প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাঁধাকপি ক্যান্সার সৃষ্টিকারী টিউমার বৃদ্ধি রোধ করে

ডেস্ক রিপোর্ট: বাঁধাকপির ইংরেজি নাম ঈধননধমব এবং বৈজ্ঞানিক নাম ইৎধংংরপধ ড়ষবৎধপবধ। বাঁধাকপি বিভিন্ন রঙের হয়ে থাকে যেমন- গাঢ় সবুজ, হালকা সবুজ, সাদা, লাল ও বেগুনী। বাঁধাকপি মূলত একটি শীতকালীন সবজি, যা পাতাকপি নামে বেশি প্রচলিত। বাংলাদেশ প্রতিদিন

বাঁধাকপি পেট ব্যথা এবং অন্ত্রের আলসার কমাতে সাহায্য করে। ইউএস ন্যাশনাল লাইব্রেরির সমীক্ষা অনুযায়ী পাকস্থলীর আলসারে যারা বাঁধাকপির রস পান করেন না তাদের তুলনায় গড়ে যারা বাঁধাকপির রস পান করেন তারা দ্রুত নিরাময় লাভ করেন। বাঁধাকপি বুক জ্বালা-পোড়া, পেট ফাঁপা ইত্যাদি সমস্যা দূর করে।

এক কাপ বা ৯০ গ্রাম বাঁধাকপিতে রয়েছে ২২ ক্যালরি শক্তি। প্রোটিন আছে ১ গ্রাম, ফাইবার ২ গ্রাম; আর প্রতিদিনের প্রয়োজনীয় ভিটামিন সির ৫৪ শতাংশ, ভিটামিন কের ৮৫ শতাংশ, ফোলেটের ১০ শতাংশ, ম্যাঙ্গানিজের ৭ শতাংশ, ভিটামিন বি সিক্সের ৬ শতাংশ, ক্যালসিয়ামের ৪ শতাংশ, পটাশিয়ামের ৪ শতাংশ ও ম্যাগনেশিয়ামের ৩ শতাংশ মেলে।

একাধিক গবেষণায় জানা গেছে, বাঁধাকপি বিশেষ ধরনের ক্যানসার প্রতিরোধে ভূমিকা রাখে। এর সালফারসমৃদ্ধ উপাদান গ্লুকোসাইনোলেটস তৈরি হয় বাঁধাকপি থেকে, যা ক্যানসারের বিরুদ্ধে রক্ষাকবচ হিসেবে কাজ করে। বাঁধাকপি ক্যান্সার সৃষ্টিকারী টিউমার বৃদ্ধি রোধ করে। এছাড়াও টাইপ টু ডায়াবেটিস হওয়ার ঝুঁকি কমায় বাঁধাকপি।

কিডনি সমস্যা প্রতিরোধে ও এ সমস্যায় আক্রান্তদের জন্য বাধাকপি আরেকটি অপরিহার্য সবজি। যারা কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে ডায়ালাইসিস করিয়ে থাকেন, চিকিৎসকরা তাদের কাঁচা বাঁধাকপি খাওয়ার পরামর্শ দেন। এতে প্রচুর পরিমান ভিটামিন সি রয়েছে যা দেহে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করে।

বাঁধাকপির রস খেলে ঘা/ফোঁড়া সেরে যায়। এর পাতা কাঁচা যদি আপনি রোজ ৫০ গ্রাম করে খেতে পারেন দাঁতের অন্য কোন সমস্যা থাকবে না। এতে আছে উচ্চ আঁশ জাতীয় উপাদান যা হজম প্রক্রিয়াকে সহজ করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। এটি বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ একটি সবজি যা চোখের সুরক্ষায় অত্যন্ত কার্যকরী।

বাঁধাকপিতে প্রচুর পরিমান ভিটামিন আছে যা চুল পরা সমস্যা রোধ করে নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে।

বাঁধাকপিতে রয়েছে প্রচুর অ্যান্টি–অক্সিডেন্ট। এর ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস কোষকে সজীব রাখে, কোষের প্রদাহ দূর করে, ফোলা কমায়। এছাড়াও ক্যানসার, হার্টের অসুখ, ডায়বেটিস ও আলঝেইমার প্রতিরোধে সহায়ক ভূমিকা রাখে বলে মনে করা হয়।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত