প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

মুনমুন শারমিন শামস্: নারীসুলভ এবং অনারীসুলভ!

মুনমুন শারমিন শামস্: আইডা বি ওয়েলস ছিলেন আঠারো শতকের একজন অনুসন্ধানী সাংবাদিক। ব্ল্যাক আমেরিকান। সেটা সেই সময়, যখন বলা হতো ‘আ নিগ্রো ওমেন ক্যাননট বি আ লেডি।’ ভদ্রমহিলা বলতে সমাজ ও রাষ্ট্র শুধু সাদা মহিলা বুঝতো। এই লেডিদের জন্য তখন আবার সবই ছিলো আলাদা। লেডিস লাউঞ্জ, লেডিস কেবিন এসব তো আমরা এখনো দেখি। সেই যুগে এসব তো বটেই, সঙ্গে ছিলো লেডিস হর্স মানে ঘোড়া, লেডিস রেলওয়ে কার, এমনকি মেয়েদের জন্য আলাদা লেডিস কেক পর্যন্ত। এই কেক বানানো হতো গোলাপজল দিয়ে। হাস্যকর! লেডিসদের জন্য সবই ছিলো আলাদা তবে লেডিস মানে ওই সাদা লেডিসই, কালোরা নয়। কালো মেয়ে ভদ্র লেডির পর্যায়েই পড়ে না আর কি! এ রকম একটা হাস্যকর অসভ্য সময়ে আইডি ওয়েলস ছিলেন সোচ্চার এক অ্যাক্টিভিস্ট, যার কলম দিয়ে আগুন ঝরতো।

তো ১৮৮৩ সালের কোনো এক সময়ে ওয়েলস একটা লেডিস ট্রেন কারে চড়লেন। সাদা লেডিদের কারই সেটা, কারণ কালো নারীদের জন্য কোনো গাড়িই ছিলো না, চড়বেন কীসে? সাদাদেরটাতেই চড়লেন। তো কন্ডাক্টর এসে তাকে ধরছে। ঘাড় ধরে তাকে বাইর করেন দেবে। টানাটানি চলছে। ওয়েলস কিছুতেই বের হবেন না। কন্ডাক্টর হাত ধরে টানে, ওয়েলস সামনের সিটের সঙ্গে পা লাগিয়ে টাইট হয়ে গেড়ে বসছেন, কিছুতেই নামবেন না। এরপর একপর্যায়ে কন্ডাক্টরের হাতে দিয়েছেন কামড় বসিয়ে। কী আর করা। সেই লোক তখন আরেক লোককে সঙ্গে নিয়ে এসে হেঁচড়িয়ে পিচড়িয়ে ওয়েলসকে ট্রেন গাড়ি থেকে নামিয়ে দিলেন। এরপর হয়েছে কী, ওয়েলস রেলওয়ে কোম্পানির বিরুদ্ধে মামলা করলেন এবং জিতলেন। মজাটা শুরু হয়েছে ঠিক তখন। রেলওয়ে আপিল করেছে। তখন সুপ্রিম কোর্ট কী করেছে জানেন? তারা আগের রুল বাতিল করে দিয়েছে। কেন জানেন? ওয়েলসের ‘অনারীসুলভ’ আচরণের কারণে বাতিল হয়ে গেছে ওই রুল। হা হা হা হা। অনারীসুলভ- সুপ্রিম কোর্টের ভাষায়- Unladylike Presistence- অনারীসুলভ আচরণ/ অস্তিত্ব এই আর কি!

দুনিয়াতে সবচেয়ে বড় অপরাধের অন্যতম হলো নারীসুলভ না হওয়া। এই নারীসুলভ হওয়াটাই সমাজের চোখে ভালো মেয়ে। আর অনারীসুলভ বা আনলেডিলাইক- সবই অসতী, খারাপ আর বেশ্যা। সাদা নারীর ক্ষেত্রে সমাজ ও রাষ্ট্র সতীপনার সুযোগ রেখে দিয়েছিলো। কালা নারীর জন্য তা রাখেনি। সাদা নারীর লেডিস কেক কালা নারীর কপালে ছিলো না। শ্রেণি ও বর্ণ নারীকে নারীত্বের বৈষম্যের ভেতরেও আরও তীব্র বৈষম্যের মুখোমুখি করে। কিন্তু তাই বলে সাদা নারীর লিঙ্গবৈষম্য ও বঞ্চনা কিন্তু কালা নারীর চেয়ে কম নয়। ওই কেকটাও বঞ্চনাই। ওই স্পেশাল ট্রেনটাও বঞ্চনা, অপমানই। এগুলো কিছু সাদা নারীও সেকালে বুঝছিলেন বলেই দুনিয়া একদিন নারীবাদী পৃথিবীর স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছিলো। Moonmoon Sharmin Shams-র ফেসবুক ওয়ালে লেখাটি পড়ুন।

সর্বাধিক পঠিত