শিরোনাম

প্রকাশিত : ২৩ জানুয়ারী, ২০২২, ০৩:৪১ রাত
আপডেট : ২৩ জানুয়ারী, ২০২২, ০৩:৪১ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

লীনা পারভীন:ভিসি সমস্যার সমাধান করা সরকারের প্রাথমিক দায়িত্ব

লীনা পারভীন: বিশ্ববিদ্যালয়ের আন্দোলন মানেই প্রথমে ছোট ইস্যু দিয়ে শুরু হয়। তারপর অযত্ন অবহেলায় সেটা ভিসি অবরুদ্ধ পর্যন্ত গড়ায়। আমরা যখন ক্যাম্পাসে আন্দোলনে নামতাম তখনো বিষয়টা এমনি ছিলো। সব আন্দোলনের কিছু ছকবাঁধা নিয়ম আছে। হলের ইস্যু নিয়ে আন্দোলন শুরু করে ভিসি পর্যন্ত তখনোই যায় যখন প্রভোস্ট বা হলের প্রশাসন ব্যর্থ হয়। এই ব্যর্থতার দায়ে প্রভোস্টকে অফিসে আটকে রেখেছি অনেকবার। পানি, কারেন্ট বন্ধ করে দিয়েছি এমন ঘটনাও ছিলো। তবে শেষ পর্যন্ত ভিসি এসে সমাধান দিয়েছে বা আমাদের শান্ত করেছে। যুগ যুগ ধরে একই ধারাতেই চলছে ছাত্রদের আন্দোলন। সাস্টের ক্ষেত্রে কিছুই ব্যতিক্রম ছিলো না। নিজের অভিজ্ঞতা থেকে বলছি, ছাত্রদের ঠান্ডা করার জন্য না বরং গরম করার জন্য পুলিশ লাগে। ঠান্ডা করতে লাগে কেবল ইতিবাচক স্নেহ বা তাদের প্রতি মমতার দৃষ্টি। কৌশলী হল/বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কখনো পুলিশের লাইনে হাঁটে না। তারা আদরের লাইনে যায়। সাস্টের ভিসির কী এমন পেটের পীড়া ছিলো যে তিনি শুরুতেই ছাত্রদের প্রতিপক্ষ করে দিলেন? বিশ্ববিদ্যালয়ের অন্য শিক্ষকদের কী সমস্যা? তারা কেন সব মুখে কুলুপ এঁটে রেখেছেন?
সরকারের উচিত এই ঘটনাকে আর বাড়তে না দেওয়া। ভিসি ইস্যুতে আপনাদের ‘ইগো’ আছে জানি কিন্তু একজন অ-আওয়ামী লীগার ভিসির জন্য কি আপনি আপনার ভবিষ্যৎ সমর্থকদের হাতছাড়া করবেন? আমি যদি বলি আজকের এই পরিণতি ফরিদ উদ্দীনের নিজস্ব রাজনৈতিক এজেন্ডার ফল? অস্বীকারের আগে যুক্তি দেবেন। মাথায় রাখা দরকার যে শুরুটা বিশ্ববিদ্যালয় দিয়েই হয়। অতি সত্ত্বর সাস্টের ভিসি সমস্যার সমাধান করা সরকারের প্রাথমিক দায়িত্ব। ছাত্রদের আর কষ্ট দেবেন না। ভিসির বিষয়ে কী করবেন সিদ্ধান্ত আপনাদের, কিন্তু ছাত্রদের অবিলম্বে রাস্তা থেকে বুকে তুলে নেন। ফেসবুক থেকে

 

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়