শিরোনাম
◈ মূল্যবৃদ্ধির প্রতিবাদে উত্তাল সিয়েরা লিওন, নিহত অন্তত ২৭ ◈ নিম্নআয়ের মানুষ ১০০ টাকায় কবর দিতে পারবেন ডিএনসিসির কবরস্থানে ◈ প্রেমের টানে দিনাজপুরে অস্ট্রিয়ান প্রকৌশলী ◈ আইএসের বোমা হামলায় মারা গেছেন তালিবানের এক শীর্ষ আলেম ◈ কুষ্টিয়ায় হত্যা মামলায় চার জেএমবিসহ ছয় জনের যাবজ্জীবন ◈ ঢাকার ৪ কেন্দ্রে হবে 'বি' ইউনিটের গুচ্ছ পরীক্ষা ◈ রাতে হাতে মেহেদী দিয়ে ঘুমালেন কিশোরী, সকালে মা দেখলেন ঝুলন্ত মরদেহ ◈ ‘হাওয়া’ সিনেমায় বন্য প্রাণী আইন লঙ্ঘিত হয়েছে: বন্য প্রাণী অপরাধ দমন ইউনিট ◈ ব্যাংকক পৌঁছলেন গোটাবায়া রাজাপাকসে ◈ নারী চিকিৎসককে গলা কেটে হত্যা, প্রেমিক গ্রেপ্তার

প্রকাশিত : ০৫ জুলাই, ২০২২, ০৭:৩০ বিকাল
আপডেট : ০৫ জুলাই, ২০২২, ০৭:৩০ বিকাল

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ঢাবির ভর্তি পরীক্ষায় অর্ধেকে নেমে এসেছে পাসের হার

সাদেকা হালিম

শরীফ শাওন: এসএসসি এবং এইচএসসিতে ভালো ফলাফলের ছড়াছড়ি হলেও বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে ভর্তি পরীক্ষায় পাসের হারে উল্টো চিত্র দেখা যায়। শিক্ষাবিদদের মতে, ক্রমান্বয়ে শিক্ষার মান কমে যাওয়াই এর প্রধান কারণ। তারা জানান, স্কুল-কলেজে শিক্ষার্থীদের মুখস্ত বিদ্যা এবং সংশ্লিষ্ট শিক্ষকদের পাঠদানে সঠিক জ্ঞানের অভাবেই পাবলিক পরীক্ষাগুলোতে শিক্ষার্থীরা পিছিয়ে পড়ছে। 

মঙ্গলবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) ঘ’ ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা হয়। এতে দেখা যায়, পাসের হার ৮.৫৮ শতাংশ। যা বিগত ২০১৭ সালের পাসের তুলনায় প্রায় অর্ধেক। সেবছর সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদভুক্ত ঘ’ ইউনিটে পাসের হার ছিলো ১৪.৩৫ শতাংশ।

২০১৮ সালে পাসের হার প্রায় দ্বিগুণ ২৬.২১ শতাংশ হলেও এ ফল প্রশ্নবিব্ধ করা হয়। ২০১৯ সালে ১৩.২৬ এবং ২০২১ সালে পাসের হার ছিলো ৯.৮৭ শতাংশ। এতে দেখা যাচ্ছে ক্রমশই কমে এসেছে পাসের হার। 

এর আগে ঢাবি উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান জানান, রেজাল্ট নিয়ে তুলনা না করা ভালো। একেকটা ইউনিটের স্বতন্ত্র বৈশিষ্ট্য আছে। যেসব ছেলে-মেয়ে এই তালিকায় নেই, তারা আবার অন্যত্র পরীক্ষা দিলে হয়ত এক/দুইও হয়ে যেতে পারে। 

উপাচার্যের বক্তব্যের বিষয়ে বুয়েটের সিএসই বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ বলেন, লাখ লাখ শিক্ষার্থী যেখানে পরীক্ষা দেয় তার ফলাফলকে অনির্ভরযোগ্য বলা যাবে না। ঢাকা শহরের এক লাখ মানুষের গড় বয়স দিয়ে বাংলাদেশের মানুষের গড় বয়স যেমন বের করা যায়। আমাদের পড়ালেখার মান ভালো না, তাই (ঢাবি উপাচার্যের) এসব কথা বলে কাজ হবে না। আমাদের ঘুরে দাঁড়াতে হবে। 

ড. কায়কোবাদ বলেন, ঢাবির ভর্তি পরীক্ষার ফলাফল নিশ্চই ধীরে ধীরে কমে আসবে। তিন-চার বছর আগে দেখেছি ইংরেজি পরীক্ষায় কেউ পাস করেনি, এমন একটি ফল প্রকাশ পেয়েছে। এটি একটি অশনি সংকেত। স্কুল-কলেজ পর্যায়ে যারা শিক্ষা ব্যবস্থায় জড়িত, তাদের চিন্তা করতে হবে বিশ^বিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় যারা ক্রমান্বয়ে খারাপ করেছে, তাদের স্কুল-কলেজে নিশ্চই পড়ালেখার মান ভালো ছিলো না। 

আমরা যে মধ্যম আয়ের দেশ তৈরি করতে চাই, ঝাড়ু দিয়ে তা সম্ভব না জানিয়ে তিনি বলেন, এখানে বিশ্বমানের শিক্ষা যদি দিতে না পারি, আমাদের দেশের ভালো ভালো কাজ বিদেশিরাই করবে। আমরা শুধু বিদেশেই ঝাড়ু দেব না, দেশেও ঝাড়ু দেওয়ার যথেষ্ট সুযোগ তৈরী হচ্ছে। একসময় কোরিয়া ও মালয়েশিয়ার শিক্ষার্থীরা আমাদের দেশে পড়তে আসতো, আজ আমাদের দেশ থেকে শিক্ষার্থীরা সেখানে যায়। উন্নতি, অগ্রগতি হলো আপেক্ষিক। অন্যান্য দেশের সঙ্গে আমাদের অবস্থান কী, তা খুব গুরুত্বপূর্ণ। সকলের সঙ্গে দ্রুত দৌঁড়াতে না পারলে মনে করতে হবে আমরা পেছনের দিকে যাচ্ছি, এবং আমরা তাই করছি।

শিক্ষাবিদ সাদেকা হালিম বলেন, আমাদের বেসিক শিক্ষায় সমস্যা আছে যে লেখাপড়ার মান এতটাই নিচের দিকে নামতে শুরু করেছে। স্কুল-কলেজে যারা শিক্ষাদান করছেন তাদের বিষয়ে প্রশ্ন আছে জানিয়ে বলেন, যারা ট্রেইনার আছেন, শিক্ষকতা করছেন, তারাও সঠিক জ্ঞান নিয়ে পড়াতে না পারায় বড় বড় পাবলিক পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করে শিক্ষার্থীদের পাসের হার কমে যাচ্ছে। 

এই শিক্ষাবিদ জানান, মূল সমস্যা দেখছি, এসএসসি-এইচএসসিতে অনেকেই ভালো ফলাফল করছে, তাদের প্রত্যাশা বেড়ে যাচ্ছে। তবে অধিকাংশই মুখস্ত বিদ্যা। ঢাবির ভর্তি পরীক্ষার যুদ্ধে ক্রিয়েটিভ হতে হবে, ক্রিটিক্যাল ইনসার্ট থাকতে হবে, পত্র-পত্রিকা ও স্বাধারণ জ্ঞান থেকে শুরু করে আন্তর্জাতিক বিষয়ে জ্ঞান থাকতে হবে। ইস্যু ভিত্তিক প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। আমরা দুই তিন বছর থেকে কোয়ালিটি রক্ষায় বাংলা, ইংরেজি, ইনোভেটিভ বিষয়গুলো যুক্ত করেছি। এর ফলে যারা প্রকৃত মেধাবী কেবল তারাই ভর্তি পরীক্ষায় ভালো করছে। তিনি জানান, বিশ্ববিদ্যালয় ভর্তি পরীক্ষায় সব কিছু তো পাঠ্য থেকে আসবে না। 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়