প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দেবিদ্বারে পরকীয়ার জেরে শিশু খুনের ঘটনায় বাবাসহ আটক ৫

শাহিদুল ইসলাম : [২] কুমিল্লার দেবিদ্বারে নিখোঁজের সাতদিন পর ৫ বছরের শিশু ফাহিমার ক্ষত-বিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করেছে র‌্যাব। এ হত্যা হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে বাবা আমির হোসেনসহ পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করেছে এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

[৩] ফাহিমা দেবিদ্বার পৌর এলাকার চাপানগর (চম্পকনগর) গ্রমের ট্রাক্টর চালক আমির হোসেন ও গৃহিনী হোছনা বেগম’র একমাত্র কণ্যা।

[৪] ফাহিমা গত ৭ নভেম্বর বিকেলে বাড়ির আঙ্গীনায় খেলতে যেয়ে নিখোঁজ হয়েছিলেন। ৭দিন পর নিহত শিশুর নিজ বাড়ি থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দূরে গত ১৪ এপ্রিল উপজেলার এলাহাবাদ ইউনিয়নের কাচিসাইর গ্রামের নজরুল ইসলাম মাষ্টারের বাড়ির সামনে ‘দেবিদ্বার-চান্দিনা’ সড়কের পাশের খাল সংলগ্ন একটি ব্রীজের গোড়ায় বাজারের ব্যাগে শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হয়।

[৫] ১৪ নভেম্বর নিহত ফাহিমার পিতা আমির হোসেন বাদী হয়ে দেবিদ্বার থানায় অজ্ঞাত আসামি করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়ের এবং লাশ উদ্ধারের পর থেকেই এ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে কুমিল্লা এলিট ফোর্স র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)-১১ সিপিসি-২ এর উপ-পরিচালক মেজর সাকিব হোসেন, পিবিআই’র উপ-পরিদর্শক(এসআই) মতিউর রহমান, দেবিদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক (এস,আই) সোহরাব হোসেন সহ একাধিক টিম দফায় দফায় ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। তারা এসময় স্থানীয়দের কাছ থেকে বিভিন্ন মোবাইল নম্বর ও সিসি ক্যামেরা ফুটেজ, চাপানগর গ্রামের মোঃ রেজাউল হোসেন ইমন’র একটি ডেইরী ফার্মের খাদ্য সরবরাহে ব্যাগ যার সাথে ফাহিমার মরদেহ উদ্ধার হওয়া ব্যাগের সঙ্গে মিল খুঁজে পাওয়া একাধিক ব্যাগ আলামত হিসেবে উদ্ধার করেন।

[৬] র‌্যাব কার্যালয়ে ১৩ জনকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আমির হোসেন, লাইলী আক্তার, রবিউল আউয়াল, সোহেল রানা ও রেজাউল হোসেন ইমনসহ ৫ জনকে আটক রেখে বাকী ৮ জনকে হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কোনো সংশ্লিষ্টতা না পেয়ে ছেড়ে দেয়।

[৭] র‌্যাবের মুখপাত্র কমাণ্ডের খন্দকার আল মঈন এক সংবাদ ব্রিফিং-এ জানান, তথ্যপ্রযুক্তি ও ঘটনার বিশ্লেষণ এবং গোয়েন্দা অনুসন্ধানের পর শিশু ফাহিমা হত্যায় যোগসাজশের তথ্য পাওয়ার পরই বাবা আমির হোসেনসহ পাঁচ আসামিকে মঙ্গলবার (১৬ নভেম্বর) দিবাগত রাতে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-১১ এর একটি দল। র‌্যাবের ওই কর্মকর্তা আরো জানান, গত ৫ নভেম্বর ভিক্টিমের বাবা আমির হোসেনকে পাশ্ববর্তী একজন মহিলা লাইলী আক্তার’র সাথে অন্তরঙ্গ অবস্থায় দেখে ফেলে তার মেয়ে ফাহিমা আক্তার। ফাহিমা তার মা’কে বিষয়টি জানিয়ে দেবে বলেও জানায়। তখন লাইলী আক্তারের প্ররোচনায় আমির হোসেনের দুই চাচাতো ভাই রেজাউল ইমন, রবিউল আউয়াল ও তাদের বন্ধু সোহেলসহ রেজাউলের ফার্নিচারের দোকানে বসে একটি পরিকল্পনা করে। পরিকল্পনানুযায়ী আমির হোসেন তার মেয়েকে মেরে ফেলার সিদ্ধান্ত নেন। ৯ নভেম্বর রাতে লাইলী আক্তার ছাড়া বাকী ৪জন উপজেলার কাচিসাইর গ্রামের নির্জন ওই স্থানের কালভার্টের নিচে ভিক্টিমের লাশ ভর্তি ব্যাগটি ফেলে আসেন।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত