প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] পদত্যাগ করুন নইলে পালাবার পথ খুঁজে পাবেন না: সরকারকে মির্জা ফখরুল

শিমুল মাহমুদ: [২] বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সরকারকে উদ্দেশ্য করে বলেছেন, অবিলম্বে পদত্যাগ করুন। একটি নির্দোলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে একটি নির্বাচন দিন। তা না হলে দেশের জনগণ আপনাদের ঝেটিয়ে বিদায় করবে, পালাবার পথও খুঁজে পাবেন না। আমরা কথার কথা বলছি না, এটাই হবে।

[৩] শনিবার (১৩ নভেম্বর) বিকালে রাজধানীর পুরান ঢাকার নয়াবাজারে নবাব ইউসুফ মার্কেটে দলীয় কার্যালয়ে এক কর্মীসভায় তিনি এসব কথা বলেন। ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির ৩৪ ও ৩৫ নম্বর ওয়ার্ডের নেতাকর্মীদের নিয়ে এই কর্মী সভা হয়।

[৪] মির্জা ফখরুল বলেন, সরকার নির্বাচন নির্বাচন করে। আমরা ঢাকা সিটি করপোরেশনের নির্বাচন দেখেছি, কিভাবে তারা জোর করে ফলাফল ঘোষণা করেছে। ২০১৮ সালে আগের রাতের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন দেখেছি। এ দেশে আর কোনো নির্বাচন হবে না, যতক্ষণ পর্যন্ত শেখ হাসিনা পদত্যাগ না করবেন।

[৫] তিনি বলেন, আমি এখানে আসার আগে শুনলাম বিদ্যুতের লাইন কেটে দেওয়া হয়েছে। এরা (সরকার) কত ছোট ও সংকীর্ণ মনের হতে পারে-এভাবে তারা আমাদের বাধা প্রদান করে। আমাদের ওপর যত নির্যাতন করুক, কার্যালয় বন্ধ করুক-এভাবে তো কোনো লাভ হবে না। তাদের যেতে তো হবেই। এদের (সরকার) সময় শেষ হয়ে এসেছে, আর চিন্তা করার কারণ নেই। জনগণের বিজয় হবেই। নেতাকর্মীদের বলব, আপনারা সংগ্রামের জন্য তৈরি হোন।

[৬] তিনি বলেন, আমরা একটা কঠিন সংগ্রামে আছি। এই সংগ্রাম হচ্ছে বাংলাদেশের অস্তিত্ব, স্বাধীনতা, গণতন্ত্র রক্ষার সংগ্রাম। আমাদের ভবিষ্যত প্রজন্ম যাতে একটা স্বাধীন দেশে বাস করতে পারে তার জন্য সংগ্রাম। দেশে আজ কোনো কিছু অবশিষ্ট নেই। স্বাধীন দেশ বলতে কিছু নেই-এটাকে আমাদের ফিরিয়ে আনতে হবে।

[৭] বিএনপির মহাসচিব বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বৃদ্ধি করা হয়েছে। প্রতিটি নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম হু হু করে বাড়ছে। কোথাও কারো কোনো নিরাপত্তা নেই। মানুষকে শান্তি দেবে, সেদিকে সরকারের কোনো নজর নেই। তাদের নজর হচ্ছে জনগণের পকেট কাটার দিকে। এমন দেশ তো আমরা চাইনি।

[৮] মির্জা ফখরুল বলেন, আমাদের ওপর গত ১৫ বছর ধরে নির্যাতন চলছে। আমাদের ৩৫ লক্ষ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে এক লক্ষের ওপরে মামলা, ৫’শ অধিক নেতাকর্মীকে গুম করা হয়েছে। ধরে নিয়ে গুলি করে পঙ্গু করা হয়েছে, রিমান্ডে নিয়ে নির্যাতন করা হয়েছে। এরপরও একটা লোককেও তারা নিতে পারেন নি। এটা আমাদের ঈমানের জোর। আল্লাহ ছাড়া আমাদের অন্য কাউকে ভয় করার কারণ নেই। আমরা যে সংগ্রাম করছি-এটা হচ্ছে ন্যায়ের পথে সত্যের পথে আমাদের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের জন্য। সুতরাং আমাদের বিরত করার কোনো পথ নেই।

[৯] সভায় আরও বক্তব্য দেন- ঢাকা মহানগর দক্ষিণের আহবায়ক আব্দুস সালাম, সদস্য সচিব রফিকুল আলম মজনু, সদস্য ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেনসহ প্রমুখ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত