প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জনগণের দোরগোড়ায় সেবা দিতে কাজ করছে ডিজিটাল সেন্টার: লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক

জহিরুল ইসলাম: [২] ডিজিটাল বাংলাদেশের সুফল এখন দেশের প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে। ডিজিটাল সেন্টারের কল্যাণে তৃণমূল পর্যায়ের নাগরিকরা উপকৃত হচ্ছেন। প্রতিটি ইউনিয়নে তৈরি হচ্ছে নতুন উদ্যোক্তা। এর মাধ্যমে তথ্য-প্রযুক্তি নির্ভর সেবার ফলে গ্রামের মানুষ দ্রুত ও কম খরচে বিভিন্ন সরকারি-বেসরকারি সেবা লাভ করছে।

[৩] প্রত্যন্ত গ্রাম অঞ্চলের মানুষ প্রযুক্তির সাথে নিজেদেরকে খাপ খাইয়ে নিচ্ছে। আজকে অজপাড়াগাঁয়ে বসবাস করেও মানুষ শুধু দেশেই নয়, সারাবিশ্বের সাথে যোগাযোগ রক্ষা করতে সক্ষম হচ্ছে। করোনা ভাইরাসের মহাসংকটেও ডিজিটাল প্ল্যাটফর্ম থাকায় মানুষের চলার পথে খুব একটা বাঁধা সৃষ্টি করতে পারেনি। বুধবার দুপুরে ডিজিটাল সেন্টারের ১১বছর পূর্তি উদযাপন ও ডিজিটাল বাংলাদেশ ই-সেবা ক্যাম্পেইন-২০২১ এর উদ্বোধন ও আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে লক্ষ্মীপুর জেলা প্রশাসক মো. আনোয়ার হোছাইন আকন্দ এসব কথা বলেন।

[৪] জেলা প্রশাসক বলেন, গ্রামে বসবাসরত জনগোষ্ঠীর জন্য শহরে বা উপজেলা শহরে অবস্থিত সরকারি অফিস থেকে সেবা গ্রহণে দীর্ঘ পথ যাতায়াত, থাকা ও খাওয়ার জন্য অতিরিক্ত খরচ বহন করতে হয়। জনগণের সেবা গ্রহণের ক্ষেত্রে ভোগান্তি কমানোর লক্ষ্যে জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চল গুলোতে ইউনিয়ন ভিত্তিক কাজ করে যাচ্ছে ডিজিটাল সেন্টার। এসব ডিজিটাল সেন্টার এমনভাবে ছড়িয়ে রয়েছে যেন একজন নাগরিক তিন থেকে পাঁচ কিলোমিটারের মধ্যে যাতায়াত করেই সেবা গ্রহণ করতে পারে। অথচ আগে সেবা গ্রহণের জন্য উপজেলা পর্যায়ে ১০-১৫ কিলোমিটার কিংবা জেলা পর্যায়ে ২৫-৩০ কিলোমিটারের অধিক পথ পাড়ি দিতে হতো। ডিজিটাল সেন্টারগুলো পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠী যেমন গ্রামীণ নারী, প্রতিবন্ধী ব্যক্তি এবং বৃদ্ধ যারা নিরক্ষর ও আইসিটি বিষয়ে দক্ষতা কম তাদের প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূর্ণ তথ্য ও সেবা প্রাপ্তি নিশ্চিত করছে।

[৫] অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মেহের নিগার এর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সাজিয়া পারভীন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মোহাম্মদ নূর এ আলম, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম, প্রেসক্লাবের সভাপতি হোসাইন আহমদ হেলাল, সাধারণ সম্পাদক মো. আবদুল মালেক।

[৬] এ সময় জেলার ৫৮ ইউনিয়নের ডিজিটাল সেন্টারের ১১৬জন উদ্যোক্তা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়া ১১ নভেম্বর থেকে ১০ ডিসেম্বর পর্যন্ত ডিজিটাল বাংলাদেশ ই-সেবা ক্যাম্পেইন-২০২১ এ জেলার ডিজিটাল সেন্টার গুলোতে যারা সর্বোচ্চ সেবা দিতে পারবেন তাদের মধ্য থেকে দুইজন উদ্যোক্তাকে জেলা প্রশাসকের পক্ষ থেকে ১০হাজার করে মোট ২০হাজার টাকা পুরষ্কার দেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত