প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] গোপালগঞ্জে বিশ্ববিদ্যালয় ও মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ, প্রতিবাদে মানববন্ধন

এস এম সাব্বির :[২] জেলার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংঘর্ষ ঘটনা ঘটে। এ সময় ভাংচুর করা হয় মেডিকেল কলেজের ভবনের গ্লাস। রোববার রাত ৯টার দিকে নব নির্মিত মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে এ ঘটনা ঘটে।

[৩] আজ সোমবার দুপুরে শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের শিক্ষার্থীদের উপর হামলা ও কলেজে ভাংচুর করার প্রতিবাদে এবং দোষীদের শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করেছে ওই প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা। কলেজ ক্যাম্পাসের জিমনেসিয়ামের সামনে এ মানববন্ধন কর্মসূচী পালিত হয়।

[৪] মানববন্ধন চলাকালে বক্তারা মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসের নিরাপত্তার দাবীসহ কলেজে হামলা ও ভাংচুরের সাথে বিশ্ববিদ্যালয়ের যে সকল শিক্ষার্থী জড়িত তাদের দ্রুত আইনের আওতায় এনে বিচারের দাবী জানান।

[৫] এদিকে প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থীরা ছাত্রীদেরকে ইভটিজিংয়ের কথা অস্বীকার করে জানিয়েছে, আমাদের মাঠে ক্রিকেট খেলতে দেয়া হবে না বলে এ ঘটনা সাজানো হয়েছে।

[৬] প্রসংগত, ইভটিজিং এর ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষের সময় ইটের আঘাতে সদর থানার ওসি, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও সংবাদকর্মীসহ অন্তত ৪০জন আহত হয়। এ সময় মেডিকেল কলেজের বিভিন্ন ভবনের কাঁচ ভাংচুর হয়েছে। আহতদের মধ্যে ৫ জনকে গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। থেমে থেমে চলা ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া নিয়ন্ত্রনে আনতে বেশ কয়েক রাউন্ড টিয়ার সেল নিক্ষেপ করে পুলিশ। রাত ১২টায় পরিস্থিতি শান্ত হয়।

[৭] শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডাঃ জাকির হোসেন জানিয়েছেন, মেডিকেল কলেজ মাঠে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা নিয়মিত ক্রিকেট খেলে থাকে। এ সময়ে মাঠের পাশ দিয়ে মেডিকেল ছাত্রীরা গেলে তাদের উদ্দেশ্য করে তারা নানা মন্তব্য করে থাকে। যে কারনে ওই মাঠে ক্রিকেট খেলতে নিষেধ করে মেডিকেল শিক্ষার্থীরা। এই নিষেধ করা নিয়েই সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত