প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] নারী আন্দোলনের পথিকৃৎ সুফিয়া কামালের ২২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

মাজহারুল ইসলাম: [২] ১৯৯৯ সালের এই দিনে বার্ধক্যজনিত কারণে তিনি ঢাকায় মারা যান। সে সময় রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তাকে আজিমপুর কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। বাংলাদেশের নারীদের মধ্যে তিনিই প্রথম এ সম্মান লাভ করেন।

[৩] সুফিয়া কামাল ছিলেন সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে এক অকুতোভয় যোদ্ধা। ১৯১১ সালের ২০ জুন বিকেল তিনটায় বরিশালের শায়েস্তাবাদের রাহাত মঞ্জিলে তিনি জন্মগ্রহণ করেন। সে সময় বাঙালি মুসলমান নারীদের লেখাপড়ার সুযোগ সীমিত থাকলেও তিনি নিজ চেষ্টায় লেখাপড়া শেখেন এবং ছোটবেলা থেকেই কবিতাচর্চা করেন।

[৪] এ ছাড়াও ভাষা আন্দোলনে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন এবং এই আন্দোলনে নারীদের উদ্বুদ্ধ করেন। তিনি ১৯৫৬ সালে শিশু সংগঠন কচিকাঁচার মেলা প্রতিষ্ঠা করেন।

[৫] সুফিয়া কামাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম মহিলা হোস্টেলকে ‘রোকেয়া হল’ নামকরণের দাবি জানান। ১৯৬১ সালে পাকিস্তান সরকার রবীন্দ্রসঙ্গীত নিষিদ্ধ করলে এর প্রতিবাদে গঠিত আন্দোলনে তিনি যোগ দেন। তিনি ছায়ানটের প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হয়েছিলেন। ১৯৬৯ সালে মহিলা সংগ্রাম কমিটির সভাপতি নির্বাচিত হন এবং গণঅভ্যুত্থানে অংশ নেন।

[৬] ১৯৭০ সালে তিনি মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭১ সালের মার্চে অসহযোগ আন্দোলনে নারীদের মিছিলে নেতৃত্ব দেন। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলনে কার্ফু উপেক্ষা করে নীরব শোভাযাত্রা বের করেন।

[৭] রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বলেছেন, কবি সুফিয়া কামালের জীবনাদর্শ ও সাহিত্যকর্ম বৈষম্যহীন-অসাম্প্রদায়িক সমাজ বিনির্মাণে তরুণ প্রজন্মকে উদ্বুদ্ধ ও অনুপ্রাণিত করবে। ২০ নভেম্বর (শনিবার) সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে শুক্রবার এক বাণীতে তিনি এ কথা বলেন। কবি সুফিয়া কামালের স্মৃতির প্রতি রাষ্ট্রপতি গভীর শ্রদ্ধা জানান।

[৮] প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সুফিয়া কামালের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে বাণী দিয়েছেন। শেখ হাসিনা বলেন, কবি বেগম সুফিয়া কামালের আদর্শ ও দৃষ্টান্ত যুগে যুগে বাঙালি নারীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের গণতান্ত্রিক, বাংলা সাহিত্যের অন্যতম কবি সুফিয়া কামালের সাহিত্যে সৃজনশীলতা ছিল অবিস্মরণীয়। শিশুতোষ রচনা ছাড়াও দেশ, প্রকৃতি, গণতন্ত্র, সমাজ সংস্কার এবং নারীমুক্তিসহ বিভিন্ন বিষয়ে তার লেখনী আজও পাঠককে আলোড়িত ও অনুপ্রাণিত করে। প্রধানমন্ত্রী তার বিদেহী আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত