শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৪ জুন, ২০২২, ০২:৪২ দুপুর
আপডেট : ২৪ জুন, ২০২২, ০৩:০৫ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

নতুন শিক্ষাক্রমে ধর্ম শিক্ষা বাতিলের প্রচারণাটি বানোয়াট: এনসিটিবি

জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড

শরীফ শাওন: ধর্ম শিক্ষাকে বাদ দেওয়ার কোনো সুযোগ বা পরিকল্পনা সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠান বা সরকারের নেই বলে জানিয়েছে জাতীয় শিক্ষাক্রম ও পাঠ্যপুস্তক বোর্ড (এনসিটিবি)। শিক্ষা জাতির ভবিষ্যৎ উল্লেখ করে প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষাক্রম নিয়ে বিভ্রান্তিকর তথ্য ছড়ানো থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানানো হয়।

এতে বলা হয়, আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মের শিক্ষাকে নিয়ে যে কোনো প্রকার বিভ্রান্তি জাতীর জন্য কল্যাণকর নয়। একইসঙ্গে ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তোলার জন্য নতুন শিক্ষাক্রম বাস্তবায়নে সবার সহযোগিতা কামনা করছি। 

বৃহস্পতিবার এনসিটিবির বিজ্ঞপ্তিতে উদ্বেগ প্রকাশ করে বলা হয়, সম্প্রতি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এ শিক্ষাক্রম সম্পর্কে বিভ্রান্তিকর তথ্য প্রচার করছে যে নতুন শিক্ষাক্রমে ধর্ম শিক্ষাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। একটি রাজনৈতিক দলও এই বিষয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছে। এই পরিপ্রেক্ষিতে এনসিটিবি এই বিষয়ে বিভ্রান্তি নিরসনের জন্য ঘোষণা করছে যে উল্লিখিত প্রচারণাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট।

বিজ্ঞপ্তিতে এনসিটিবি জানায়, নতুন শিক্ষাক্রমে দেশের চারটি ধর্মের শিক্ষার্থীদের জন্য পৃথক চারটি পাঠ্যপুস্তক রাখা হয়েছে। দেশের স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আরবি ও ইসলাম শিক্ষা বিষয়ের বিশিষ্ট শিক্ষকরা এই পাঠ্য প্রণয়ন করেছে। নতুন শিক্ষাক্রমে ধর্ম শিক্ষাকে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ধর্মীয় আচার, আচরণ ও মূল্যবোধ চর্চাকে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষাক্রম পরিমার্জন ও উন্নয়নের জন্য একটি রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান। শিক্ষাক্রম পরিমার্জন একটি স্বাভাবিক ও চলমান প্রক্রিয়া। জ্ঞান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উন্নয়নের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে শিক্ষাকে যুগোপযোগী করার জন্য শিক্ষাক্রমকে প্রতিনিয়ত পরিমার্জন করতে হয়। এই লক্ষ্যে ইতোমধ্যে জাতীয় শিক্ষাক্রম রূপরেখা ২০২১ প্রণয়ন করা হয়েছে।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়