প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মঈন চৌধুরী: হাম বোলতাকো বোলতা বোলতা

মঈন চৌধুরী
আবুল মুনশি দিল্লিতে গেলো পড়াশোনা করতে। তার রুমমেট সঞ্জীব সুদ, দিল্লির ছেলে। আবুলের একমাত্র অসুবিধা হলো, সে হিন্দি ভাষা জানে না। বাংলার সঙ্গে এঙা উঙা লাগিয়ে কোনোমতে চালিয়ে যাচ্ছিলো সে, আর দুঃখ করতো কেন সে নিয়মিত হিন্দি সিরিয়াল দেখেনি। একদিন আবুল রুমে বসে আছে। হঠাৎ একটা বোলতা এসে ভোঁ ভোঁ করে চার-পাঁচ চক্কর দিয়ে তার নাকে হুল ফুটিয়ে উড়ে চলে গেলো। ব্যথায় আবুলের নাক ফুলে গোল আলুর মতো হলো। এমন সময় রুমে সঞ্জীব অবাক হয়ে আবুলকে জিজ্ঞেস করলো-‘ক্যায়া হুয়া আবুল?’ আবুল শান্তভাবে উত্তর দিলো-‘বোলতানে কামড়ায়া।’ সঞ্জীব কিছুই বুঝতে না পেরে আবার প্রশ্ন করলো-‘বোলতা ক্যায়া হোতা হায়?’ এবার আবুল অসহায় উচ্চারণ-‘হাম তো বোলতাকো বোলতা বোলতা, তুম বোলতাকো কেয়া বোলতা?’ এক বাক্যে পাঁচবার ‘বোলতা’ শুনে সঞ্জীব ভ্যাবাচেকা খেয়ে বললো-‘হামলোগ বাত বোলতা ইয়ার। আবুল এবার একটু রেগেই উত্তর দিলো-‘আমরা বোলতাকো বোলতাই বোলতা, বুঝতা হায়?’ সঞ্জীব আর কথা না বাড়িয়ে হাসতে হাসতে বাথরুমে চলে গেলো।

আমার এই গল্প বলার উদ্দেশ্য হলো, আমাদের অনেকেই আমাদের ভাষা বাংলাতেই অনেক আবোল তাবোল বলি। গত সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন-‘উই আর লুকিং ফর শত্রুজ’, আরেকজন বলেছিলেন-‘আল্লার মাল আল্লায় নিছে’। এবারের সরকারের প্রাক্তন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন-‘বিল্ডিং নিয়ে নাড়াচাড়া আর ঝাঁকি দিলে বিল্ডিং ধসে পড়তে পারে’, আরেকজন বললেন-‘ঈদের ছুটিতে বাড়ি যাওয়ার আগে তালা মেরে যাবেন, তাহলে চুরি হবে না। এখন এক মন্ত্রী বলছেন-‘লুটপাট হতে পারে, হরিলুট হবে না।’ আমি তাই বলি, ভবিষ্যতে যদি এমন কোনো অর্থহীন বাক্য শোনেন তবে সঙ্গে সঙ্গে ‘হাম বোলতাকো বোলতা বোলতা, তুম বোলতাকো কেয়া বোলতা’ বাক্যটি স্মরণে এনে বাথরুমে চলে যাবেন। Mayeen Chowdhury-র ফেসবুক ওয়ালে লেখাটি পড়ুন।

সর্বাধিক পঠিত