প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মুক্তাগাছায় আওয়ামী লীগের অফিস ভাংচুর, আটক ৪

হজরত আলী: [২] ৩য় ধাপের ইউপি নির্বাচনে মুক্তাগাছা উপজেলার ৯ নং কাশিমপুর ইউনিয়নে ৫ টি নৌকার অফিস ভাংচুরের ঘটনায় ৪ জনকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে এলাকাবাসী।

[৩] সোমবার রাত ২ টার দিকে শতাধিক মোটরসাইকেল বহর নিয়ে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান ইফতেখার চৌধরী সুমন এর নেতৃত্বে ইউনিয়নের গোলায় তাজপুর,চারানীর মোড়,ঝনকা বাজার, ব্যাপারী পাড়া, মহিষতার কদমতলী বাজারসহ বেশ কয়েকটি এলাকার নির্বাচনী প্রচার কেন্দ্রে হামলা চালিয়ে নৌকার অফিস ভাংচুর, নৌকায় অগ্নিসংযোগের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় এলাকাবাসী ৪ জনকে আটক করে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করেছে।

[৪] নৌকার প্রার্থী ও সাবেক চেয়ারম্যান মোয়াজ্জেম হোসেন তালুকদার অভিযোগ করেন, সুমন চৌধুরী তার পরাজয় নিশ্চিত দেখে, আমার বিভিন্ন ওয়ার্ডের নৌকার অফিস ভাংচুর করে, নৌকায় আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দিয়ে নির্বাচনকে বান্চাল করতে চাইছে।

[৫] স্থানীয় এলাকাবাসী জিয়াউর রহমান বলেন,রাত আনুমানিক ২ টার দিকে ঝনকা বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে হঠাৎ সুমন চৌধুরীর মোটরসাইকেলের সাইরেনের শব্দ শুনতে পাই। ঠিক ওই সময় আমাকে ফোনে জানায় মহিষতারা কদমতলী বাজারে নৌকার অফিস ভাংচুর করে নৌকায় আগুন জ্বালিয়ে পুড়িয়ে দিয়ে গেছে আনারসের লোকজন। এ সংবাদ পেয়ে আমি ও আমার সাথে আরো আট দশ জন লোক ঝনকা বাজার দাঁড়াই। কিছুক্ষণের মধ্যেই শতাধিক মোটরসাইকেল বহরটি আমাদের সামনে আনারসের শ্লোগান দিয়ে গোলায় তাজপুরের দিকেচলে যায়। তার কিছুক্ষণ পরেই সংবাদ আসে গোলায় তাজপুর চারানীর মোড়ের নৌকাসহ অফিস ভাংচুর করে আবার ঝনকার দিকে ফিরে এসে আমাদের সামনে ঝনকা বাজারের অফিস ভাংচুর শুরু করে। ওই সময় চারানীর মোড় ও ঝনকা এলাকার লোকজন একত্র হয়ে ধাওয়া করা হয়।এ সময় ৩জনকে আটক করি পরে তাদেরকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করি।

[৬] বর্তমান চেয়ারম্যান ও আনারস প্রতীকের প্রার্থী ইফখার চৌধুরী সুমন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এ সব অভিযোগ মিথ্যা। আমাকে ফাঁসানোর জন্য একটা গভীর ষড়যন্ত্র।

[৭] থানা পুলিশ জানায়, এ ব্যপারে মামলা হয়েছে এবং গ্রেপ্তারকৃত ৪ জন বনবাংলা গ্রামের রাসেল,সুজন রাজভর, মহিষতারা গ্রামের স্বপন মিয়া,ও নামা মহিষতারা গ্রামের খোরশেদ আলম কে আটক করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। সম্পাদনা: শান্ত

 

সর্বাধিক পঠিত