শিরোনাম
◈ স্বল্প সংখ্যক কোটা থাকতে পারে অনগ্রসর ও প্রতিবন্ধিদের জন্য: জি এম কাদের ◈ ৫ শতাংশ কোটা রেখে সংসদে আইন পাসের দাবিতে ২৪ ঘণ্টার আলটিমেটাম ◈ রেলওয়ের চাকরিতে ৪০ শতাংশ পোষ্য কোটা কেন অবৈধ নয়: হাইকোর্ট ◈ আন্দোলনকারীদের ওপর পুলিশ লেলিয়ে দেবেন না: সুপ্রিম কোর্ট বার সভাপতি ◈ জামালপুরে বন্যার পানিতে গোসলে নেমে ৪ জনের মৃত্যু ◈ সাংবাদিকদের পেনশন স্কিমে যুক্ত হওয়ার পরামর্শ প্রধানমন্ত্রীর ◈ মুক্তিযুদ্ধ ও মুক্তিযোদ্ধাদের বিরুদ্ধে এতো ক্ষোভ কেনো, প্রশ্ন প্রধানমন্ত্রীর ◈ ট্রাম্পের ওপর হামলা নিন্দনীয়: শেখ হাসিনা  ◈ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটিকে আর্তমানবতার সেবায় আরও আন্তরিকতার সাথে দায়িত্ব পালনের আহ্বান রাষ্ট্রপতির ◈ কোটা প্রসঙ্গে আদালতের রায়ের বিরুদ্ধে এখন আমার বলার কিছুই নাই: প্রধানমন্ত্রী 

প্রকাশিত : ২৩ জুন, ২০২৪, ০৮:০৩ রাত
আপডেট : ২৩ জুন, ২০২৪, ০৮:০৩ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

চাঁপাইনবাবগঞ্জে শিশু হত্যা মামলায় একজনকে যাবজ্জীবন

মো. আসাদুল্লাহ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ: [২] শিশু হত্যার দায়ে মো. মোখলেসুর ওরফে মুখলেসুর রহমান (৫২) নামের একজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একই সাথে তাকে ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ৬ মাস বিনাশ্রম কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়াও অপর একটি ধারায় তিনবছর সশ্রম কারাদণ্ড ৫ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে আরও ১ মাস বিনাশ্রম  কারাদণ্ড প্রদান করেন আদালত। রায়ে উল্লেখ করা হয়, আসামিকে একটি সাজার পর অপর সাজাটি ভোগ করতে হবে। 

[৩] রোববার বিকেলে চাঁপাইনবাবগঞ্জের সিনিয়র দায়রা জজ মোহা. আদীব আলী আসামির উপস্থিতিতে এ রায় ঘোষণা করেন।

[৪] দণ্ডিত ব্যক্তি জেলার গোমস্তাপুর উপজেলার বাঙ্গাবাড়ী ইউনিয়নের দাঁড়িপাতা টেন্ডার গ্রামের মৃত সোহরাব হোসেনের ছেলে।

[৫] মামলার বরাত দিয়ে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী মো. নাজমুল আজম জানান, ২০২২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি হামিম নামের সাত বছরের এক শিশু খেলতে বের হয়ে নিখোঁজ হয়। পরে দিন ২২ ফেব্রুয়ারি দাঁড়িপাতা গ্রামের একটি ফসলের ক্ষেত থেকে হামিমের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। এঘটনায় একই দিন হামিমের পিতা  রেজাউল করিম বাদী হয়ে গোমস্তাপুর থানায় মামলা দায়ের করেন।

[৬] তিনি আরও জানান, শিশু হামিম মো. মোখলেসুর ওরফে মুখলেসুর রহমানের চায়ের দোকানে বসে রিমোর্ট নিয়ে টিভির চ্যানেল পরিবর্তন করতে থাকে। এক পর্য়ায়ে মুখলেসুর ক্ষিপ্ত হয়ে শ্বাসরোধ করে হামিমকে হত্যা করে একটি ফসলের ক্ষেতে ফেলে রাখে। মামলার একদিন পর মুখলেসুরকে আটক করে পুলিশ।

[৭] মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গোমস্তাপুর থানার তৎকালীন ওসি দিলীপ কুমার দাস একই বছরের ৩১ মে তদন্ত শেষে মুখলেসুর রহমানকে অভিযুক্ত করে আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। মামলার দীর্ঘ শুনানী ও সাক্ষগ্রহণ শেষে আদালতের বিচারক এই দন্ডাদেশ প্রদান করেন।

প্রতিনিধি/একে

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়