মার্কেট সংলগ্ন স্থানে গিয়ে দেখা যায়, এই পশ্চিম প্রান্তে চাঁদপুর জেলার বিভিন্ন উপজেলার কয়েক হাজার নেতাকর্মী উপজেলা ভিত্তিক ভাগে ভাগে কাথা বালিশ নিয়ে  বিছানা বিছিয়ে কেউ ঘুমাচ্ছে, কেউ গল্প করছে আবার কেউ স্লোগানে স্লোগানে প্রকম্পিত করে রাখছে গোটা টাউন হল।

ফরিদগঞ্জ উপজেলার নেতাকর্মীদের জন্য নির্ধারিত স্থানে গিয়ে দেখা যায়, এক বৃদ্ধ ঝিমাচ্ছে। চাচা বলে ডাক দেয়ার সাথে সাথেই বসা থেকে দাঁড়িয়ে গেলেন। সাথে জড়ো হলো আরো কয়েক নেতাকর্মী। চাচা কি বিএনপি করেন জানতে চাওয়ার সাথে সাথেই জবাব দিলেন, না বাজান। আমি কোন রাজনীতি করি না। রাজ মিস্ত্রীর জোগালী কাজ করে বুড়াবুড়ির সংসার চলে।

বিএনপি না করলে এখানে কেন আসলেন জানতে চাইলে লোকমান হোসেন বলেন, বাজানরে, আগে এক রোজ কাজ করলে ২ দিন খাইতে পারতাম না। অহন ঠিকমত কামও নাই। আবার কাম অইলে এক রোজে যেই ট্যাহা (টাকা) দেয় হেই ট্যাহা দিয়া এক দিনেও অয় না।

বিএনপি দ্রব্যমূল্যের দাম কমানোর জন্য যেই সমাবেশ চিটাগাং করছিল হেই চিটাগাংও যাওয়ার ইচ্ছা ছিল্ কিন্তু কেউ নেয় নাই। আমার কাছে ট্যাহাও নাই। এইবার যহন কুমিল্লা অইতেছে বউয়েরে কইছে কেউর লগে না যাইতে পারলেও আইট্টা আইট্টা অইলেও যামু।  আমরা যে চলতে পারি না, না খাইয়া থাহি, পেট ভরে না, বুক লাগে(ক্ষুধা)এই জন্য শেখের মাইয়ার সরকারের প্রতি প্রতিবাদ জানাইতে কুমিল্লা আইছি। 

প্রতিনিধি/জেএ

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়