প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

এম. নজরুল ইসলাম: বাংলাদেশ ও আওয়ামী লীগকে ধ্বংসের অপচেষ্টা

এম. নজরুল ইসলাম: ১৯৭৫ সালের ৩ নবেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারা অভ্যন্তরে জাতীয় চার নেতা- সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, এম মনসুর আলী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীরা গুলি করে ও বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে হত্যা করেছিল। তারা সবাই বঙ্গবন্ধুর অনুপস্থিতিতে একাত্তর সালে আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। ইতিহাস অনেক হত্যাকাণ্ড আর রক্তাক্ত অধ্যায়ের সাক্ষী। কিন্তু ১৯৭৫ সালের ৩ নবেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের হত্যাকাণ্ড ছিল নজিরবিহীন। আজ আমরা পরম শ্রদ্ধায় স্মরণ করি সেই চার জাতীয় নেতা, স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রপতি সৈয়দ নজরুল ইসলাম, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে। দুঃখের বিষয়, জেলহত্যার পর দীর্ঘদিন ক্ষমতা দখলে রেখেছিল খুনীদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক পক্ষ। তারা ধামাচাপা দিয়ে রেখেছিল হত্যা মামলার বিচার। সুপরিকল্পিতভাবে অনেক আলামত নষ্ট করা হয়েছিল। আওয়ামী লীগের প্রতি বিদ্বেষের প্রথম বহির্প্রকাশ ঘটে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে। ঘাতকরা ধারণা করেছিল, একটি দলকে নিশ্চিহ্ন করতে হলে প্রথমে তার শীর্ষস্থানীয় নেতৃত্বকে শেষ করে দিতে হবে। শুরুটা হয়েছিল বঙ্গবন্ধুকে দিয়ে। মোশতাক জাতীয় চার নেতাকে নানা টোপ দিয়ে তার মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত করতে চেষ্টা করেছিলেন। কিন্তু কোন প্রলোভনই বঙ্গবন্ধুর রক্ত আর দলের সঙ্গে তাদের বিশ্বাসঘাতকতা করতে উদ্বুদ্ধ করতে পারেনি। এই প্রেক্ষাপটেই ঘটে ইতিহাসের আরেক নৃশংস ঘটনা, কারা অভ্যন্তরে চার জাতীয় নেতাকে হত্যা করা হয়। এক নিমেষেই বাংলাদেশে আওয়ামী লীগের শীর্ষস্থানীয় নেতাদের, যারা আমাদের মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, তাদের হত্যা করার প্রথম পর্ব শেষ হয়। একাত্তরের পরাজয় মেনে নেয়নি এবং নিজেদের অবস্থান থেকেও সরে আসেনি যে শক্তি তারাই পরবর্তীকালে সংগঠিত হওয়ার চেষ্টা করে এবং নানারকম ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। সপরিবারে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা এবং কারাগারে জাতীয় চার নেতাকে হত্যা ছিল সেই ষড়যন্ত্রেরই অংশ। এই হত্যাকাণ্ড শুধু বাংলাদেশের ইতিহাসে নয়, বিশ্বমানবতার ইতিহাসেও এক কলঙ্কজনক অধ্যায়। কারাগারের নিরাপত্তানীতি ভেঙ্গে রাতের অন্ধকারে এভাবে জাতীয় নেতাদের হত্যার ঘটনা বিশ্বে বিরল।

দুঃখের বিষয়, জেলহত্যার পর দীর্ঘদিন ক্ষমতা দখলে রেখেছিল খুনীদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক পক্ষ। তারা ধামাচাপা দিয়ে রেখেছিল হত্যা মামলার বিচার। সুপরিকল্পিতভাবে অনেক আলামত নষ্ট করা হয়েছিল। প্রকাশিত বিভিন্ন তথ্য থেকে জানা যায়, ৩ নবেম্বর ভোর ৪টার সময় বঙ্গভবনে ডিআইজি প্রিজন থেকে একটি ফোন আসে। ফোনটি রসিদ রিসিভ করে এক পর্যায়ে তা খন্দকার মোশতাকের হাতে দেন। মোশতাক ফোনে শুধু ‘হ্যাঁ’ ‘হ্যাঁ’ বলতে থাকেন। এসব কথা রশিদ মাসকারেনহাসকে একটি সাক্ষাতকারে বললেও তিনি ঘটনার অর্ধেকটা বলেছিলেন। বাস্তবে দুই মাস আগে ফারুক আর রশিদ ষড়যন্ত্র করেন যে কোন কারণে মোশতাক নিহত হলে অথবা কোন ধরনের ক্যু সংঘটিত হলে তারা কারাগারে বন্দী আওয়ামী লীগের চারজন গুরুত্বপূর্ণ নেতা- সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, মনসুর আলী ও এ এইচ এম কামারুজ্জামানকে খতম করে দেবেন। এর ফলে আওয়ামী লীগ আর কখনও ক্ষমতায় ফিরতে পারবে না। বঙ্গভবনে যখন ডিআইজি প্রিজন ফোন করেছিলেন তখন রিসালদার মুসলেহউদ্দিন কারাগারে হাজির হয়েছিল একদল ঘাতক নিয়ে এই চার জাতীয় নেতাকে হত্যা করতে। কারাগারে যে কোন সময় অস্ত্র নিয়ে প্রবেশ নিষিদ্ধ। তারা কারা কর্তৃপক্ষকে বলেছিল, তাদের কাছে রাষ্ট্রপতির অনুমতি আছে। ডিআইজি প্রিজন এ ব্যাপারে রাষ্ট্রপতির বক্তব্য শুনতে ফোন করেছিলেন। ৩ তারিখ ভোরে ঘাতকরা কারাগারে নিরাপত্তা হেফাজতে রক্ষিত চার জাতীয় নেতাকে নির্মমভাবে ব্রাশফায়ার করে হত্যা করে।

আবদুল গাফ্্ফার চৌধুরী এক নিবন্ধে লিখেছেন, ‘ধরে নিলাম বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল ক্ষমতা থেকে উচ্ছেদ করার জন্য। ধরে নিলাম সৈয়দ নজরুল ইসলাম, কামারুজ্জামান ও মনসুর আলীকে হত্যা করা হয়েছিল তারা বঙ্গবন্ধু সরকারের মন্ত্রী ছিলেন বলে। কিন্তু তাজউদ্দীন আহমদকে তার বাসা থেকে ধরে নিয়ে জেলে পুরে হত্যা করা হলো কেন? তিনি তো তখন আর মন্ত্রী ছিলেন না। এমনকি বঙ্গবন্ধুর নবগঠিত বাকশালের সাধারণ সম্পাদকের পদ গ্রহণ করেননি।’ আবদুল গাফ্্ফার চৌধুরী বলেন, ‘এই হত্যাকাণ্ডের উদ্দেশ্যটি হলো গণতান্ত্রিক ও অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের অভ্যুদয় রোখা এবং তার রাজনৈতিক সংস্কৃতির সেক্যুলার ভিত্তিকে ধ্বংস করে দেয়া।’

ইউজিসির সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবদুল মান্নান এক নিবন্ধে লিখেছেন, ‘জেলে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা বন্দী থাকলেও বঙ্গবন্ধুহীন দলের নেতৃত্ব দিতে পারতেন সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজউদ্দীন আহমদ, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী ও কামারুজ্জামান। বঙ্গবন্ধুর অবর্তমানে মুক্তিযুদ্ধে নেতৃত্ব দিতে পারলে বঙ্গবন্ধুহীন আওয়ামী লীগকেও আবার ক্ষমতায় আনতে পারেন তারা। সে চিন্তাতেই খুনীরা ৩ নবেম্বর ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে ঢুকে জাতীয় চার নেতাকে নিমর্মভাবে হত্যা করে, যা ছিল বিশ্বের ইতিহাসে একটি নজিরবিহীন ঘটনা। এ হত্যাকাণ্ডের উদ্দেশ্য ছিল বাংলাদেশ থেকে আওয়ামী লীগ নামক রাজনৈতিক দলটিকে নিশ্চিহ্ন করে দেয়া। তারা ধরে নিয়েছিল, দেশে আওয়ামী লীগ না থাকলে বাংলাদেশকে আবার পাকিস্তানে রূপান্তর করা সহজ হবে। ঘাতকরা একটি আদর্শকে হত্যা করতে চেয়েছিল।’

১৫ আগস্ট ও ৩ নবেম্বরের হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে স্বাধীনতার শত্রæরা বাংলাদেশ ও আওয়ামী লীগকে ধ্বংস করতে চেয়েছিল। জনমানুষের সমর্থনে আওয়ামী লীগ আবার ক্ষমতায় এসেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ আজ বিশ্বে উন্নয়নের রোল মডেল। নতুন বাংলাদেশের রূপকার বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা। তাঁর নেতৃত্বেই বাংলাদেশ আবার উদারনৈতিক ধর্মনিরপেক্ষ আদর্শের ভিত্তিতে সমৃদ্ধিশালী হবে, আমরা আশাবাদী।

লেখক : সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি এবং অস্ট্রিয়া প্রবাসী মানবাধিকার কর্মী, লেখক ও সাংবাদিক

[email protected]

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত