প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিনোদন জগতে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনতে ওয়াল্ট ডিজনি যুক্ত হচ্ছে নতুন প্রযুক্তি মেটাভার্সে

ইমরুল শাহেদ: এ প্রযুক্তির প্রবক্তা হলেন মার্ক জুকারবার্গ। তিনি ফেসবুক, ইনস্টাগ্রামসহ তার নিয়ন্ত্রণাধীন সব কটি যোগাযোগ মাধ্যমকে মেটাভার্স বা মেটা প্রযুক্তিতে সমন্বিত করেছে। ওয়াল্ট ডিজনি সব সময়ই নতুন প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে। এজন্য প্রযুক্তি জগতে তাদেরকে চ্যাম্পিয়নও বলা হয়। এবার তারা ঘোষণা দিয়েছে মার্ক জুকারবার্গের মেটা এবং মাইক্রোসফটের মাধ্যমে মেটাভার্স ব্যান্ডওয়াগনের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার।

মেটাভার্স বলতে বুঝানো হয় যে, একজন সরাসরি শারীরিকভাবে ডিজিটালি ভার্সুয়াল কার্যক্রম চালিয়ে যেতে পারবেন। এটাকে ভার্সুয়াল বাস্তবতা এবং ডিজনির বিনোদন ইতিহাসে বড় ধরনের অগ্রগতি বলে মনে করা হচ্ছে। ডিজনির সিইও বব চাপেক বলেছেন, ‘ওয়াল্ট ডিজনির দীর্ঘতম ট্রেক রেকর্ড রয়েছে। বিনোদনকে আরো আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য আমরা অনায়াসে এই ট্রেক রেকর্ড ব্যবহারে সক্ষম। এটাকে আমাদের শুরু বলা যেতে পারে। আগামীতে আমরা শারীরিক ও ডিজিটাল জগতের মাধ্যমে ভোক্তাদের আরো কাছাকাছি যেতে পারব। ডিজনি মেটাভার্সে গল্পবলার জন্য কোনো সীমাবদ্ধতা থাকবে না।’

ডিজনির ডিজিটাল বিষয়ক সাবেক ভাইস প্রেসিডেন্ট লিংকডইন মাধ্যমে ২০২০ সালে থিম পার্ক মেটাভার্স নিয়ে একটি পোস্ট দিয়েছেন। সেখানে ‘ফিজিক্যাল এ্যান্ড ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড কভারেজ’-এ পরিধান ডিভাইস এবং মোবাইল ফোনে মেটাভার্সের ব্যবহার নিয়ে বিস্তারিত লিখেছেন। মেটাভার্স প্রযুক্তিতে বাস্তবতার ক্ষেত্রে আরো এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে। সেখানে আরো স্তরায়িত থাকবে ডিজিটাল বিশ্বের নানা অনুষঙ্গ। এক্ষেত্রে উদাহরণ হিসেবে ‘পোকেমন গো’ গেইমকে তুলে ধরা হয়েছে। মেটাভার্স প্রযুক্তিতে সম্প্রতি মোবাইল ফোন বা ফেসবুককে স্মার্ট গøাসের মাধ্যমে রে-ব্যানের সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে। সূত্র: ইয়ন

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত