প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মাছ উৎপাদনে যারা দক্ষ, তাদের ব্রুনাইয়ে নিয়ে যেতে চাই: হাইকমিশনার

খালিদ আহমেদ: [২] বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রুনাইয়ের হাইকমিশনার হারিস বিন ওসমান বলেছেন, ‘আমরা ব্রুনাইয়ে মাছ উৎপাদনকে আরও উন্নত ও গতিশীল করতে চাই। তাই এই অঞ্চলে মাছ উৎপাদনের উন্নতি ও অগ্রগতি পর্যবেক্ষণ করতে এসেছি।’

[৩] শনিবার ভৈরবে মেঘনা নদীতে ভ্রমণের সময় হাইকমিশনার হারিস বিন ওসমান এসব কথা বলেন। সকাল নয়টার দিকে ভৈরবে পৌঁছান তিনি। পরে ভ্রমণে যান মেঘনা নদীতে।

[৪] এ সময় তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ব্রুনাই ও বাংলাদেশের মধ্যে দ্বিপক্ষীয় চুক্তি রয়েছে, যার মধ্যে মাছবিষয়ক একটি চুক্তি আছে। বাংলাদেশ থেকে মাছ উৎপাদনে প্রযুক্তি ও দক্ষ বিশেষজ্ঞদের ব্রুনাইয়ে নেওয়া হবে। সেখানে এসব প্রয়োগ করে মাছের উৎপাদন বাড়ানোর চেষ্টা চালানো হবে। মাছের বিষয়ে বড় কোনো উদ্যোক্তা যদি ব্রুনাইয়ে বিনিয়োগ করতে চান, সেই সুযোগও দেওয়া হবে।

[৫] হাইকমিশনার হাজী হারিস বিন ওসমান ভৈরবে এসে প্রথমে আনোয়ারা জেনারেল হাসপাতাল (প্রাঃ) নামে একটি বেসরকারি হাসপাতাল পরিদর্শন করেন। তখন হাসপাতালটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক আজিজুল হক হাইকমিশনারকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান। এ সময় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ সাদিকুর রহমানও উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাঁকে ফুল দিয়ে স্বাগত জানান।

[৬] হাইকমিশনারের মুখপাত্র সাইমন হোসাইন সাঈফ জানান, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৮ সালে ব্রুনাইয়ে সফর করেন। সে সময় ব্রুনাইয়ের সুলতান হাসসান আল-বলকিয়াহর উপস্থিতিতে দুই দেশের মধ্যে পাঁচটি বিষয়ে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। এর একটি হচ্ছে মিঠাপানির মৎস্য আহরণ ও এ ক্ষেত্রে ব্রুনাই কীভাবে প্রযুক্তিগত সহায়তা দিতে-নিতে পারে এ সংক্রান্ত। বাংলাদেশ হচ্ছে মিঠাপানির মাছের জন্য সারা বিশ্বের মধ্যে চতুর্থ। কিশোরগঞ্জ এলাকা এই মাছের অন্যতম আধার। চুক্তি বাস্তবায়নের ধারাবাহিকতায় সরেজমিনে এই এলাকা পরিদর্শন করে তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করবেন হাইকমিশনার। পরবর্তীত সময়ে এ বিষয়ে কী পদক্ষেপ নেওয়া যায়, সেই সিদ্ধান্ত নেবেন।

[৭] সফরে হাইকমিশনার হারিস বিন ওসমানের সঙ্গে রয়েছেন তাঁর সহকারী সায়েদাত হোসাইন ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ড্রিম ফর ডিজঅ্যাবিলিটি ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা হেদায়েতুল আজিজ মুন্না।

 

 

 

 

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত